ঢাকা বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪
“রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচম” শত বছরের ঐতিহ্যবাহী মিষ্টান্ন
  • মোঃ মকবুল হোসেন খান
  • ২০২৪-০৩-১৩ ১৬:১৯:২১

“রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচম” পদ্মা কন্যা রাজবাড়ী জেলার একটি ঐতিহ্যবাহ সুস্বাদু মিষ্টান্ন। বছরের পর বছর ধরে এর মোহনীয় সুগন্ধ, অতুলনীয়  আর বৈচিত্র্যে সকল শ্রেণির মানুষের রসনা বিলাসে অনন্য ভূমিকা রেখে চলেছে। ভারত থেকে আগত মারওয়ারি/আগরওয়ালরা রাজবাড়ীতে চমচমের উৎপাদন ও বিক্রির ক্ষেত্রে শীর্ষ ভূমিকা রাখেন। 

 শত বছর পূর্বে ভারত থেকে আগত লালমোহন তেওয়ারি প্রথমে লক্ষ্মীকোলে এবং পরবর্তীতে রাজবাড়ীর মিষ্টিপট্টি (বর্তমানে স্টেশন রোড) এলাকায় মিষ্টির দোকান ও কারখানা স্থাপন করে ক্ষীর চমচম তৈরি এবং বিক্রি শুরু করেন। রাজবাড়ীতে রেলওয়ে স্টেশন স্থাপনের পর থেকে তদানীন্তন সময়ে রাজবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন শতবর্ষী প্রাচীন কালিমন্দির এবং এর আশে-পাশে মারওয়ারি/আগরওয়ালদের বদান্যায় একাধিক মিষ্টির দোকান গড়ে উঠে। পরবর্তীতে স্থানীয় এবং দেশের অন্যান্য স্থান থেকে আগত মিষ্টি ব্যবসায়ীরা মিষ্টিপট্টিতে দোকান দিয়ে অন্যান্য মিষ্টির সাথে চমচমের উৎপাদন ও বিপণনে সফল হোন। মারওয়ারিদের পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত ময়রা/মিষ্টি ব্যবসায়ীরাও মিষ্টির দোকান দিয়ে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করেন। মিষ্টির দোকানের সুবাদে এলাকাটি মিষ্টিপট্টি নামে সমধিক পরিচিতি লাভ করে; যা বর্তমানে স্টেশন রোড নামে পরিচিত। মিষ্টিপট্টি এলাকার বিস্তৃতি ছিল রেলস্টেশন সংলগ্ন শতবর্ষী কালিমন্দির চত¦র হতে বর্তমান রূপালী ব্যাংক, প্রধান শাখা পর্যন্ত। বর্তমান রূপালী ব্যাংক প্রধান শাখা রাজবাড়ীর সাবেক পৌর মেয়র ও সাংসদ আক্কাছ আলী মিয়ার যে বিল্ডিংয়ে অবস্থিত সেই বিল্ডিংয়ে ১৯৬০ দশকে কিছুদিন শাহবাগ হোটেল ও রেস্টুরেন্ট নামে একটি হোটেল কিছুদিন চালু ছিল। বলাই বাহুল্য, মারওয়ারি/আগরওয়ালরা গুচ্ছাকারে বসবাস করত। তারা মিষ্টিপট্টির অদূরে তাদের বসবাসের আবাস গড়ে তোলে; যা মারওয়ারি পট্টি নামে এখনও পরিচিত। মারওয়ারি পট্টিতে শহরের একমাত্র ত্রিতল ভবন ছিল। যার মালিক ছিলেন রামদিয়ার নওয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। ভারত ভাগ হলে তিনি চলে যান এবং নবদ্বীপে স্থিত হন। সেই ত্রিতল ভবনে কাবলিওয়ালারা সুদের ব্যবসার ঘাটি করলে উক্ত ভবনটি “কাবলি বিল্ডিং” নামে পরিচিতি লাভ করে। এই মারওয়ারিরা সকালে কাককে না খাইয়ে প্রাতঃরাশ করতেন না। সে কারণে কাককে খাবার দেয়ার সুবাদে মারওয়ারি পট্টির বিশাল বটগাছটায় কাকদের ভীড় লেগে থাকতো। এই মারওয়ারি পট্টি কাঁয়্যে পট্টি নামেও পরিচিত। এর সুন্দর বর্ণনা দিয়েছেন লেখক ও গবেষক খালেদ সালাহউদ্দিন (জগলু) তাঁর লিখিত “স্মৃতির শহর রাজবাড়ী” ১ম খন্ডে (প্রকাশকাল অক্টোবর ২০১১)। রাজবাড়ীর সিনিয়র সিটিজেন এবং পুরাতন মিষ্টি ব্যবসায়ীদের ভাষ্যমতে, রাজবাড়ীতে ক্ষীর চমচমের প্রবর্তক লালমোহন তেওয়ারির মিষ্টির দোকানে ও কারখানায় কাজ করার সুবাদে অনেকেই ক্ষীর চমচম তৈরিতে পারদর্শী হয়ে উঠে। ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ উপনিবেশ থেকে পাকিস্তান ও ভারতস্বাধীন হওয়ার প্রাক্কালে লালমোহন তেওয়ারি পরিবার দেশ ত্যাগ করে ভারতে চলে যাওয়ার পর লাল মোহন তেওয়ারির কর্মচারী নিতাই দাস(পরুশরাম নামে লালমোহন তেওয়ারির এক কারিগরের নামও পাওয়া যায়) এবং তাঁর সমসাময়িক উপেন্দ্র নাথ ঘোষ, মনিন্দ্রনাথ ঘোষ, অভিমান্য কুন্ডু(বেগে কুন্ডু) মিষ্টিপট্টি এলাকায় এবং গোলাম কাদের মনি ও মাহতাব খান রেলগেট এলাকায় মিষ্টির দোকান/কারখানাতে অন্যান্য মিষ্টির সাথে ক্ষীর চমচম তৈরি ও বিক্রি অব্যাহত রাখেন। 

 পরবর্তীতে রাজবাড়ী রেল স্টেশন সংলগ্ন শতবর্ষী প্রাচীন কালিমন্দির চত্বরে ১৯৫০ দশকে ভারত থেকে আগত রামজস হালাইকার নামের এক মিষ্টি ব্যবসায়ী মিষ্টির দোকান দিয়ে অন্যান্য মিষ্টির সাথে চমচম তৈরি ও বিক্রি শুরু করেন। পরবর্তীতে রামজস হালাইকার ভারতে চলে গেলে তার কর্মচারী সুবল কুন্ডু একই স্থানে মিষ্টির ব্যবসা পরিচালনা শুরু করেন এবং তিনি পাকিস্তান আমলে ভারতের মালদহে চলে গেলে তার ভাই নিরোদ কুন্ডু একই স্থানে ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত মিষ্টির ব্যবসা করেন। ১৯৫৬-৫৭ সালের দিকে কালিবাড়ি সংলগ্ন মিষ্টির দোকানে রাজবাড়ীর এক ধনাঢ্য ব্যক্তি লোকনাথ সাহার পুত্র নির্মল কুমার সাহা (যিনি ভাদু সাহা নামে সমধিক পরিচিত) ক্ষীর চমচম তৈরির কাজ শিখেন এবং তিনি নিজেই ১৯৬৩ সালে শহরের পানবাজারে জনৈক নিত্যলাল সাহার নিকট হতে দোকান ভাড়া নিয়ে সেখানে অন্যান্য মিষ্টির সাথে ক্ষীর চমচম তৈরি ও বিক্রি শুরু করেন। তাঁর মৃত্যুর পর পূত্র পরিমল কুমার সাহা এ ব্যবসা সফলভাবে চালু রেখেছেন। ১৯৫০ দশকে পাবনা থেকে আগত রমেন কুন্ডুও মিষ্টিপট্টিতে (যেখানে বর্তমানে আকুয়ার বিল্ডিং অবস্থিত) তার মিষ্টির দোকানেও অন্যান্য মিষ্টির সাথে ক্ষীর চমচম তৈরি ও বিক্রি করেছেন।

 ১৯৫৯ সাল এবং তৎপরর্তী সময় হতে শহরের ঝালাইপট্টিতে রণজিৎ কুমার পাল, পান বাজারে অমূল্য পাল, ঘোষপট্টিতে আশানন্দ ঘোষ, রেলগেট এলাকায় হোসেন আলী [তৎকালীন মহকুমার প্রশাসকের কার্যালয় (লাল এক ভবন) এবং মুন্সেফ কোর্ট (সাদা এক তলা ভবন) সংলগ্ন সাব-রেজিস্ট্রারের অফিসের (লাল এক তলা ভবন) সামনে হোসেন আলীসহ কয়েকজনের মিষ্টির দোকান ছিল) এবং দুধবাজারে আব্দুল হামিদ মন্ডল তাঁদের মিষ্টির দোকান/কারখানায় অন্যান্য মিষ্টির সাথে ক্ষীর চমচম তৈরি ও বিক্রি শুরু করেন। ১৯৬৩-৬৪ সালের দিকে ফলবাজারে চিত্ত রঞ্জন সাহা তার মিষ্টির দোকানে অন্যান্য মিষ্টির সাথে চমচম বিক্রি শুরু করেন। পরবর্তীতে ১৯৭০ সালের দিকে রেলগেট এলাকায় মোতালেব মোল্লা এবং বাংলাদেশ স¦াধীনতা পরবর্তী সময়ে ১৯৭৬ সালের দিকে মিষ্টিপট্টি সংলগ্ন কলেজ রোডে আব্দুর রব মোল্লা মিষ্টির দোকান ও কারখানা দিয়ে সেখানে অন্যান্য মিষ্টির সাথে ক্ষীর চমচম তৈরি ও বিক্রি শুরু করেন। লালমোহন তেওয়ারি এবং তার পরবর্তীতে ক্ষীর চমচম তৈরি ও বিপণনে হিন্দু মিষ্টি ব্যবসায়ীগণের পাশাপাশি মুসলিম ব্যবসায়ীদের মধ্যে গোলাম কাদের মনি, মাহতাব খান, হোসেন আলী, আব্দুল হামিদ মন্ডল, মাহতাব মোল্লা ও আব্দুর রব মোল্লা বিশেষ ভূমিকা রাখেন। 

 উল্লেখ করা যেতে পারে, শত বছর পূর্বে রাজবাড়ীতে ক্ষীর চমচমের উৎপাদন ও বিপণনের গোড়াপত্তনকারী লালমোহন তেওয়ারি পরিবার ১৯৪৭ সালে দেশ ত্যাগের পর লালমোহন তেওয়ারির কর্মচারী নিতাই দাস প্রথমে মিষ্টিপট্টি এলাকাতেই লালমোহন তেওয়ারি মিষ্টান্ন ভান্ডার নামে দীর্ঘদিন ক্ষীর চমচম উৎপাদন ও বিক্রি অব্যাহত রাখেন। পরবর্তীতে ১৯৭৯-৮০ সালের দিকে মিষ্টিপট্টিতে (বর্তমানে স্টেশন রোড) সুভাষ ভৌমিক ও তার ভাই প্রদীপ ভৌমিক এবং তৎপরবর্তীতে ২০০৩ সাল থেকে তাদের ছোট ভাই সুদিপ ভৌমিক “আদি লালমোহন তেওয়ারি মিষ্টান্ন ভান্ডার” নামে মিষ্টির দোকানটিতে সফলভাবে অন্যান্য মিষ্টির সাথে “রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচম” তৈরি ও বিপণন করে আসছেন।

 কার্যত শত বছর পূর্ব থেকে রাজবাড়ীর মিষ্টিপট্টির লালমোহন তেওয়ারি, রামজস হালাইকার, পরবর্তীতে নিতাই সাহা, উপেন্দ্র নাথ ঘোষ, মনিন্দ্রনাথ ঘোষ, অভিমান্যু কুন্ডু(বেগে কুন্ডু), গোলাম কাদের মনি, মাহতাব খান, সুবল কুন্ডু, হোসেন আলী, রণজিৎ কুমার পাল, অমূল্য পাল, আশানন্দ ঘোষ, আব্দুল হামিদ মন্ডল, নির্মল কুমার সাহা(ভাদু সাহা), নিরোদ কুন্ডু, মাহতাব মোল্লা, আব্দুর রব মোল্লা, সুভাষ ভৌমিক এবং শংকর কুমার সাহার মিষ্টির দোকান/কারখানা হতে রাজবাড়ীতে শত শত ময়রা (মিষ্টি তৈরির কারিগর) সৃষ্টি হয় এবং তারা ক্ষীর চমচম উৎপাদনকে রাজবাড়ীসহ সারাদেশে জনপ্রিয় করে তোলেন। বর্তমানে রাজবাড়ী জেলা শহরের একাধিক মিষ্টির দোকান ও কারখানাসহ জেলার সকল উপজেলাতেই ক্ষীর চমচম তৈরি ও বিক্রয় হচ্ছে। এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, রাজবাড়ীতে শত বছর পূর্বে ভারত থেকে আগত লালমোহন তেওয়ারির প্রস্তুতকৃত ক্ষীর চমচমকে ১৯৬৩ সালের পর শিল্পের রূপদান করেন নির্মল কুমার সাহা(ভাদু সাহা)। পরবর্তীতে নির্মল কুমার সাহার আরেক ভাই শংকর কুমার সাহা শহরের টিনপট্টিতে ১৯৭৮ সাল থেকে  মিষ্টির দোকান দিয়ে ক্ষীর চমচম তৈরি ও বিক্রি শুরু করেন।

স্মরণ করা যেতে পারে, পদ্মা ও যমুনার মিলনস্থলের অদূরে অবস্থিত এক সময়ের Gateway of Bengal নামে পরিচিত গোয়ালন্দ মহকুমা কালের বিবর্তনে আজকের পদ্মা  কন্যা রাজবাড়ী জেলা। প্রায় ৩৯ বছর আগে বৃহত্তর ফরিদপুর জেলা ভেঙে অতীতের গোয়ালন্দ মহকুমাই আজকের রাজবাড়ী জেলা। রাজবাড়ী যে কোন রাজার বাড়ীর নামানুসারে নামকরণ করা হয়েছে এ বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। তবে কখন ও কোন রাজার নামানুসারে রাজবাড়ী নামটি এসেছে তার সুনির্দিষ্ট ঐতিহাসিক কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। রাজবাড়ী জেলা ব্র্যান্ড বুক “পদ্মা কন্যা রাজবাড়ী”তে বাংলার রেল ভ্রমণ পুস্তকের (এল.এন. মিশ্র প্রকাশিত ইস্ট বেঙ্গল রেলওয়ে ক্যালকাটা ১৯৩৫) এর উদ্ধৃতি দিয়ে উল্লেখ করা হয়েছে, ১৬৬৬ খ্রিস্টাব্দে শায়েস্তা খান ঢাকায় সুবেদার নিযুক্ত হয়ে আসেন। এ সময়ে এ অঞ্চলে পতুর্গীজ জলদস্যুদের দমনের জন্য তিনি সংগ্রাম শাহকে নাওয়ারা প্রধান করে পাঠান। তিনি বাহিবহতে স্থায়ীভাবে বসবাস করতেন এবং লালগোলা নামক স্থানে দুর্গ স্থাপন করেন। এই লালগোলা দুর্গই রাজবাড়ী শহরের কয়েক কিলোমিটার উত্তরে বর্তমান লালগোলা গ্রাম নামে পরিচিত। সংগ্রাম শাহ ও তাঁর পরিবার পরবর্তীতে বানিবহের নাওয়ারা চৌধুরী হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেন। রাজা সংগ্রাম শাহের রাজ দরবার বা রাজকাচারী ও প্রধান নিয়ন্ত্রণকারী অফিস বর্তমান রাজবাড়ী এলাকাকে কাগজে কলমে রাজবাড়ী লিখতেন(লোকমুখে প্রচলিত)। এল.এন. মিশ্রের প্রকাশিত পুস্তকের শেষের পাতায় রেলওয়ে স্টেশন হিসেবে রাজবাড়ী নামটি লিখিত পাওয়া যায় মর্মে রাজবাড়ী জেলা ব্র্যান্ড বুক “পদ¥া কন্যা রাজবাড়ী”তে উল্লেখ করা হয়েছে। উল্লেখ্য যে, রাজবাড়ী রেল স্টেশনটি ১৮৯০ সালে স্থাপিত হয়। ঐতিহাসিক আনন্দনাথ রায় ফরিদপুরের ইতিহাস পুস্তকে বানিবহের বর্ণনায় লিখেছেন-নাওয়ারা চৌধুরীগণ পাঁচথুপি থেকে প্রায় ৩০০ বছর পূর্বে বানিবহে এসে বসবাস শুরু করেন। বানিবহ তখন ছিল জরাকীর্ণ স্থান। বিদ্যাবাগিশপাড়া, আচার্যপাড়া, ভট্টাচার্যপাড়া, শেনহাটিপাড়া, বসুপাড়া, বেনেপাড়া, নুনেপাড়া নিয়ে ছিল বানিবহ এলাকা। নাওয়ারা চৌধুরীগণের বাড়ী স¦দেশীগণের নিকট রাজবাড়ী নামে অভিহিত ছিল। মতান্তরে রাজা সূর্য কুমারের নামানুসারে রাজবাড়ীর নামকরণ হয়। রাজা সূর্য কুমারের পিতামহ প্রভুরাম নবাব সিরাজ-উদ-দৌলার রাজকর্মচারী থাকাকালীন কোন কারণে ইংরেজদের বিরাগভাজন হলে পলাশীর যুদ্ধের পর লক্ষ্মীকোলে এসে আত্মগোপন করেন। পরে তাঁর পুত্র দ্বিগেন্দ্র প্রসাদ এ অঞ্চলে জমিদারী গড়ে তোলেন। তাঁরই পুত্র রাজা সূর্য কুমার ১৮৮৫ সালে জনহিতকর কাজের জন্য ‘রাজা’ উপাধি প্রাপ্ত হন। রাজবাড়ী রেলস্টেশনের নামকরণ করা হয় ১৮৯০ সালে। বিভিন্ন তথ্য হতে জানা যায় যে, রাজবাড়ী রেলস্টেশনের নামকরণ রাজা সূর্য কুমারের নামানুসারে করার দাবী তোলা হলে বানিবহের জমিদার প্রবল আপত্তি তোলেন। উল্লেখ্য, বর্তমানে যে স্থানটিতে রাজবাড়ী রেল স্টেশন অবস্থিত উক্ত জমির মালিকানা ছিল বানিবহের জমিদারগণের। তাঁদের প্রতিবাদের কারণেই স্টেশনের নাম রাজবাড়ীই থেকে যায়। এ সকল বিশ্লেষণ থেকে ধারণা করা হয় যে, রাজবাড়ী নামটি বহু পূর্ব থেকেই প্রচলিত ছিল। এলাকার নাওয়ারা প্রধান, জমিদার, প্রতিপত্তিশালী ব্যক্তিগণ রাজা অভিহিত হতেন। তবে রাজা সূর্য কুমার ও তাঁর পূর্ব পুরুষগণের লক্ষ্মীকোলের বাড়িটি লোকমুখে রাজার বাড়ি বলে সমধিক পরিচিত ছিল। কালের বিবর্তনে ১৮৭১ সালের ২৩শে মার্চ গোয়ালন্দ ঘাট থানা ফরিদপুর জেলার অধীন গোয়ালন্দ মহকুমা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে এবং মহকুমা প্রশাসকের কার্যালয় রাজবাড়ী সদরের উড়াকান্দা হাটের প্রায় ১০ কিঃ মিঃ উত্তর-পূর্বে গোয়ালন্দের তেনাপচায় স্থাপিত হয়। কিন্তু পদ্মা নদীর ক্রমাগত ভাঙনে বিলীন হয়ে মহকুমা সদর দফতর গোয়ালন্দের তেনাপচা থেকে বর্তমান শহরের সজ্জনকান্দায় (বর্তমানে সেখানে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় অবস্থিত) স্থানান্তরিত হয়। মহকুমা প্রশাসকের কার্যালয় রাজবাড়ীর সজ্জনকান্দায় স্থানান্তরিত হওয়ার পর থেকেই গোয়ালন্দ মহকুমা নামে এর প্রশাসনিক ও দাপ্তরিক কার্যক্রম রাজবাড়ী থেকেই পরিচালিত হতে শুরু করে। প্রণিধানযোগ্য যে, তদানীন্তন এসডিও অফিস, এসডিও বাংলো, কোর্ট ও থানার জমি রাজবাড়ীর প্রথিতযশা আইনজীবী ও নারী জাগরণের নেত্রী অ্যাডভোকেট দেবাহুতি চক্রবর্তীর প্রপিতামহদের নিকট হতে সংগৃহীত হয়। ১৯৮৪ সালের ১লা মার্চ গোয়ালন্দ মহকুমা জেলায় উন্নীত হয় রাজবাড়ী নামেই। স্মরণ করা যেতে পারে, গোয়ালন্দ মহকুমার শেষ মহকুমা প্রশাসক ছিলেন নূরুল মোমেন এবং রাজবাড়ী প্রথম জেলা প্রশাসক ছিলেন মোঃ সহিদ উদ্দিন আহমেদ। বর্তমানে রাজবাড়ী সদর, গোয়ালন্দ, পাংশা, বালিয়াকান্দি ও কালুখালী উপজেলা নিয়ে গঠিত এ জেলা। ৫টি উপজেলা, ৩টি পৌরসভা ও ৪২টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত রাজবাড়ী জেলা বাংলাদেশের ঠিক মাঝখানে অবস্থিত।   

 ব্রিটিশ শাসনামলের পূর্ব থেকেই ভৌগলিক অবস্থানগত কারণে নদীপথে যোগাযোগের ক্ষেত্রে গোয়ালন্দের গুরুত¦ ছিল উল্লেখযোগ্য। পদ¥া নদীর পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত ঢাকাসহ যে কোনো স্থানের মানুষের জন্য সে সময়ে নদীপথে গোয়ালন্দ ছাড়া কলকাতা যাওয়ার সহজ কোন পথ ছিল না। কলকাতা তখন অবিভক্ত বাংলার রাজধানী। গোয়ালন্দ-নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ-গোয়ালন্দ-ডিব্রুগড়(আসাম) ছাড়াও অন্য অনেক পথে স্টিমার গোয়ালন্দ থেকে ফরিদপুর, বরিশাল এবং খুলনা হয়ে কলকাতা যাতায়াত করা যেত। নদীপথের সাথে রেলপথের সংযোগ ¯’াপনের জন্য তদানীন্তন ব্রিটিশ সরকার ঢাকা হতে কলকাতা পর্যন্ত রেল যোগাযোগের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে প্রথমে কুষ্টিয়া থেকে গোয়ালন্দ পর্যন্ত রেল লাইন স্থাপন করে এবং ১৮৭১ সালের ১লা জানুয়ারী গোয়ালন্দ ঘাট নামে রেলওয়ে স্টেশনের উদ্বোধন করা হয়। এই রেললাইন পরবর্তীতে কলকাতা পর্যন্ত সম্প্রসারিত হয়। ১৮৯০ সালে রাজবাড়ী রেলস্টেশন স্থাপিত হয়। রাজবাড়ী শহরের ভিত্তি গড়ে উঠায় ১৯১৩ সালে  ইউনিয়ন বোর্ড এবং ১৯২৩ সালে তা মিউনিসিপ্যালিটিতে পরিণত হয়। ঢাকা থেকে নদীপথে গোয়ালন্দ পর্যন্ত স্টিমারে এবং গোয়ালন্দ থেকে রাজবাড়ী রেলস্টেশন হয়ে কলকাতা পর্যন্ত রেলপথে প্রতিদিন তিনটি মেইল ট্রেন চালু ছিল। ১৯৬৫ সালের ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের পর কলকাতা-গোয়ালন্দ সরাসরি রেললাইন যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। তবে এখন প্রতিবছর ফেব্রুয়ারি মাসের ১৪/১৫ তারিখে প্রায় ২,৫০০ ওরশযাত্রী ও ভক্তবৃন্দ নিয়ে ২২-২৫টি রেলের বগি সৈয়দ শাহ মোর্শেদ আলী আল কাদরী এঁর ওরশ উদযাপন উপলক্ষ্যে রাজবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন হতে স্পেশাল ট্রেন ভারতের মেদিনীপুর গমনাগমন করে। বলাই বাহুল্য, নদী পথে যোগাযোগের পাশাপাশি রেল যোগাযোগ স্থাপিত হওয়ার পর পূর্ববঙ্গের যোগাযোগের ক্ষেত্রে গোয়ালন্দ তথা রাজবাড়ীর অবস্থানগত গুরুত¦ আরও বেড়ে যায়।National Institute of Public Administration তে  গত ২৯/৫/১৯৬৭ হতে ০১/৬/১৯৬৭ পর্যন্ত Problems of Municipal Administration শীর্ষক সম্মেলনে ঐ সময়ের মিউনিসিপ্যালসমূহের বিভিন্ন তথ্য/উপাত্ত উপস্থাপিত হয়। যার সংকলন National Institute of Public Administration, Dhaka হতে জুন ১৯৬৮ তে প্রকাশিত হয়। উক্ত পুস্তক থেকে জানা যায়, ১৯৫১ সালে রাজবাড়ী মিউনিসিপ্যালিটির জনসংখ্যা ছিল ১১,৩৯৮ এবং ১৯৬১ সালে তা বেড়ে দাড়ায় ১৬,০৪৪ । এই পরিসংখ্যান প্রমাণ করে যে, রেলকেন্দ্রিক রাজবাড়ীতে তখন বিভিন্ন স্থান থেকে লোকজন এসে তাদের জীবীকার তাগিদে ব্যবসা বাণিজ্য, রেলওয়ে চাকরিসহ অন্যান্য পেশায় জড়িয়ে পড়ে। বলাই বাহুল্য, রেল যোগাযোগের সুবিধায় রাজবাড়ী একটি ব্যস্ততম শহরে পরিণত হয়। রাজবাড়ী মিউনিসিপ্যালিটি এলাকাতে বিভিন্ন স্থান হতে লোকজন এসে বসতি শুরু করলে তখন জনসংখ্যাও বাড়তে শুরু করে। নদী কিংবা রেলপথে যাতায়াতকালে অধিকাংশ যাত্রী তাদের নিজের এবং আত্মীয়-স্বজনদের জন্য রাজবাড়ীর ঐতিহ্যবাহী ক্ষীর চমচম নিয়ে যেতেন। ঐ সময়ে রাজবাড়ী ঢাকার সাথে যত না সম্পৃক্ত ছিল, কোলকাতার সাথে সম্পৃক্ত ছিল অনেক বেশী। গোয়ালন্দ হতে কোলকাতা রেল যোগাযোগের কারণে তখন কোলকাতার বিভিন্ন পরিবারের অনুষ্ঠানে রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচম পরিবেশন করা হতো। এ বিষয়টি জেলার অনেক সিনিয়র সিটিজেন এখনও সাক্ষী হয়ে আছেন। উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, ১৮৭১ সালে রাজবাড়ী জেলায় রেল স্থাপনের পর থেকে রাজবাড়ীর ক্রীড়াঙ্গনও ভিন্ন মাত্রা লাভ করে। তৎকালীন সময়ে কোলকাতার মোহনবাগান ফুটবল টিম গঠনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন রাজবাড়ীর কৃতি সন্তান শিবদাস এবং বিজয় দাস। কোলকাতা মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের অন্যতম সংগঠক ছিলেন পদমদীর মীর মোহাম¥দ আলী। ১৯৩৫ সালে খানখানাপুরের জোতদার রাম কানাই কুন্ডুর পৃষ্ঠপোষকতায় রাম কানাই শীল্ড ফুটবল প্রতিযোগিতা শুরু হয়। এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করত কোলকাতার নামী দামী ফুটবল টিম। বেলগাছিতে আলিমুজ্জামান শীল্ড ফুটবল প্রতিযোগিতা হত। ফুটবলের যাদুকর বলে পরিচিত সামাদ ১৯৩৬ সালের দিকে রাজবাড়ী শহিদ খুশী রেলওয়ে মাঠে মোহামেডানের পক্ষে খেলতে আসতেন। রাজবাড়ীর ক্রীড়া উৎসব উপলক্ষে ২০০৩ সালে জেলা ক্রীড়া সংস্থা, রাজবাড়ী কর্তৃক প্রকাশিত স্মরণিকা এবং ২০১৩ সালে রাজবাড়ী পাবলিক লাইব্রেরি শতবর্ষ উৎসব উপলক্ষে প্রকাশিত স¥রণিকায় এ সব তথ্য পাওয়া যায়।

 পূর্বেই উল্লেখ করা হয়েছে-শতবর্ষ পূর্ব থেকেই অব্যাহতভাবে রাজবাড়ীতে ক্ষীর চমচম তৈরি ও বিক্রি হয়ে আসছে। শত বছর পূর্বে ভারত থেকে আগত লালমোহন তেওয়ারি নামের এক মিষ্টি ব্যবসায়ী রাজবাড়ীতে ক্ষীর চমচম তৈরি ও বিপণন শুরু করেন। 

 ইতিহাসবিদ প্রফেসর মতিয়র রহমান লিখিত এবং ২০০০ সালে প্রথম প্রকাশিত ও ২০১১ সালে তৃতীয় সংস্করণকৃত “রাজবাড়ী জেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্য” নামক বইটির ত্রয়োদশ অধ্যায়ে অর্থনীতির ক্রমধারা অংশের ৪৮১ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে- “শত বছর পূর্বে পশ্চিম থেকে আগত একজন লাল মোহন তেওয়ারি যে চমচম প্রস্তুত করা শুরু করেছিলেন তা আজ রাজবাড়ীর ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে।” একই বইয়ের ৪৭৮ ও ৪৭৯ নং পৃষ্ঠায় তিনি উল্লেখ করেছেন- “রাজবাড়ী জেলার চরাঞ্চলসহ বিপুল পরিমাণ বিরাণভূমি গবাদি পশু পালনের উপযুক্ত থাকায় প্রচুর দুগ্ধ উৎপাদন হত। রাজবাড়ী দুগ্ধজাত মিষ্টি চমচমের খ্যাতি রয়েছে সারাদেশে। ১৯১০ সালের তথ্যে দেখা যায় ১৬,০৪৪ জন দুগ্ধ উৎপাদন করতো এবং পরিমান ছিল ৫০৯টন।” 

 লেখক ও গবেষক খালেদ সালাহউদ্দিন(জগলু) তাঁর “স¥ৃতির শহর রাজবাড়ী” পুস্তকের ২য় খন্ডের ৮৪ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেছেন- “রাজবাড়ী বাজার এলাকায় লক্ষ্মীকোলের রাজার সম্পত্তি না থাকায় তিনি লক্ষ্মীকোলে বাজার স্থাপনে উদ্যোগ নেন। লক্ষ্মীকোলে লোন কোম্পানি, পোস্ট অফিস ছাড়াও কলকাতা থেকে উড়িষ্যাবাসী ময়রা লালমোহন তেওয়ারিকে এনে লক্ষ্মীকোলে দোকান করে দেন। LMT এর চমচমের খ্যাতি অদ্যাবধি বিস্মৃত হয়নি।" এতে স্পষ্টতই প্রমাণিত হয় যে, লালমোহন তেওয়ারিই রাজবাড়ীতে সর্বপ্রথম চমচমের উৎপাদন ও বিপণন শুরু করেন। লেখক ও গবেষক খালেদ সালাহউদ্দিন(জগলু) এর পুস্তকের তথ্যমতে লক্ষ্মীকোলের রাজা সূর্য কুমার ১৮৮৫ সাল বা সমসাময়িক সময়ে লালমোহন তেওয়ারিকে লক্ষ্মীকোলে এনে থাকেন তাহলে সে হিসেবে চমচম তৈরির সময়কালের দৈর্ঘ্য দাড়ায় প্রায় ১৪০ বছর। অপরদিকে, ইতিহাসবিদ প্রফেসর মতিয়র রহমান লিখিত "রাজবাড়ী জেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্য" নামক বইটির তথ্যমতে ১৯১০ সালে রাজবাড়ীতে চমচমের উৎপাদন ও বিপণন বিদ্যমান ছিল। সে বিবেচনায় রাজবাড়ীতে চমচম তৈরির সময়কালের দৈর্ঘ্য দাঁড়ায় প্রায় ১২৫ বছর। মতান্তরে এ সময়কাল কয়েক বছর কম/বেশী হতে পারে। তবে এটি যে শত বছর পূর্বের ঐতিহ্যবাহী মিষ্টান্ন তা নিশ্চিত করেই বলা যায়। রাজবাড়ী জেলা প্রশাসন থেকে প্রকাশিত রাজবাড়ী জেলা ব্র্যান্ড বুক ‘পদ¥া কন্যা রাজবাড়ী’ এর ১২০ নম¦র পৃষ্ঠায় ঞৎধফরঃরড়হধষ ঝবিবঃ হিসেবে চমচমের উল্লেখ আছে। 

 শুরুতে মারওয়ারি/আগরওয়ালরা ক্ষীর চমচমের উৎপাদন ও বিপণনের ক্ষেত্রে ভূমিকা রেখেছেন; যা মারওয়ারিদের দেশত্যাগের পরে পরবর্তী মিষ্টি ব্যবসায়ীগণ অব্যাহত রাখেন। তবে রাজবাড়ীতে লালমোহন তেওয়ারি পরবর্তী সময়ে ক্ষীর চমচমের পাইওনিয়ার হিসেবে রামজস হালাইকার, নিতাই দাস, উপেন্দ্রনাথ ঘোষ, গোলাম কাদের মনি, সুবল কুন্ডু ভাতৃদ্বয়, নির্মল কুমার সাহা(ভাদু সাহা) ভাতৃদ্বয়, হোসেন আলী, আব্দুল হামিদ মন্ডল, আব্দুর রব মোল্লা এবং সুভাষ ভৌমিক ভাতৃত্রয়ের নাম চলে আসে সবার আগে। এরা শত বছর পূর্বে ভারত থেকে আগত লালমোহন তেওয়ারির প্রস্তুতকৃত ক্ষীর চমচমকে রাজবাড়ীর ঐতিহ্যে রূপদান করেছেন। রাজবাড়ীতে ক্ষীর চমচমের উৎপাদন, সম্প্রসারণ এবং বিপণনে তাদের অবদান স্মরণ করার মত। “রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচম” স্থানীয়দের পাশাপাশি ব্যাপক পরিচিত সারাদেশে। বিশেষ করে রাজবাড়ী জেলায় কেউ আসলে নিজে স¦াদ নেয়ার পাশাপাশি বাড়ি ফেরার সময় ক্ষীর চমচম নিয়ে যান। জেলার সরকারী, বেসরকারী সব অনুষ্ঠানে এই ক্ষীর চমচম প্রাধান্য পায়। এমনকি দূর-দূরান্তে অতিথির জন্য পাঠানো হয়। এ ছাড়া প্রবাসী এবং কোন কোন মিষ্টি ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে সরাসরি ইউরোপ, আমেরিকা, মধ্যপ্রাচ্য ও এশিয়ার অনেক দেশে যায়। দিনে দিনে এর চাহিদা ব্যাপক হারে বেড়েই চলেছে। রাজবাড়ী শহরের পুরাতন মিষ্টি ব্যবসায়ী এবং ঐতিহাসিক তথ্যমতে রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচম ব্রিটিশ শাসনামল থেকে প্রথমে লক্ষ্মীকোল এবং পরবর্তীতে রাজবাড়ী শহরের মিষ্টিপট্টি (বর্তমানে স্টেশন রোড) এলাকার উৎপাদন শুরু হয়ে বর্তমানে শহরের বিভিন্ন এলাকার দোকান/কারখানাসহ বিভিন্ন উপজেলায় তৈরি এবং সুনামের সাথে বিক্রি হচ্ছে।  রাজবাড়ী জেলা দেশের মধ্যস্থানে অবস্থিত হওয়ায় এর অবস্থানগত কারণে রাজবাড়ী থেকে দেশের সর্বত্র সড়ক, রেল ও নদীপথে যাতায়াত সুবিধা সহজ হওয়ায় রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচমের উৎপাদন, বিপণন ও সরবরাহে বহুলাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। 

তথ্যসূত্র ঃ-

১) জেলার বিভিন্ন সিনিয়র সিটিজেন ও পুরাতন মিষ্টি ব্যবসায়ীদের দেয় ভাষ্য।

২) রাজবাড়ী জেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্য-প্রফেসর মতিয়র রহমান, প্রথম প্রকাশকাল ২০০০ এবং ৩য় প্রকাশকাল ২০১১।

৩) স্মৃতির শহর রাজবাড়ী(১ম খন্ড)- খালেদ সালাহ উদ্দিন (জগলু), প্রকাশকাল ২০০১।

৪) Problems of Municipal Administration -National Institute of Public Administration, Dhaka(প্রথম প্রকাশ জুন ১৯৬৮)।

৫) রাজবাড়ী জেলা ব্র্যান্ড বুক “পদ্মা কন্যা রাজবাড়ী”-গ্রন্থ’সত্ব জেলা প্রশাসন, রাজবাড়ী(প্রথম প্রকাশ জুন ২০১৮)।

৬) রাজবাড়ী জেলা ক্রীড়া উৎসব উপলক্ষে জেলা ক্রীড়া সংস্থা কর্তৃক প্রকাশিত স্মরণিকা, প্রকাশ কাল ২০০৩।

৭) রাজবাড়ী পাবলিক লাইব্রেরির শতবর্ষ উৎসব ২০১৩ উপলক্ষে রাজবাড়ী জেলা প্রশাসন ও রাজবাড়ী পাবলিক লাইব্রেরি কর্তৃক প্রকাশিত স্মরণিকা, প্রকাশকাল ২০১৩।

৮) সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী ও তাদের ছেলে-মেয়েদের জন্য আয়োজিত ঢাকা বিভাগীয় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ২০২৩ উপলক্ষ্যে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়, ঢাকা ও বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড, বিভাগীয় কার্যালয়, ঢাকা থেকে প্রকাশিত সরণিকা, প্রকাশকাল ২০২৩।

[লেখক পরিচিতি ঃ মোঃ মকবুল হোসেন খান, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, রাজবাড়ী]

 

“রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচম” শত বছরের ঐতিহ্যবাহী মিষ্টান্ন
জেলা প্রশাসনের উগ্যোগে রাজবাড়ীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত
পবিত্র শবে বরাতের রাত বা ভাগ্য রজনী
সর্বশেষ সংবাদ