ঢাকা মঙ্গলবার, মার্চ ৫, ২০২৪
পবিত্র-শবে মিরাজের গুরুত্ব ও তাৎপর্য
  • আলহাজ্ব মাওলানা দাউদ খান
  • ২০২৪-০২-০৭ ১৬:২০:৩৫

শবে মিরাজ এই শব্দটি ফার্সি শব্দ। শব মানে রাত্রি আর মিরাজ শব্দের অর্থ হলো উর্ধ্ব গগনে আরোহন করা। শব-এ-মিরাজ বিশ্বের মুসলমানদের জন্য একটি পবিত্র গৌরবোজ্জ্বল ও সম্মানিত রাত। রজব মাসে ২৭ তারিখে মহানবী হযরত মোহাম্মদ(সাঃ) মদীনায় বিবি উম্মে হানির ঘর থেকে রাত্রে জীবরাঈলের সঙ্গে বোরাকে আরোহন করিয়া প্রথমে রায়তুল মোকাদ্দাস তাশরীফ নেন। তথা হইতে উর্দ্ধে উঠিয়া ক্রমান্বয়ে সাত আসমান, বেহেস্ত, দোযখ প্রভৃতি পরিদর্শন করেন। 

(১) এই সময় হুজুর(সাঃ) বলেন আমি মিরাজের রাত্রে একটি মেয়ে লোককে তাহার জিহবার সহিত ঝুলানো অবস্থায় দেখিয়া জীবরাঈল (আঃ) কে জিজ্ঞাসা করিলাম এই মেয়ে লোকটির অবস্থা কি? জীবরাঈল (আঃ) উত্তর করিলেন- এই মেয়ে লোকটি তাহার জিহবা দ্বারা অর্থাৎ কথা দ্বারা তাহার স্বামী ও প্রতিবেশীকে কষ্ট দিয়াছে। 

(২) আর একটি মেয়ে লোক তাহার স্তনের সঙ্গে ঝুলানো দেখিয়া জিজ্ঞাসা করিয়া জানিতে পারিলাম যে, সে তাহার স্বামীর বিনা আদেশে অপরকে স্তন্য দান করিয়াছে অর্থাৎ অন্য শিশুকে দুধ পান করাইয়াছে। 

৩। অপর একটি মেয়ে লোককে তাহার পদ দ্বয়ের সঙ্গে ঝুলানো দেখিয়া জিজ্ঞাসা করিয়া জানিতে পারিলাম যে, সে তাহার স্বামীর হুকুম ছাড়াই বাইরে চলাফেরা করিয়াছে। 

৪। আর এক জন মেয়ে লোককে হস্তদ্বয়ের সহিত ঝুলানো দেখিয়া জিজ্ঞাসা করিয়া জানিতে পারিলাম যে, সে তাহার স্বামীর অর্থ সম্পদ নষ্ট করিয়াছে।(আল হাদিস- মাজালেছুল আবরার।) 

আরও কিছু অলৌকিক ঘটনাবলী দেখার পর ভ্রমন করেন। এই সময় তাহার সঙ্গে এক লাখ চল্লিশ হাজার পয়গম্বরের রুহের সাক্ষাত ঘটে। তিনি তাহাদের নামাজের জামাতে ইমামতি করেন। পয়গম্বরদের সাথে তাহার বহু আলাপ আলোচনা হয়। ইহা ছাড়া আল্লাহর প্রধান ও অন্যান্য সকল ফেরেস্তা তাহার সহিত সাক্ষাত করিয়া তাহাকে সালাম সম্ভাষন জ্ঞাপন করেন। এই রাতেই রাসূলে করিম(সাঃ) আল্লাহর তরফ হইতে তাহার উম্মতের জন্য পাঁচ ওয়াক্ত ফরজ নামাজ আদায় করার জন্য লইয়া আসেন। জীবরাঈল(আঃ) সহ নবী করিম(সাঃ) উর্দ্ধে সেদরাতুল মুনতাহা নামক স্থানে যখন উপনীত হন তখন জীবরাঈল ও বোরাক আরও উর্দ্ধ উঠিতে অক্ষমতা প্রকাশ করিয়া বলেন যে, আমাদের শক্তি, ক্ষমতা এই খানেই শেষ। আমরা ইহার উপরে আর এক চুল পরিমানও উঠতে সক্ষম নহি। এই সময় আল্লাহ পাক তাহার হাবিবকে নিজের সকাশে নিবার জন্য বাহন স্বরূপ রাফরাফ নামক এক অপূর্ব সৃষ্টি পাঠান। আল্লাহর নবী সেই রাফরাফে সওয়ার হইয়া মাহবুবে মাওলার দরবারে উপনীত হন। এরপর মহানবী(সাঃ) আরশের দিকে এগিয়ে যান। তিনি আরশ থেকে দুই ধনুক কিংবা তার চেয়েও নিকটে পৌঁছান। তিনি দিব্য দৃষ্টিতে আল্লাহ তায়ালার নূর প্রত্যক্ষ করেন। এ সময় তিনি এমন অবস্থা অনুভব করেন যা প্রকাশের অতীত। আল্লাহ তায়ালা তার কুদরতির এক হাত মহানবী(সাঃ) এর বুকে ও অপর হাত তার কাঁধে রাখেন। এরপর তার সম্পর্কে কথোপকথোন হয়। প্রথমে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন উম্মতে মোহাম্মাদীর উপর পঞ্চাশ(৫০) ওয়াক্ত নামাজ আদায়ের নির্দেশ দেন। মহানবী আল্লাহর দেদার থেকে ফেরার পথে হযরতে মূসা (আঃ) এর সঙ্গে সাক্ষাৎ হলে তিনি বললেন, আপনার উম্মতেরা দৈনিক পঞ্চাশ(৫০) ওয়াক্ত নামাজ আদায় করতে অক্ষম। আপনি দরবারে যেয়ে সুপারিশ করে কমিয়ে আনেন। এই ভাবে কয়েক দফা কমানোর পর শেষ পর্যন্ত ৫ ওয়াক্ত সিদ্ধান্ত হয়। আমরা উপরে উল্লেখ করেছি মিরাজ সম্পর্কিত উপরোক্ত ভাষ্য হচ্ছে দারমিং হামের তারিখে ইসলাম গ্রন্থ প্রণেতা মাওলানা আশেকে এলাহীর মতে যখন মিরাজ সংগঠিত হয় তখন রাসূল পাক (সাঃ) এর বয়স ৫১ বছর ৮ মাস ২০ দিন। 

 মহান আল্লাহ রাসূল আলামিন পবিত্র কুরআনের সূরা বানী ইসরাঈলের প্রথম আয়াতেই মিরাজের ঘটনায় প্রতি ইঙ্গিত করেছেন। (অর্থ) পবিত্র সেই সত্তা যিনি তার বান্দাকে রাতের সামান্যতম অংশে মসজিদে হারাম থেকে মসজিদে আল আকসা পর্যন্ত ভ্রমন করিয়েছেন। যার চর্তুপার্শ্বে আমি বরকত দান করেছি। এজন্য যে আমি তাকে আমার নির্দেশ সমূহ হতে কতিপয় নির্দেশনা দেখাব। নিশ্চই তিনি সর্ব শ্রোতা ও সর্বদ্রষ্টা। 

হাদিস ঃ হযরত নবী করিম (সাঃ) এরশাদ করিয়াছেন। (অর্থ) নিশ্চই বেহেশতের মধ্যে রজব নামে একটা নহর আছে উহার পানি অতিশয় সাদা। যে ব্যক্তি রজব মাসের রোজা রাখিবে আল্লাহতায়ালা তাহাকে উহার পানি পান করাইবেন। সেই পানি মধুর চেয়ে মিষ্টি এবং বরফের চেয়ে শীতল এবং তিনি ইহাও বলিয়াছেন, যে ব্যক্তি রজব মাসে রোজা রাখিবে তাহাকে দোযখের আগুন জালাইবে না। আরও আল্লাহ রাসূল বলেছেন, এই রাতে যে এবাদত বন্দিগীতে কাটাবে, তাহার বিগত এক বৎসরের সওয়াব আমলনামায় লেখা হবে। আর ২৭ (সাতাশে) রজব যে একটা রোজা রাখবে অনুরূপ ভাবে তাহার আমল নামায় ১০০ (এক শত) বৎসরের রোজার সওয়াব লেখা যাবে। তাই সব মুসলমানের কর্তব্য ঐদিন মিলাদ মাহফিল, কুরআন খতম, লাখ কলেমা পড়ে মৃত ব্যক্তিদের রুহের উপর সওয়াব রেসানী করা, দান খয়রাত ও গরীব মিসকিনকে কাঙ্গালী ভোজ করানো। লেখক : আলহাজ্জ্ব মাওলানা মোঃ দাউদ খান, প্রতিষ্ঠাতা, মসজিদে খাজা বাবা ফরিদপুরী কমপ্লেক্স, সুলতানপুর, রাজবাড়ী।

 

সেবক হিসেবে জেলা প্রশাসকদের জনগণের জন্য কাজ করতে হবে-----স্পিকার ড. শিরীন শারমিন
ভাঙ্গা থেকে পায়রা হয়ে কুয়াকাটা পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের প্রকল্প গ্রহণ করা হবে------রেলপথ মন্ত্রী
চলচ্চিত্র নির্মাণে সরকারী অনুদানে আরও স্বচ্ছতা ও পেশাদারিত্ব নিশ্চিত করা হবে---তথ্য প্রতিমন্ত্রী
সর্বশেষ সংবাদ