ঢাকা বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ২৯, ২০২৪
গাজা ইস্যুতে জাতিসংঘ সনদের ৯৯ ধারার প্রয়োগ করলেন মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস
  • আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • ২০২৩-১২-০৭ ১৩:৪৩:০৬

গাজায় জাতিসংঘ সনদের ৯৯ ধারা কার্যকরে ব্যবস্থা নিতে নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস।

 ইসরায়েল, হামাস ও তাদের মিত্রদের মধ্যে যুদ্ধবিরতি কার্যকরে সংস্থাটি কোনো রেজুলেশন গ্রহণ না করার কারণে জাতিসংঘ মহাসচিবের এই ডাককে একটি বিরল ঘটনা হিসেবে দেখা হচ্ছে। খবর আল জাজিরার।

 আর্টিকেল ৯৯ জাতিসংঘ মহাসচিবকে এই বিশেষ ক্ষমতা দিয়েছে। এই ধারা অনুযায়ী, কোনো বিষয় বিশ্বের শান্তি ও নিরাপত্তাকে হুমকির সম্মুখীন করছে, যদি জাতিসংঘ মহাসচিব এমনটা মনে করেন তাহলে তিনি এ বিষয়ে নিরাপত্তা পরিষদকে পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান।

 আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা বজায় রাখতে ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদকে জাতিসংঘের সবচেয়ে ক্ষমতাধর সংস্থা হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

 নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতির কাছে লেখা চিঠিতে গুতেরেস এই দায়দায়িত্বের কথা তুলে ধরে বলেন, তিনি মনে করেন ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনি ভূখন্ডের পরিস্থিতি আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তার প্রতি ক্রমশ অবনতিশীল হুমকি হিসেবে দেখা দিতে পারে।

 গত ১৮ই অক্টোবর থেকে গাজায় মানবিক যুদ্ধবিরতির জন্য ক্রমাগত আহ্বান জানিয়ে আসছেন গুতেরেস। তিনি সেখানকার পরিস্থিতি ইসরায়েল ও অধিকৃত ফিলিস্তিনি ভূখন্ডের মানুষের জন্য ভয়ঙ্কর মানবিক দুর্দশা, অবকাঠামোর ধ্বংসযজ্ঞসহ একটি মানসিক সমস্যা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

 অ্যান্তোনিও গুতেরেসের এই চিঠির প্রতি সাড়া দিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এক্সে এক পোস্টে জানায়, তারা নিরাপত্তা পরিষদের কাছে একটি খসড়া রেজুলেশনে দাখিল করেছে; যেখানে জরুরীভাবে মানবিক যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানানো হয়েছে।

 জাতিসংঘ মহাসচিবের উপদেশ অনুযায়ী, যদি নিরাপত্তা পরিষদ যুদ্ধবিরতির জন্য একটি রেজুলেশন গ্রহণ করে তবে তার বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে অতিরিক্ত ক্ষমতা রয়েছে সংস্থাটির হাতে। এর মধ্যে রয়েছে নিষেধাজ্ঞা আরোপ অথবা আন্তর্জাতিক বাহিনী মোতায়েনের বৈধতা দেওয়া। তবে সংস্থাটির পাঁচটি স্থায়ী সদস্য চীন, রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের রয়েছে ভেটো প্রদানের ক্ষমতা।

 গত ১৮ই অক্টোবর যুক্তরাষ্ট্র ভেটো প্রদানের ক্ষমতা প্রয়োগ করে। যদিও গাজায় মানবিক সহায়তাপণ্য সরবরাহ নিশ্চিত করতে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়ে ১২টি দেশ ওই প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয়। তবে রাশিয়া ও যুক্তরাজ্য ভোট প্রদানে বিরত থাকে।

 আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতির কাছে নিজের ক্ষমতা প্রয়োগ করে(আর্টিকেল ৯৯) চিঠি দিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস।

 এতে তিনি বলেছেন, ইসরায়েল ও দখলকৃত ফিলিস্তিনি ভূখন্ডে এখন যে পরিস্থিতি তাতে বিশ্বের শান্তি ও নিরাপত্তা বজায় রাখার বিরুদ্ধে থাকা হুমকিকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।’

 আর্টিকেল ৯৯ প্রয়োগের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে গুতেরেস বলেন, ‘অবরুদ্ধ গাজা ভূখন্ডে কোনো এলাকাই এখন আর নিরাপদ নয়। গাজায় পুরো মানবিক ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার জোরালো আশঙ্কা আছে। পরিস্থিতি দ্রুত খারাপ হচ্ছে।’

 তার ভাষায়, ‘ফিলিস্তিন তো বটেই, গোটা বিশ্বের শান্তি ও সুরক্ষার ওপর এর বিরূপ প্রভাব পড়বে। এই পরিস্থিতি যেকোনও মূল্যে এড়াতে হবে।’

 ২০১৭ থেকে গুতেরেস জাতিসংঘের মহাসচিব পদে আছেন। এই প্রথম তিনি জাতিসংঘের চার্টারের আর্টিকেল ৯৯ ধারা প্রয়োগ করলেন।

 

 এদিকে, উত্তর গাজাকে ধূলিসাৎ করার পর দক্ষিণ গাজাতেও একই নিধনযজ্ঞ চালাচ্ছে ইসরায়েল। এখন পর্যন্ত ১৬ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে, যাদের বেশির ভাগই নারী ও শিশু। হাসপাতাল-স্কুলে নির্বিচার হামলায়  শতাধিক জাতিসংঘ কর্মী নিহত হয়েছে ইসরায়েলি হামলায়। চরম অমানবিক পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ায় গত ১৮ই অক্টোবর থেকে বার বার যুদ্ধবিরতি, শান্তির আহ্বান জানিয়ে এসেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। ইসরায়েল গাজায় যুদ্ধাপরাধ করছে এমন অভিযোগ করছে আন্তর্জাতিক মহলের সবচেয়ে বড় সংস্থাটি। কিন্তু ইসরায়েল এসবে কর্ণপাত তো করেইনি বরং জাতিসংঘভুক্ত সংস্থাগুলোকে একের পর এক ফিলিস্তিনে কাজ করতে বাধা দিচ্ছে। এরই মধ্যে গত ৬ই ডিসেম্বর পশ্চিম তীরে জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থার সমন্বয়ক লিন হিসটিংসের ভিসা বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে ইসরায়েল।

 
নিউইয়র্কে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন
মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনের ফাঁকে জেলেনস্কির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক
২০২৩ সালে নিহত ৯৯ সাংবাদিকের মধ্যে ৭৭জনই গাজা যুদ্ধে মারা গেছেন ঃ সিপিজে
সর্বশেষ সংবাদ