ঢাকা রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
ইসলামাবাদে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯১তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২১-০৮-০৯ ১৪:১২:২৯
পাকিস্তানে রাজধানী ইসলামাবাদস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে গত ৮ই আগস্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯১তম জন্মবার্ষিকীতে হাইকমিশনার মোঃ রুহুল আলম সিদ্দিকী বক্তব্য রাখেন -মাতৃকণ্ঠ।

পাকিস্তানে রাজধানী ইসলামাবাদস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন গত ৮ই আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিনী মহীয়সী নারী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯১তম জন্মবার্ষিকী যথাযথ মর্যাদার সাথে পালন করেছে। 

  এ উপলক্ষে চ্যান্সারী ভবনে বাণী পাঠ, আলোচনা সভা, ভিডিও চিত্র প্রদর্শন ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিতহয়। এ ছাড়াও দূতালয় প্রাঙ্গন ব্যানারও পোস্টারে সজ্জিত করা হয়। বাংলাদেশ হাইকমিশনের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ এতে অংশগ্রহণ করেন।

  পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুরু হয়। এরপর দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ করা হয়।

  আলোচনা পর্বে হাইকমিশনের কর্মকর্তাগণ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের কর্মময় জীবনের উপর বিস্তারিত আলোচনা করেন। 

  হাইকমিশনার মোঃ রুহুল আলম সিদ্দিকী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিনী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে তাঁর বক্তব্যে বলেন, বঙ্গমাতা ছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুরর হমানের একজন যোগ্য ছায়াসঙ্গী। তিনি জাতির পিতার সাথে একই স্বপ্ন দেখতেন এবং বাঙালির অধিকার আদায়ের সংগ্রামে সবসময় ছিলেন সজাগ ও দূরদর্শী। তিনি একদিকে যেমনি সংসার সামলিয়েছেন, তেমনি অন্যদিকে স্বাধীনতা ও মুক্তি সংগ্রামে প্রেরণা, শক্তি ও সাহস দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে উৎসাহ যুগিয়েছেন। বাঙ্গালীর অধিকার আদায়ের সুদীর্ঘ সংগ্রামের সময় তাঁর প্রজ্ঞা এবং পরামর্শ বঙ্গবন্ধুর সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণকে সহজ করেছে। তিনি ছিলেন একজন দৃঢ়চেতা, দূরদর্শী, সাহসী ও বুদ্ধিমতী নারী। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তির সংগ্রামের ইতিহাসে তাঁর অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। 

  হাইকমিশনার আরো উল্লেখ করেন, স্বাধীনতার পর জাতির পিতার সঙ্গে তিনি যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করেন এবং নির্যাতিত মা-বোনদের চিকিৎসার ব্যবস্থাসহ তাদের মর্যাদা সম্পন্ন পুনর্বাসনের উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

  তিনি বলেন, বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকীর এ বছরের প্রতিপাদ্য ‘‘বঙ্গমাতা সংকটে সংগ্রামে নির্ভীক সহযাত্রী’’ যথার্থই তাঁর জীবন ও কর্মকান্ডের প্রতিফলন। একজন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী হয়েও বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিব সবসময় সাদামাটা জীবন যাপন করতেন। তিনি ছিলেন নির্লোভ, নিরহংকার ও পরোপকারী। ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট এর কালরাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সাথে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিবও সপরিবারে স্বাধীনতা ও দেশ বিরোধী অপশক্তির হাতে শাহাদতবরণ করেন।

  হাইকমিশনার মোঃ রুহুল আলম সিদ্দিকী বলেন, একজন গৃহিনী হয়েও কিভাবে দক্ষ সংগঠক হিসেবে জাতীয় জীবনে অনবদ্য অবদান রাখা যায় বঙ্গমাতা তারই উজ্জ্বল নিদর্শন। তাঁর আদর্শ যুগে যুগে শুধু বাঙালি নারীদের জন্য নয় সকল বাঙালীর জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে। 

  আলোচনা সভা শেষে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জীবনী ভিত্তিক একটি প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়। 

  আলোচনা পর্ব শেষে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিবসহ ১৫ই আগস্ট শহীদ তাঁর পরিবারের সকল সদস্যের আত্মার মাগফেরাত এবং দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

সোলায়মান আলী যুক্তরাষ্ট্র আ’লীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত
পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের অগ্রগতি জাতিসংঘে তুলে ধরলেন প্রতিনিধি দল
নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত
সর্বশেষ সংবাদ