ঢাকা মঙ্গলবার, মার্চ ৫, ২০২৪
এমপি কাজী কেরামত আলী তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির নতুন সভাপতি
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২৪-০২-০৭ ১৪:৫৭:৪৪

 রাজবাড়ী-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলীকে সভাপতি করে গতকাল ৭ই ফেব্রুয়ারী তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 এ কমিটির অপর সদস্যরা হলেন- তথ্য প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত, শিবলী সাদিক, মোঃ শফিকুর রহমান, আলী আজম, ফয়জুর রহমান, আবুল কালাম মোহাম্মদ আসাদুল হক চৌধুরী, আফজাল হোসেন ও আবদুচ ছালাম

 জাতীয় সংসদে গতকাল ৭ই ফেব্রুয়ারী ১২টি গুরুত্বপূর্ণ সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠিত হয়েছে। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদে চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী কমিটি গঠনের প্রস্তাব করলে তা কণ্ঠভোটে সর্বসম্মতিক্রমে পাস হয়। 

 উল্লেখ্য, আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলী রাজবাড়ী-১ আসন থেকে ৬ষ্ঠ বার নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য। তিনি বর্তমানে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি। 

 আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলীর সংক্ষিপ্ত জীবন বৃত্তান্ত ঃ- রাজবাড়ী-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী ১৯৫৪ সালের ২২শে এপ্রিল রাজবাড়ী জেলার সজ্জনকান্দায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা প্রয়াত সাবেক গণপরিষদ সদস্য কাজী হেদায়েত হোসেন এবং মাতা মনাক্কা বেগম।

 আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী রাজবাড়ী শহরের ইয়াছিন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, রাজবাড়ী সরকারী কলেজ থেকে এইচএসসি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.কম সম্মানসহ এম.কম ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ব্যবসার পাশাপাশি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। তিনি ১৯৯০ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

 কাজী কেরামত আলী ১৯৯২ সালে ৫ম জাতীয় সংসদে রাজবাড়ী-১ থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়নে উপ-নির্বাচনে প্রথম বারেরমত জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৯৬ সালে ৭ম জাতীয় সংসদ এবং ২০০৮ সালে ৯ম জাতীয় সংসদ, ২০১৪ সালে ১০ম জাতীয় সংসদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়, ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ এবং ২০২৩ সালে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়নে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। 

 তিনি ৫ম জাতীয় সংসদে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য এবং ৭ম জাতীয় সংসদে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য, নবম জাতীয় সংসদে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও তার পূর্বে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন এবং জাতীয় সংসদে লাইব্রেরী কমিটির সদস্য হিসেবে, দশম জাতীয় সংসদের সরকারী প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৮ সালের ২রা জানুয়ারী তিনি প্রতিমন্ত্রী প্রতিমন্ত্রী নিযুক্ত হয়ে ১বছর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বিভাগে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে একাদশ জাতীয় সংসদে তিনি তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি এবং সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। 

 কাজী কেরামত আলী ১৯৯৬ থেকে রাজবাড়ী জেলার বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী ও রাজবাড়ী জেলা শিল্পকলা একাডেমীর আজীবন সদস্য, রাজবাড়ী রোটারী ক্লাবের সদস্য এবং রাজবাড়ী জেলা রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির জীবন সদস্য। 

 ইংরেজি ভাষায় দক্ষ কাজী কেরামত আলী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী হিসেবে ইতিপূর্বে কুয়েত সফর এবং সরকারী ও ব্যক্তিগত প্রয়োজনে আমেরিকা, কানাডা, চীন, জাপান, সংযুক্ত আরব আমিরাত, সৌদি আরব, সিঙ্গাপুর ও ভারতসহ বিশ্বের অনেক দেশ সফর করেছেন। তাঁর স্ত্রী রেবেকা সুলতানা সাজু জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এবং একমাত্র কন্যা কানিজ ফাতেমা চৈতী রাজবাড়ী জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি।

 উল্লেখ্য, আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর ও মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, তৎকালীন গোয়ালন্দ মহকুমা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক গণপরিষদ সদস্য প্রয়াত কাজী হেদায়েত হোসেনের জ্যেষ্ঠ পুত্র। কাজী হেদায়েত হোসেন ১৯৭০ সালের নির্বাচনে গণপরিষদ সদস্য এবং তার পূর্বে কয়েকবার রাজবাড়ী পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার ৩দিন পর ১৮ই আগস্ট রাজবাড়ী শহরের কলেজ রোডে ড্রাই আইস ফ্যাক্টরী এলাকায় অজ্ঞাতনামা বন্দুকধারীরা কাজী হেদায়েত হোসেনকে গুলি করে নির্মম ভাবে হত্যা করে।

 
সেবক হিসেবে জেলা প্রশাসকদের জনগণের জন্য কাজ করতে হবে-----স্পিকার ড. শিরীন শারমিন
ভাঙ্গা থেকে পায়রা হয়ে কুয়াকাটা পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের প্রকল্প গ্রহণ করা হবে------রেলপথ মন্ত্রী
চলচ্চিত্র নির্মাণে সরকারী অনুদানে আরও স্বচ্ছতা ও পেশাদারিত্ব নিশ্চিত করা হবে---তথ্য প্রতিমন্ত্রী
সর্বশেষ সংবাদ