ঢাকা শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১
রাজবাড়ীর গোদার বাজারে ৬শ মিটার নদী তীর প্রতিরক্ষার প্রকল্পে ২শ মিটার বিলীন॥কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২১-০৮-০১ ০১:৪১:০৩
রাজবাড়ী সদর উপজেলার গোদার বাজারে ৬০০ মিটার পদ্মা নদী তীর প্রতিরক্ষা কাজ শেষ হওয়ার আগেই প্রকল্পের গত কয়েক দিনে ৪টি স্থানে প্রায় ২০০ মিটার এলাকার নদী ভাঙ্গন ও পানির চাপে ধসে গেছে -মাতৃকণ্ঠ।

রাজবাড়ী সদর উপজেলার গোদার বাজারে নদী শাসনে চলমান ৬০০ মিটার নদীতীর প্রতিরক্ষা কাজ শেষ হওয়ার আগেই প্রকল্পের গত কয়েক দিনে ৪টি স্থানে প্রায় ২০০ মিটার এলাকার নদী ভাঙ্গন ও পানির চাপে ধসে গেছে।

  গতকাল ৩১শে জুলাই বেলা ১১টার দিকে রাজবাড়ী সদর উপজেলার গোদার বাজার এলাকায় এনজিএল ইটভাটার পাশে নতুন করে প্রায় ৩০ মিটার এলাকার সিসি ব্লক ধসে গেছে। এরপর পানি উন্নয়ন বোর্ড জিও ব্যাগ ফেলে নদী ভাঙন রোধ করার চেষ্টা চালায়। 

  গত ২৭শে জুলাই সন্ধ্যায় গোদার বাজার ঘাট এলাকার ৩টি স্থানে এনজিএল ইটভাটার কাছে নদীতীর প্রতিরক্ষা কাজের প্রায় ১৬০ মিটার এলাকার সিসি ব্লক পদ্মার ভাঙ্গনে নদীতে বিলীন হয়ে যায়।

  পাউবো’র একটি সূত্র জানায়, রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক নিয়োজিত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এনটি-বিজে ১৮ কোটি ৬০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে গোদার বাজার ঘাট এলাকায় চেইনেজ ৫৪.৭০০ থেকে চেইনেজ ৫৫.৩০০ পর্যন্ত ৬০০ মিটার এলাকায় সিসি ব্লকের মাধ্যমে পদ্মা নদীর তীর প্রতিরক্ষা কাজ বাস্তবায়ন করছে। উক্ত ৬০০ মিটার এলাকার মধ্যে ৪টি স্থানে প্রায় ২০০ মিটার এলাকার সিসি ব্লক পদ্মার ভাঙ্গনে ধসে নদীতে বিলীন হয়ে যায়।

  এ প্রেক্ষিতে গত ২৮শে জুলাই ৩টি স্থানে জিও ব্যাগ এবং জিও টিউব ডাম্পিং করে ভাঙ্গন ঠেকানোর চেষ্টা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। 

  এরআগে গত ১৬ই জুলাই গোদার বাজার চর সিলিমপুর এলাকার আরেক প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার দুই মাস না যেতেই প্রায় ২০মিটার অংশের সিসি ব্লক ধসে যায়। পরে সেখানে ব্লক ও জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙন রোধ করে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

  গতকাল ৩১শে জুলাই সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, গত ২৭শে জুলাই সিসি ব্লক ধসে যাওয়া ৩টি পয়েন্টে জিও ব্যাগ ও টিউব ব্যাগ ফেলে ভাঙ্গন রোধে চেষ্টা চলছে।তবে সেখানে ফেলানো জিও ব্যাগ এবং টিউব ব্যাগও নদীতে ধসে যাচ্ছে। এতে করে ভাঙন হুমকীতে রয়েছে শহর রক্ষা বাঁধটি। আতঙ্কে রয়েছে নদীপাড়ের মানুষ। 

  পদ্মা নদী সংলগ্ন ধুঞ্চি এলাকার বাসিন্দা মোমিন শেখ বলেন, গোদার বাজার ঘাট এলাকায় চলমান ৬০০ মিটার এলাকায় সিসি ব্লকের মাধ্যমে নদীতীর প্রতিরক্ষার নামে যে কাজ কাজ চলছে তা অতি নিম্নমানের। তাই গোদার বাজার এলাকায় ইটভাটার কাছে সিসি ব্লক ধসে যাচ্ছে। 

  পানি উন্নয়ন বোর্ডের অসাধু প্রকৌশলীদের দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে আজকে আমরা নদী ভাঙনের হুমকীর মধ্যে রয়েছি। বর্তমানে যে ভাবে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে তাতে শহর রক্ষা বাঁধ হুমকীতে রয়েছে। আমরা এলাকার মানুষ অবিলম্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে নদী ভাঙ্গন রোধ এবং গত ৩বছরে কয়েক শত কোটি টাকা ব্যয়ে যে সকল প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে বা চলমান আছে সে গুলোর অনিয়ম ও দুনীতি তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানাচ্ছি।  

  মিলন শেখ নামে আরেক জন বলেন, গোদার বাজারে যেখানে ভাঙন শুরু হয়েছে সেখানে পানির গভীরতা আছে অনেক। কিন্তু সেখানে সিসি ব্লক দেওয়া হয়েছে ৩০ ফিটের মত। তাহলে কেমন এই শহর রক্ষা বাঁধ টিকবে। এখন নিচে থেকে মাটি সরে গিয়ে সিসি ব্লকগুলো ধসে পড়ছে। নিচে থেকে যদি ড্রাম্পিং করে আসতো তাহলে এই সমস্যাগুলো আর হতো না। 

  তিনি আরো বলেন গোদার বাজার ইটভাটার পাশে পানির প্রচুর চাপ রয়েছে। তার কারণে সেখানে নদীতীর প্রতিরক্ষা কাজ গুনগত মানসম্পন্ন করা দরকার ছিলো। কিন্তু সেটা করা হয়নি। তার জন্য আজ এখানে ভেঙে যাচ্ছে।

  এ বিষয়ে রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল আহাদ বলেন, এ প্রকল্পের ডিজাইন ২০১৬-২০১৭ সালে করা হয়েছিলো। তখন নদীর যে গতিপথ ছিলো, বর্তমানে সেটা পরিবর্তন হয়েছে। যার কারণে ব্লক ধসে যাচ্ছে। তাই আগের ওই ডিজাইন দিয়ে এখানে নদী ভাঙন ঠেকানো যাবে না। এই জায়গায় যদি ভাঙন ঠেকাতে হয় তাহলে আমাদের ডিজাইন পরিবর্তন করতে হবে। তাহলে এখানে ভাঙন ঠেকানো যাবে।

  নদীর তীর প্রতিরক্ষা কাজ শুরুর আগে প্রকল্পে নকশা সংশোধন না করে কেন কাজ শুরু করলেন এমন প্রশ্নের জবাব তিনি এড়িয়ে যান।  

  জানা যায়, রাজবাড়ী শহর রক্ষা বাঁধের ভাঙন রোধে ২০১৮ সালের জুন মাসে রাজবাড়ীর পদ্মা নদীর শহর রক্ষা বাঁধের ডান তীর প্রতিরক্ষার কাজ(দ্বিতীয় পর্যায়) প্রকল্পের আওতায় রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাটে ৩কিলোমিটার ও মিজানপুরে দেড় কিলোমিটারসহ সাড়ে চার কিলোমিটার এবং ২০১৯ এর জুলাইয়ে শুরু হওয়া (প্রথম সংশোধিত) শহর রক্ষা বাঁধের গোদার বাজার অংশের আড়াই কিলোমিটারসহ মোট ৭কিলোমিটার এলাকায় ৪৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। এতে দ্বিতীয় পর্যায়ের সাড়ে চার কিলোমিটারে ৩৭৬ কোটি ও প্রথম সংশোধিত ১৫২৭ মিটারে ৭৬ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়। প্রকল্পের জন্য ৮.৩ কিলোমিটার অংশে ৪৯ লাখ ঘনমিটার ড্রেজিং করা হয়েছে।

  নদীর তীরের স্থানীয় বাসিন্দরা বলেন, প্রতি বছরই আমরা নদী ভাঙনের শিকার হই। বর্তমান সরকার নদী ভাঙন রোধে যখন বরাদ্দ দিল, তখন আমরা আশায় বুক বেঁধেছিলাম। কারণ সিসি ব্লক ফেললে অনেক বছর সুরক্ষিত থাকা যায়। কিন্তু নিম্নমানের কাজ হওয়াতে সেই সিসি ব্লকও নদীতে ভেঙে যাচ্ছে। 

‘অতি জরুরি’ ভিত্তিতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন জোরদারের দাবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার
করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিনকে সার্বজনীন গণপণ্য ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
সংবাদ সম্মেলনে নিজেকে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী ঘোষণা দিলেন কাজী কেরামত আলী
সর্বশেষ সংবাদ