ঢাকা রবিবার, আগস্ট ১, ২০২১
লকডাউন বাস্তবায়নে রাজবাড়ী জেলায় কঠোর অবস্থানে প্রশাসন॥মাঠে তৎপর ডিসি-এসপি
  • সোহেল মিয়া
  • ২০২১-০৬-২৩ ০০:৪৬:৩৩

দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করায় সরকার ঢাকা বিভাগের রাজবাড়ীসহ ৭টি জেলায় ৯দিনের কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে। গতকাল ২২শে জুন থেকে লকডাউন শুরু হয়েছে।  
  লকডাউন কার্যকর করতে রাজবাড়ী জেলা প্রশাসন ও জেলা পুলিশ কাজ করছে একসাথে। গতকাল ২২শে জুন সকাল থেকে রাজবাড়ী শহরসহ উপজেলা পর্যায়ে লকডাউন বাস্তবায়নে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং পুলিশের সদস্যদের টহল দিতে দেখা গেছে।
  গতকাল মঙ্গলবার ভোর ছয়টা থেকে শুরু হওয়া ৯দিনের এই লকডাউন সফল করতে রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম ও পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামান রাজবাড়ী শহরসহ সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থান সরেজমিন পরিদর্শন ও পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করেন। 
  এছাড়াও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) মোঃ মাহাবুর রহমান সেখ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন) মোঃ সালাহ উদ্দিন, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফাইমি মোঃ সায়েফ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) শেখ শরীফ-উজ-জামানসহ জেলার ৫টি উপজেলার নির্বাহী অফিসার ও থানা অফিসার ইনচার্জরাও(ওসি) তাদের নিজ নিজ উপজেলায় লকডাউন বাস্তবায়নে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন।
  জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার কর্তৃক রাজবাড়ী বাজার পরিদর্শনকালে রাজবাড়ী পৌরসভার মেয়র মোঃ আলমগীর শেখ তিতু, গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআই‘র উপ-পরিচালক মোঃ শরীফুল ইসলাম, জেলা বিশেষ শাখার ডিআই-১ মোঃ সাইদুর রহমান, রাজবাড়ী সদর থানার ওসি মোহাম্মদ শাহাদত হোসেন ও রাজবাড়ী ডিবি পুলিশের ওসি প্রানবন্ধু চন্দ্র বিশ্বাস উপস্থিত ছিলেন।
  তবে প্রতিবারের মতো এবারও লকডাউনে প্রশাসনের সাথে লুকোচুরি খেলছে সাধারণ মানুষ। লকডাউন মানতে তারা নারাজ। প্রশাসনের কোন গাড়ী দেখলেই তারা দ্রুত দোকান বন্ধ করে সটকে পড়ছেন। আবার প্রশাসনের গাড়ী চলে গেলেই তারা দোকানপাট খুলে তাদের ব্যবসা-বাণিজ্য শুরু করছেন।
  গতকাল ২২শে জুন সকালে সরেজমিন গোয়ালন্দ মোড়ে গিয়ে দেখা যায়, রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের গঠিত একটি টিম লকডাউন বাস্তবায়নে কাজ করছে। তারা জরুরী ও কাঁচাপণ্য দোকান ছাড়া অন্যান্য দোকানগুলো বন্ধ করে দিচ্ছেন। এছাড়াও দেখা যায় অনেক ব্যক্তিগত গাড়ী তারা ফিরিয়ে দিচ্ছেন। জরুরী সেবামূলক যানবাহন ছাড়া কোন যানবাহন তারা রাজবাড়ীতে ঢুকতে ও বাহির হতে দিচ্ছেন না।
  বেলা ১২টার দিকে  লকডাউনের সর্বশষ পরিস্থিতি দেখতে গোয়ালন্দ মোড়ে আসেন রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম ও পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামান। পরিদর্শনে এসে তারা লকডাউন মেনে চলতে উপস্থিত  সবাইকে আহবান জানান এবং করোনারোধে সবাইকে মাস্ক ব্যবহার করতে ও বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের না হওয়ার জন্যও আহবান জানান।
  রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম সাংবাদিকদের বলেন, লকডাউন না মানার কোন সুযোগ নেই। তিনি বলেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে আমাদের যে নিদের্শনা দেওয়া হয়েছে সেটা শতভাগ পালন করা হবে। এ জেলাতে যেভাবে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে কঠোর লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়নের মাধ্যমে পরিস্থিতির উন্নতি করা হবে বলে।
  তিনি আরো বলেন, আমাদের নিজেদের জন্যই লকডাউন মানতে হবে। নিজের সন্তান, নিজের পরিবার ও দেশের কথা ভেবে সরকার ঘোষিত সকল নির্দেশনা আমাদের মেনে চলতে হবে। লকডাউন মানাতে প্রয়োজনে আমরা আরো কঠোর হবো। আমরা চাচ্ছি- নিজেদের জায়গা থেকে আমরা সচেতন হই। আমরা সচেতন হলেই করোনারোধ করা সম্ভব।
  রাজবাড়ী পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামান বলেন, জনগণের মঙ্গলের জন্য সরকার লকডাউন ঘোষণা করেছে। আমাদের সবার উচিত যার যার জায়গা থেকে আন্তরিকতার সাথে সরকার ঘোষিত সকল নির্দশনা মেনে চলা। আমরা যদি লকডাউন না মেনে বিশৃঙ্খলা ভাবে ঘুরাফেরা করি তাহলে আমাদের সবার জন্যই সামনের দিনগুলোতে ভয়াবহতা অপেক্ষা করছে। 
  তিনি আরো বলেন, লকডাউন বাস্তবায়নে পুলিশ পিছপা হবে না। যদি কেউ লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি না মানে তাহলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এই বিষয়ে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

 

রাজবাড়ীর গোদার বাজারে ৬শ মিটার নদী তীর প্রতিরক্ষার প্রকল্পে ২শ মিটার বিলীন॥কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন
গোদার বাজারে পদ্মা নদী ভাঙ্গন রোধের কাজ পরিদর্শনে এমপি কাজী কেরামত আলী
রাজবাড়ীতে নদী ভাঙ্গন ঠেকাতে আমাদের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে--- এমপি সালমা চৌধুরী রুমা
সর্বশেষ সংবাদ