ঢাকা শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১
বিয়ের আগে করলে পরীক্ষা রক্ত; সন্তান থাকবে থ্যালাসেমিয়া মুক্ত
  • ডাঃ মোঃ কামরুজ্জামান
  • ২০২১-০৫-০৮ ০০:২৯:৫৮

এখন বয়স ১৩ বছর। ৩বছর বয়সে রক্তস্বল্পতা (থ্যালাসেমিয়া) ধরা পরে। প্রতি মাসে ১-২ ব্যাগ রক্ত লাগে। গত ১০ বছরে প্রায় ৮০ বার রক্ত নিয়েছে। মেয়েলি বৈশিষ্ট্যগুলো(ব্রেস্ট, ঋতুস্রাব) ছিল না। 

  আধুনিক চিকিৎসায় গত ৭ মাসে এক ব্যাগ রক্ত না নিয়েও হিমোগ্লোবিন স্বাভাবিক (১০ গ্রাম/ডিএল) থাকছে এবং মেয়েলি বৈশিষ্ট্য আসা শুরু করেছে, আলহামদুলিল্লাহ। তবে রোগী ভেদে চিকিৎসার ফলাফল তারতম্য হয়।

সচেতনতা বাড়ানোই উদ্দেশ্য। 

কোন অপচিকিৎসা নয়, বৈজ্ঞানিক চিকিৎসায়ই একমাত্র মুক্তি!

থ্যালাসেমিয়া একটি বংশগত রক্তস্বল্পতা জনিত রোগ। এটি কোন ছোঁয়াচে রোগ নয়। রক্তের ক্যান্সারও নয়। স্বামী-স্ত্রী দুইজনই থ্যালাসেমিয়া রোগের বাহক হলে সন্তানের থ্যালাসেমিয়া রুগী হওয়ার (২৫%) ঝুঁকি থাকে। আর স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে একজন বাহক বা রুগী অন্যজন স্বাভাবিক হলে কোন সন্তানই রুগী হবে না।

  থ্যালাসেমিয়া বাহক যার একটি জীন ত্রুটিযুক্ত আর থ্যালাসেমিয়া রুগী যার দুইটি জীন ত্রুটিযুক্ত। সুতরাং থ্যালাসেমিয়া বাহক আর থ্যালাসেমিয়া রুগী এক কথা নয়। 

  থ্যালাসেমিয়ার বাহক স্বাভাবিক মানুষরূপে বেড়ে ওঠে। তাই কেউ থ্যালাসেমিয়ার বাহক কি না, রক্তের পরীক্ষা ছাড়া তা বাহ্যিকভাবে বুঝার কোন উপায় নাই।

  আর থ্যালাসেমিয়া রুগী জন্মের পর ৬ মাস বয়স হতে দুর্বল ও ফ্যাকাসে হয়ে যায়, জন্ডিস দেখা দেয়। আস্তে আস্তে পেটের প্লীহা ও লিভার বড় হয়ে যায়। ঠিকমতো শরীরের বৃদ্ধিও হয় না।

  রক্তস্বল্পতারর জন্য প্রতি মাসে ১ থেকে ২ ব্যাগ রক্ত শরীরে নিতে হয়। ঘন ঘন রক্ত নেওয়ায় ও পরিপাক নালী থেকে আয়রনের শোষণ ক্ষমতা বেড়ে যাওয়ায় শরীরে আয়রনের মাত্রা বেড়ে যায়। ফলে লিভার, হৃদপিন্ডসহ অন্যান্য অংগের নানা রকম মারাত্মক জটিলতা দেখা দেয়। সঠিক চিকিৎসা ও নিয়মিত রক্ত না নিলে থ্যালাসেমিয়া রুগী মারা যায়। 

  চিকিৎসা ঃ সঠিক চিকিৎসা হচ্ছে নিয়মিত নিরাপদ রক্ত নেওয়া ও আয়রন চিলেশন, ডোনারের অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন ও জীন থেরাপি যা অত্যন্ত ব্যয় বহুল। 

  নিয়মিত রক্ত নিয়ে হেমাটোলজিষ্ট বা রক্তরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে সঠিক চিকিৎসা নিলে থ্যালাসেমিয়া রুগীকে প্রায় ৩০ বছরের অধিক বাচানো সম্ভব। 

  তবে গবেষণায় দেখা গেছে, কিছু ঔষধ দিয়ে চিকিৎসা নিলে রক্ত কম নেওয়া লাগে, প্লীহাও ছোট থাকে এবং প্লীহার অপারেশন লাগেই না।

  প্রতিবার রক্ত নেওয়া ও আয়রন কমানোর ঔষধসহ অন্যান্য খরচে একজন থ্যালাসেমিয়া রুগীর চিকিৎসায় প্রতি মাসে ৩ থেকে ৪হাজার টাকার বেশি খরচ হয়। তাই সবার পক্ষে চিকিৎসা নেওয়া সম্ভব হয় না এবং অকালে ঝরে যায় হাজারও প্রাণ। পরিবারে আসে দরিদ্রতা। 

  থ্যালাসেমিয়া বাহক আর থ্যালাসেমিয়া রুগীর খাবারের উপদেশ এক নয়-

  থ্যালাসেমিয়া বাহকের খাবার স্বাভাবিক মানুষের মতো। আয়রন জাতীয় খাবারের নিষেধ নাই বরং আয়রনের ঘাটতি হলে বেশি বেশি আয়রন জাতীয় খাবার খেতে দিতে হয়। 

  যেসব থ্যালাসেমিয়া রুগী নিয়মিত রক্ত নিয়ে বেচে থাকে এবং যাদের শরীরে আয়রনের মাত্রা বেশি হয়ে যায় তাদের জন্য আয়রন জাতীয় খাবার নিষেধ করা হয়ে থাকে, শরীর থেকে আয়রন কমানোর জন্য ঔষধ খেতে হয়।

থ্যালাসেমিয়া কেন হয়?

লোহিত রক্ত কনিকার মধ্যে হিমোগ্লোবিন (হিম+গ্লোবিন) থাকে বিধায় রক্ত লাল দেখায়।

  স্বাভাবিক মানুষের লোহিত রক্ত কনিকার গড় আয়ু ১২০ দিন হলেও থ্যালাসেমিয়া রুগীর ত্রুটিপূর্ণ গ্লোবিনের কারণে লোহিত রক্ত কনিকার গড় আয়ু মাত্র ২০ থেকে ৬০ দিন। অপরিপক্ক অবস্থায় লোহিত রক্ত কনিকা ভেংগে যায় বা মারা যায় তাই রক্তস্বল্পতা দেখা দেয়।

  মানব দেহে ১৬ নং ক্রোমোজোমে থাকে আলফা জীন আর ১১ নং ক্রোমোজোমে থাকে বিটা জীন। আলফা ও বিটা জীনদ্বয় আলফা ও বিটা গ্লোবিন নামক প্রোটিন তৈরি করে যা অনেকগুলো এমাইনো এসিডের সমষ্টি। জন্মগতভাবে ১৬ অথবা ১১ নং ক্রোমোজোমের আলফা অথবা বিটা জীন সঠিকভাবে এমাইনো এসিড তৈরি করতে না পারলে, আলফা অথবা বিটা গ্লোবিন নামক প্রোটিন ত্রুটিপূর্ণ হয়। আলফা অথবা বিটা গ্লোবিন চেইন ত্রুটিপূর্ণ থাকায় হিমোগ্লোবিন ত্রুটিপূর্ণ হয় বিধায় লোহিত রক্ত কনিকা দ্রুত ভেংগে যায় বা মারা যায় এবং রক্তস্বল্পতা দেখা দেয়।

বাংলাদেশে সমস্যা কোথায়?

থ্যালাসেমিয়া স্ক্রেনিং প্রোগ্রাম না থাকায়, অনেকেই জানেন না তিনি থ্যালাসেমিয়ার বাহক কি না। তাই অজান্তেই থ্যালাসেমিয়া বাহকের মধ্যে বিয়ে হচ্ছে এবং দিন দিন থ্যালাসেমিয়া রুগী বাড়ছেই। যেহেতু থ্যালাসেমিয়া একটি বংশগত রোগ তাই তো তো ভাই-বোনের (চাচাতো, মামাতো, খালাতো, ফুফাতো) মধ্যে বিয়ে এবং পরিবারের কারো থ্যালাসেমিয়া থাকলে থ্যালাসেমিয়া বাহক হওয়ার ঝুঁকি অনেক বেড়ে যায়।

বংশানুক্রম ভাবে কিভাবে রোগটির প্রসার ঘটে ঃ স্বামী-স্ত্রী উভয়েই থ্যালাসেমিয়ার বাহক হলে সন্তান থ্যালাসেমিয়ার রুগী হওয়ার সম্ভবনা শতকরা ২৫ ভাগ, বাহক হওয়ার সম্ভবনা শতকরা ২৫ ভাগ আর সুস্থ হওয়ার সম্ভবনা শতকরা ৫০ ভাগ।

  স্বামী-স্ত্রীর  যেকোনো একজন থ্যালাসেমিয়ার বাহক হলে কোন সন্তানই রুগী হবে না তবে সন্তানের বাহক হওয়ার সম্ভবনা শতকরা ৫০ ভাগ, সুস্থ হওয়ার সম্ভবনা শতকরা ৫০ ভাগ।

  স্বামী-স্ত্রীর একজন থ্যালাসেমিয়া রুগী একজন স্বাভাবিক হলে কোন সন্তানই রুগী হবে না তবে বাহক হবে যা কোন সমস্যা না।

কিভাবে জানা যাবে আপনি থ্যালাসেমিয়ার বাহক কি না? Haematology Autoanalyzer †gwk‡b CBC (মাত্র ১৫০-৫০০ টাকার) পরীক্ষায় যদি Haemoglobin near normal or normal, increased RBC number, MCV less than 80 fl, MCH less than 27 pgm, MCHC normal, RDW-CV normal (less than 15) হয়, তাহলে থ্যালাসেমিয়া বাহক হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। 

Haemoglobin Electrophoresis (৮০০-১৫০০ টাকার) পরীক্ষা করে থ্যালাসেমিয়া বাহক কিনা নিশ্চিত হওয়া যায়। তবে, ক্ষেত্রবিশেষ DNA analysis লাগতে পারে।

কিভাবে প্রতিরোধ করা যায়? 

জনসচেতনতার মাধ্যমে দুই জন থ্যালাসেমিয়া বাহকের মধ্যে বিয়ে বন্ধ করা গেলেই থ্যালাসেমিয়া রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব। 

স্বামী-স্ত্রী উভয়ই থ্যালাসেমিয়ার বাহক হলে গর্ভবতী মায়ের পেটের বাচ্চা থ্যালাসেমিয়ার রুগী কিনা তা নিশ্চিত হয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায়। এক্ষেত্রে ৮ থেকে ১৪ সপ্তাহের গর্ভবতী মায়ের জরায়ুর রক্ত/পানি নিয়ে পরীক্ষা করে নিশ্চিত হওয়া যায়।

আসুন, নিজের প্রয়োজনে থ্যালাসেমিয়া স্ক্রেনিং করি, বাহকের মধ্যে বিয়ে বন্ধ করি। পরিবারকে সুস্থ রাখি। পোলিওর মতো থ্যালাসেমিয়ামুক্ত বাংলাদেশ গড়ি। লেখক ঃ ডাঃ মোঃ কামরুজ্জামান, এমবিবিএস, বিসিএস, এফসিপিএস, সহকারী অধ্যাপক (হেমাটোলজি), রক্তরোগ, ব্লাড ক্যান্সার ও বিএমটি বিশেষজ্ঞ। হেল্প লাইন ০১৯১৯৩৪৪৩০৮।

স্মরণ ঃ গণমানুষের নেতা ছিলেন এডভোকেট আঃ ওয়াজেদ চৌধুরী
রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী ইস্যুতে সরকারের মানবিকতা
বিয়ের আগে করলে পরীক্ষা রক্ত; সন্তান থাকবে থ্যালাসেমিয়া মুক্ত
সর্বশেষ সংবাদ