ঢাকা মঙ্গলবার, মে ২৮, ২০২৪
জামাইকে বিষপানে হত্যার অভিযোগ শাশুড়ীর বিরুদ্ধে: রাজবাড়ী থানায় অভিযোগ
  • ষ্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২৪-০৪-১৬ ১৫:৫৩:২০

ঈদের ছুটিতে ঢাকা থেকে বাড়ী এসে আপন মেয়ে জামাইকে দাওয়াত দিয়ে নিয়ে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে বিষপানে হত্যার অভিযোগ উঠেছে শাশুড়ী শানু বেগমের(৪৫) বিরুদ্ধে। নিহত জামাইয়ের নাম মোঃ জহির(২৬)।
 গতকাল ১৬ই এপ্রিল দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় জহির।
 নিহত জহির রাজবাড়ী শহরের সজ্জনকান্দা(কাহার পাড়া) এলাকার মকবুল হোসেনের মেয়ে পারভীন বেগমের ছেলে। 
 গত ১২ই এপ্রিল ঈদের দ্বিতীয় দিন রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার আড়কান্দি(কালিবাড়ি) গ্রামে নিহত জহিরের মামা শ্বশুর মোহাম্মদের বাড়ীতে এ বিষপানের ঘটনা ঘটে। 
 জানা গেছে, নিহত জহির ভালোবেসে ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী উপজেলার সাতর গ্রামের মোস্তফা ও শানু বেগমের মেয়ে  মুরসালিনা (২৫)কে দীর্ঘ ৬বছর পূর্বে বিয়ে করে। কিন্তু এ বিয়ে জহিরের শ্বশুর বাড়ীর কেউ মেনে নেয়নি। জহিরের স্ত্রী মুরসালিনার মা দ্বিতীয় বিয়ে করে ঢাকায় গার্মেন্টেস ফ্যাক্টরীতে চাকুরী করে। পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে বাড়ী এসে মেয়ে ও মেয়ে জামাইকে ফোন করে দাওয়াত দিয়ে নিয়ে যায় বালিয়াকান্দি উপজেলার আড়কান্দি(কালিবাড়ি) গ্রামে জহিরের মামা শ্বশুর মোহাম্মদের বাড়ীতে। সেখানে বন্দী করে রেখে জহিরকে অমানুষিক নির্যাতন ও পূর্ব পরিকল্পিতভাবে বিষপান করিয়ে হত্যার চেষ্টা করে তারা। এক পর্যায়ে জহিরের শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখা দিলে বালিয়াকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে পালিয়ে যায় শ্বশুর বাড়ীর আত্মীয় স্বজনসহ স্ত্রী মুরসালিনাও। বিষপানের বিষয়টি জহির তার নানী মনোয়ারা বেগমকে জানালে তিনি বালিয়াকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে তাকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন এবং এ ঘটনায় ৬জনকে আসামী করে জহিরের নানী মনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে গত ১৪ই এপ্রিল রাজবাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
 একই দিন রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকাকালে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখা দিলে হাসপাতাল কর্র্তৃপক্ষ জহিরকে ফরিদপুর বা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র প্রদান করেন। ওই দিনই তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে গতকাল ১৬ই এপ্রিল জহির সেখানে মারা যায়। বর্তমানে নিহত জহির ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। 
 নিহত জহিরের নানী মনোয়ারা বেগম বলেন, যারা আমার নাতিকে বিষ খাওয়াই মেরে ফেলেছে, আমি তাদের সুষ্ঠ বিচার চাই। আমি তাদের ফাঁসি চাই। 
 এদিকে গত ১৫ই এপ্রিল জহির এ প্রতিবেদককে ওই দিনের ঘটে যাওয়া ঘটনার বর্ণনা করে একটি ভিডিও বার্তা প্রেরণ করেন। ভিডিও বার্তায় জহির বলেন, আসসালামুআলাইকুম। আমি জহির। আমি আমার বউ(মুরসালিনা) সাথে দীর্ঘ ৬বছর সংসার করেছি। আমি কখনো ওর সাথে অত্যাচার করিনি। ও আমাকে অনেক ভালোবাসে, আমিও ওকে অনেক ভালোবাসি। ওর মা বাবা আমাদের এ সম্পর্ক মেনে নেয় না।  ও প্রতিবার ঢাকায় গেলে ওর মা বলে ভালো ঘরে বিয়ে দিবে। এর রকম একজন ফকিন্নি ছেলে দিয়ে কী করবে তুমি। এসব কথা বলে বলে বার বার ফুসলিয়ে মেয়েকে হাত করেছে। এই হাত করার পেছনে ওর মা শানু, ওর ভাই ইমরান, ওর খালা শাহানা ও আমার বউ মুরসালিনা আর ওর সৎ বাপ জড়িত আছে। ওর সৎ বাপ একজন কৃপন। ওর অরজিনাল বাপের সাথে থাকতে দেয় নাই। ওর সৎ বাপ, ওর মা, ভাই আমাকে ধরেছে। আমার স্ত্রী আমাকে ধরে নাই। ওরা আমাকে বিষ পান করিয়েছে। বিষপান করার কিছুক্ষণ পর আমার বউ অনেক কান্না করেছে। বলেছে আমি ওর সাথে থাকবো ও যাবো। আমার তখন বউকে বিশ্বাস হয়। তখন আমি বলি তুমি আমার পাশে থাকলে আমাকে বাঁচাও। 
 সে আরো বলেন, আমি একজন নিরীহ মানুষ। আমার বউ আমাকে অনেক ভালোবাসতো। কিন্তু ওরা আমাকে ভালোবাসতে দেয়নি।

রাজবাড়ীতে জেলা অবহিতকরণ ও কর্ম-পরিকল্পনা সভা অনুষ্ঠিত
রাজবাড়ীতে ৯২টি হারানো ফোন  ফিরে পেল প্রকৃত মালিককেরা
রাজবাড়ীতে জেলা আদালত সহায়তা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত
সর্বশেষ সংবাদ