ঢাকা শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১
দৌলতদিয়া ফেরী ঘাটে ঢাকামুখি যাত্রীদের ঢল
  • মইনুল হক মৃধা
  • ২০২১-০৮-০১ ০১:৩৭:০২
পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ার ঘোষণার প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে গতকাল ৩১শে জুলাই দৌলতদিয়া ফেরী ঘাটে যাত্রীদের উপচেপড়া দেখা যায় -মাতৃকণ্ঠ।

পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ার ঘোষণার প্রেক্ষিতে গতকাল ৩১শে জুলাই দৌলতদিয়া ফেরী ঘাটে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড় ও যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। 

  গতকাল শনিবার সকাল ভোর থেকেই দৌলতদিয়া ঘাটে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে বিভিন্ন উপায়ে ঘাটে আসা যাত্রীদের ব্যাপক ভিড় দেখা যায়। কঠোর লকডাউনে গণপরিবহন বন্ধ থাকার কারণে যানবাহন সংকটে ঈদ শেষে কর্মস্থলে ফেরা এসব যাত্রীর জন্য কঠিন হয়ে পড়ে। কোন যানবাহন না থাকায় দৌলতদিয়া ঘাটে অনেকটা ফাঁকা অবস্থায় ফেরীগুলোকে পল্টুনে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করতে দেখা যায়। দৌলতদিয়া ঘাট ঘুরে এমন চিত্রই দেখা গেছে। ঢাকা-খুলনা জাতীয় মহাসড়কে ছোট যানবাহনের চাপ ছিলো চোখে পড়পর মতো। একেবারে বিপাকে পড়া মানুষ বৃষ্টির মধ্যই বের হয়েছে। সেই বৃষ্টি কাদা উপেক্ষা করেই অনেকেই আসছেন ফেরী ঘাটে। কেউ পায়ে হেঁটে, কেউ রিকশায়, অটোতে আবার কেউ ব্যাক্তিগত গাড়িতে।

  অনেক কে দেখা গেছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা রিজার্ভ করে ঘাটে আসছে। তারা এসে  সরাসরি ফেরীতে উঠছেন। ফেরীতে ব্যক্তিগত গাড়ি মোটর সাইকেল আর আগত যাত্রীদের নিয়েই ছেড়ে যেতে দেখা গেছে। ফেরীতে মানা হচ্ছে না কোন স্বাস্থ্যবিধি।

  সরেজমিনে বেলা ১১টার দিকে ৫নং ফেরী ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, পাটুরিয়া থেকে ছেড়ে আসা ভাষা শহীদ বরকত ফেরীটি দৌলতদিয়া ঘাটে এসে পৌছালে যাত্রীরা হুমড়ি খেয়ে পড়ে। অতপর যানবাহন ধীর গতিতে আনলোড করার পর দৌলতদিয়াঘাট থেকে কোন প্রকার যানবাহন ছাড়া ফেরীটি শতশত যাত্রী নিয়ে পাটুরিয়ার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। 

  ঝিনাইদাহ থেকে অটোরিকশায় দৌলতদিয়া ঘাটে আসা যাত্রী কাউছার মাহমুদ বলেন, তিনি একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। 

  তিনি বলেন তার অফিস রবিবার খোলা। চাকরীর সুবাদে যেতেই হবে ঢাকায়। বউসহ ছোট বাচ্চা নিয়ে যেতে খুবই কষ্ট হচ্ছে। তারপর একটু পর পর বৃষ্টি। কঠোর লকডাউনের মধ্যে ঢাকা যাওয়া খুবই কষ্টকর।  কিছু করার নেই  কয়েকগুন বেশি ভাড়া দিয়েই যেতে হচ্ছে এখন।

  এ্যাম্বুলেন্স চালক ফয়সাল বলেন, দৌলতদিয়া ফেরী ঘাটে প্রচুর মানুষ আসছে। প্রতিটা পল্টুনে যাত্রীর চাপ। ফেরী আসার সাথে সাথেই যাত্রীরা পল্টুনের উপর উঠে যাচ্ছে। আমরা ফেরীতে উঠতে পারছি না। প্রায় ঘন্টাখানেক এখানে দাড়িয়ে রয়েছি। 

  বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক শিহাব উদ্দিন বলেন, বর্তমানে যাত্রী ও যানবাহন পারাপারের জন্য ৮টি ফেরী থেকে বেলা সাড়ে ১১টা থেকে ১৬টিতে করা হয়েছে। যখন যে ঘাট থেকে যানবাহন নিয়ে ছাড়া প্রয়োজন সেভাবেই ছেড়ে যাচ্ছে। তবে কঠোর বিধি নিষিধের কারণে ঘাটে আসা যাত্রী ও যানবাহন সরাসরি ফেরীতে ওঠার সুযোগ পাচ্ছে। 

‘অতি জরুরি’ ভিত্তিতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন জোরদারের দাবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার
করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিনকে সার্বজনীন গণপণ্য ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
সংবাদ সম্মেলনে নিজেকে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী ঘোষণা দিলেন কাজী কেরামত আলী
সর্বশেষ সংবাদ