ঢাকা শনিবার, জুলাই ২০, ২০২৪
বালিয়াকান্দির শালমারায় সড়কের গাছ কেটে বিপাকে গ্রামবাসী॥ইউএনও কাছে স্মারকলিপি
  • সোহেল মিয়া
  • ২০২৪-০৬-১৪ ১৫:১৪:০৩

সংযোগ সড়কের তিনটি ছোট গাছ কেটে বিপাকে পড়েছে রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দির সদর ইউনিয়নের শালমারা ও শালকী গ্রামের বাসিন্দারা। 

 বর্তমানে মামলা থেকে হয়রানি ও রক্ষা পেতে গতকাল ১৪ই জুন শুক্রবার দুপুরে উপজেলা নিবার্হী অফিসারের নিকট স্মারকলিপি দিয়েছেন ওই দুই গ্রামের অর্ধশত ভুক্তভোগী। 

 স্মারকলিপি ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, বালিয়াকান্দির সদর ইউনিয়নের শালমারা ও শালকী গ্রামের প্রায় অর্ধশত পরিবারের যাতায়াতের সুবিধার্থে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে গুনপাড়া খালের ওপর ২০২২ সালে একটি কালভার্টসহ রাস্তা তৈরি করে দেয়। কালভার্টের সংযোগ সড়কের প্রবেশমুখে ছোট তিনটি গাছ থাকায় সাধারণ পথচারীদের যাতায়াতে বিঘ্ন ঘটছিল। ওই গ্রামের কৃষকেরা তাদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য মাঠ থেকে সরাসরি বাড়ীতে নিতে পারছিল না। ফলে গ্রামবাসীর পক্ষ থেকে হোসনে আরা নামের একজন ভুক্তভোগী সংযোগ সড়কের সামনে থেকে গাছ অপসারণের জন্য ২০২২ সালের ১২ই ডিসেম্বরে তৎকালীন ইউএনও বরাবর একটি আবেদন করেন।

 সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে ইউএনও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আলমগীর বিশ্বাসকে নির্দেশ দেন। ইউএনওর নির্দেশে ইউপি চেয়ারম্যান খাস জমির ওপর লাগানো সেই গাছ তিনটি কেটে নেওয়ার জন্য গাছের মালিক দাবীদার নারুয়া ইউনিয়নের খালিয়া গ্রামের মৃত আজগর আলীর ছেলে আব্দুর রহমান টুকুকে মৌখিক নির্দেশ দিয়ে আসে। কিন্তু আব্দুর রহমান টুকু প্রায় দুই বছর পার হয়ে গেলেও গাছগুলো কেটে নেয়নি। এরমধ্যে দুটি গাছ মরে যায়।

 দীর্ঘদিনেও গাছ কেটে না নেওয়ায় গত ২০শে এপ্রিল শালমারা ও শালকী গ্রামের প্রায় অর্ধশত ভুক্তভোগী গাছগুলো কেটে খালের পাশে ফেলে রাখে। এরপরই গাছের দাবীদার আব্দুর রহমান টুকু শালমারা শালকী গ্রামের চারজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ২০-২৫ জনকে আসামী করে রাজবাড়ী আদালতে মামলা করেন। মামলাটি এখন বিচারাধীন। মামলা ও হয়রানী থেকে রক্ষা পেতে বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ৫০ জন গ্রামবাসী স্বাক্ষরিত একটি স্মারকলিপি দিয়েছেন ইউএনওর কাছে। 

 স্মারকলিপি প্রদানের সময় ভুক্তভোগী সাইদুর রহমান, ইমদাদুল হক, মোঃ আহসান, মোঃ সাঈদ শেখ, রইচ উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 সাইদুর রহমান জানান, তিনি একজন কৃষক। কালভার্টের সংযোগ সড়কের সামনে গাছ থাকায় তিনি কোন ফসল ভ্যানে করে বাড়ীতে নিতে পারতো না। তার মতো প্রায় ৩০ থেকে ৪০ জন কৃষক ওই কালভার্টটি ব্যবহার করে। খাস জমিতে গাছ লাগিয়ে গাছের মালিকানা দাবী করেন পাশের নারুয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা আব্দুর রহমান টুকু। তাকে বারবার বলার পরও তিনি কোন কর্ণপাত করেননি। এমনকি একজন জনপ্রতিনিধি বলার পরও তিনি সেটা মানেনি। উপায়ন্তর না পেয়ে তারা নিজেরাই দুটি মরা মেহগনি গাছসহ একটি তালগাছ কেটে খালের পাশেই রেখে দেয়। গাছ কাটার পরই তিনি গোলাম মোস্তফা গোলাপের পরামর্শে আদালতে মামলা করে দেন।

 স্মারকলিপি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাবেরী রায় জানান, ঘটনাটি বিচারাধীন। আদালত থেকে কোন নির্দেশনা পেলে সেই অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

 বিষয়টি জানতে আব্দুর রহমান টুকুর ব্যক্তিগত মোবাইলে ফোন দিলে তার ছেলে তানভীর রহমান রিসিভ করেন। 

 তিনি জানান, মামলার আসামীগণসহ গ্রামের বেশ কিছু উচ্ছৃংখল যুবক তাদেরকে না জানিয়েই ইলেকট্রনিক করাত দিয়ে তিনটি গাছ কেটে ফেলে। এর আগে তারা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গাছ কাটার লিখিত কোন নির্দেশ পায়নি।

 গাছগুলো খাস জমিতে কিনা এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, তাদের বাড়ীর সামনে প্রবাহিত খালের পাড়ে গাছগুলো। যার যার বাড়ীর সামনের খালের জায়গা তারা তারা ব্যবহার করে থাকে। সেই হিসেবে গাছগুলো তাদের। খাস জমির বিষয়টি তিনি এড়িয়ে যান।

 
পাংশায় নবাগত স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার মতবিনিময়
বালিয়াকান্দিতে বিপুল পরিমান নিষিদ্ধ চায়না জাল জব্দ
পাংশা মডেল থানা পুলিশের অভিযানে চোরাই মালামালসহ ২জন গ্রেফতার
সর্বশেষ সংবাদ