ঢাকা মঙ্গলবার, মে ২৮, ২০২৪
যারা দুর্নীতি করে, টাকা পয়সা লুটপাট করে আমার যুদ্ধ তাদের বিরুদ্ধে ঃ ব্যারিস্টার সুমন
  • তনু শিকদার সবুজ/মীর সামসুজ্জামান সৌরভ
  • ২০২৪-০৪-১৯ ১৯:৪৯:৪৬

হবিগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জনপ্রিয় ও আলোচিত মুখ ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেছেন, একটা খেলোয়াড় এক ম্যাচ ফুটবল খেলে ৫হাজার টাকা পায়। ৫হাজার টাকার বিনিময়ে খেলার পর রাত ৮টা পর্যন্ত তাকে পায়ে বরফ লাগাতে হয়। প্রতিটি প্লেয়ার খেলতে গিয়ে যে পরিমাণ লাথালাথি খায় শুধুমাত্র আপনাদের আনন্দ দেওয়ার জন্যই। আর দুঃখ লাগে এদেশে ঘাম ফালাইয়া আমরা ৫হাজার টাকা পাই আর ওরা এসি রুমের মধ্যে ঢুকে ৫হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি করে। আমার যুদ্ধ এদের বিরুদ্ধে। আমার যুদ্ধ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বানাতে গিয়ে যারা নিজের স্বার্থে টাকা-পয়সা লুটপাত করে ওদুর্নীতি করে এদের বিরুদ্ধে।

গতকাল ১৯শে এপ্রিল বিকেলে রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী বহরপুর রেলওয়ে মাঠে মাগুরা জেলা ফুটবল একাদশের সাথে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ শেষে দর্শকদের উদ্দেশ্য করে তিনি এসব কথা বলেন।

ব্যারিস্টার সুমন দর্শকদের উদ্দেশ্য করে বলেন, আমি সাধারণ একটা পরিবার থেকে উঠে এসে আজকে ব্যারিস্টার হয়ে এক লাখ ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করে এমপি হয়েছি। আজ আপনাদের মাটিতে ফুটবল খেলে এই তীব্র গরমে শরীর থেকে এক লিটার ঘাম ঝড়াইছি। আমি বিশ্বাস করি যে মাটিতে ঘাম পড়ে সে মাটির মানুষের সাথে আত্মীয়তা তৈরি হয়। আমি বিশ্বাস করি যে ঘাম দিয়ে গোসল করে সে ইতিহাস বদলাইতে পারে। আমি এমন একটা বাংলাদেশ দেখতে চাই যেটা বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা স্বপ্ন দেখতেছে এমন একটি বাংলাদেশ দেখতে চাই।

তিনি আরও বলেন, আমরা প্রত্যেকটি উপজেলা থেকে ফুটবল প্লেয়ার বের করার চেষ্টা করছি। ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। আজকে ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় আমরা আজ এখানে এসেছি। ফুটবলের উন্নয়নের জন্য যদি আমাদের ঘাম ঝরে তাহলে আমরা স্বার্থক। ফুটবলকে এরা একদম শেষ করে দিছে। এদের কাছ থেকে ফুটবল টাকে বাঁচানোর জন্য আমরা খেলি। আমরা আজকে মাগুরা টিমকে হারানোর জন্য এখানে আসি নাই। আমি এখানে খেলতে আসছি হচ্ছে ফুটবলটাকে যারা নষ্ট করছে তাদেরকে হারানোর জন্য। আমরা আপনাদের সাথে আত্মীয়তা করতে আসছি। আপনারা আমাদের সাথে থাকবেন। আমরা ফুটবলকে এগিয়ে নিতে চাই।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, আমার বয়স ৪৫ বছর। আজ দুইটা বাইসাইকেল কিক দিছিলাম, কোমড় ভাঙার ভয় করি নাই। আমি দেখছি আমার কোমর ভাঙলে ভাঙুক তাও আপনাদের মন যেনো না ভাঙে এই জন্য উল্টা কিক মারছি। আমি মন যদি ভাঙতে চাই তাহলে তাদের মন ভাঙবো যারা ফুটবলটাকে নষ্ট করছে। আমি তাদের তাদের মন ভাঙতে চাই। আজকে নীলফামারীর এমপি সাহেব আসছে মাঠে খেলা দেখতে, আমরা কথা হচ্ছে আমরা যদি আস্তে আস্তে এমপি সাহেবদের মাঠে নামাতে পারি তাহলে এরপরে কিন্তু খেলা জমে যাবে। ফুটবল এগিয়ে যাবে।

আমি এমপি হিসেবে বেতন পাইছি ১ লাখ ৭২ হাজার টাকাএ এছাড়াও এই ৩ মাসে বরাদ্দ পাইছি ২৯ কোটি টাকা। আমি যা পাবো সব জানাই দিবো। আমার কথা হলো চেয়ার থাকলে থাকুক না থাকলে নাই বাংলাদেশের মানুষ জানুক এমপি হয়ে কয় টাকা পাওয়া যায়।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, বর্তমানে ফুটবল আইসিইউ-এর মধ্যে চলে গেছে। এই ফুটবলটাকে টেনে নিয়ে আসার জন্য প্রতি সপ্তাহে কোন না কোন জেলায় আমরা যাচ্ছি। আজকে রাজবাড়ীতে আমার দ্বিতীয় বার আসা। আজকে বালিয়াকান্দি এলাকার দর্শক ও প্রশাসনকে দেখে আমার খুবই ভালো লাগছে। তাদের মুখের দিকে তাকালেই বোঝা যাচ্ছে কি পরিমান প্রেম ফুটবলের প্রতি তাদের। অথচ প্রেম আমাদের ফুটবলের জন্য কিন্তু এই ফুটবলকেই আমরা ছিন্ন বিচ্ছিন্ন করে ফেলছি। এমপিদের সংখ্যা মাঠে যত বাড়বে তত জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমরা বলতে পারবো নেত্রী আমাদের ফুটবলের জন্য আরও কিছু বরাদ্দ দেন ও ভালো ভালো লোক নিয়ে আসেন এটাই আমাদের প্রধান চাওয়া। আজ আমরা এই মাঠে দুই জন এমপি রয়েছি। আজ রেলপথ মন্ত্রীর আসার কথা ছিলো তিনি আসতে পারেননি। তবে তিনিও ফুটবলের উন্নয়নের জন্য আমাদের সাথে রয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাতো আলাদা আলাদা ভাবে তৈরি করা সম্ভব না, সব এলাকার মানুষ যখন আত্মীয়তার বন্ধনে আবদ্ধ হবে তখনই কিন্তু আমরা প্রকৃত অর্থে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সোনার বাংলা গড়তে পারবো।

বহরপুর রেলের মাঠে প্রীতি ফুটবল ম্যাচের আয়োজন করে বহরপুর বি.এন.বি.এস আন্তঃজেলা ফুটবল টুর্নামেন্ট পরিচালনা কমিটি। এ প্রীতি ফুটবল ম্যাচে ব্যারিস্টার সুমন ফুটবল একাডেমীর সাথে প্রতিপক্ষ হয়ে খেলে শক্তিশালী মাগুরা জেলা ফুটবল একাদশ।

ব্যারিস্টার সুমন বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে মাঠে প্রবেশ করে ওয়ার্ম আপ শুরু করে এবং দর্শকদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। পরে বিকাল ৫টায় খেলা শুরু হয়। খেলার প্রথমার্ধে ২৬মিনিটে মাগুরা জেলা গোল দিয়ে এগিয়ে যায়। পরে খেলার দ্বিতীয়ার্ধে ৪০  মিনিটের মাঝে আবারও মাগুরা জেলা আরও একটি গোল দিয়ে ব্যবধান বাড়িয়ে নেয়। পরে নির্ধারিত সময়ের শেষের দিকে ৬০ মিনিটের মাথায় ব্যারিস্টার সুমন ফুটবল একাডেমি মাগুরা জেলা ফুটবল একাদশের জালে গোল দিয়ে ব্যবধান কমায়। পরে নির্ধারিত সময় শেষে মাগুরা জেলা ফুটবল একাদশ ২-১ গোলে ব্যারিস্টার সুমন ফুটবল একাডেমিকে পরাজিত করে। এ খেলা দেখতে দূর দূরান্ত থেকে ফুটবল প্রেমী দর্শকরা ছুটে আসে। তীব্র তাপদাহের মধ্যে প্রচন্ড রোদের মধ্যে তারা ব্যারিস্টার সুমনকে একনজর দেখতে তার ক্রীড়া নৈপুণ্যতা দেখতে ছুটে আসে। খেলায় প্রায় ৩০ হাজার লোকের সমাগম হয়।

খেলায় নিলফামারী-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাদ্দাম হোসেন পাভেল, বালিয়াকান্দি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মোঃ আলমগীর হোসেন, বি.এন.বি.এস আন্তঃজেলা ফুটবল টুর্নামেন্ট পরিচালনা কমিটির সভাপতি কাজী শহিদুল ইসলাম সাহিদ ও সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে দৌলতদিয়ায় পানিতে ডুবে গেছে পন্টুন॥মহাসড়কে ট্রাকের দীর্ঘ লাইন
বালিয়াকান্দির সাংবাদিক রঘুনন্দন সিকদারের ৪র্থ মৃত্যু বার্ষিকী আজ
পাংশায় আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকে শ্রেণীকৃত ঋণ আদায় ক্যাম্প অনুষ্ঠিত
সর্বশেষ সংবাদ