ঢাকা শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১
সিডও সনদের পূর্ণ অনুমোদন ও অভিন্ন পারিবারিক আইন প্রণয়নের দাবি
  • রেখা দাস
  • ২০২১-০৯-০৪ ০০:০৪:০৮

নারী-পুরুষের শারীরিক গঠন ভিন্ন, এটা স্বাতন্ত্রের প্রতীক। আবার নারী-পুরুষ উভয়ের রক্ত লাল, এটা অভিন্নতার প্রতীক। একইভাবে কোন কোন ক্ষেত্রে অধিকারের প্রকৃতি ভিন্ন হলেও নারী-পুরুষের অধিকার অভিন্ন। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, নারীরা বহু বছর ধরে অসম অধিকার সম্বলিত আইনের আওতায় জীবন-যাপন করছে। যুগ যুগ ধরে নারীরা শোষিত, বঞ্চিত ও নিগৃহীত হয়ে আসছে। ভারতীয় উপ-মহাদেশে ১৮২৯ সালে সতীদাহ প্রথা নিষিদ্ধ হয়। হিন্দু সমাজের এই নিষ্ঠুর ঘৃণ্য প্রথায় জানিনা কত নারীর ঈশ্বর প্রদত্ত সুন্দর জীবন পুড়ে ছাই হয়েছে। এর ২৬ বছর পর ১৮৫৬ সালে বিধবাদের অমানবিক জীবন থেকে রক্ষার জন্য বিধবা বিবাহ আইন গৃহীত হয়। এভাবে রামমোহন রায়, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ও অন্যান্য প্রগতিশীল সমাজ সংস্কারকদের প্রচেষ্টায় হিন্দু সমাজ থেকে বিভিন্ন কু-প্রথা অপসারিত হয়। অন্যদিকে সৈয়দ আমীর আলী, আব্দুল লতিফ, সৈয়দ আমীর হোসেন, বিবি তাহেরুন নেসা, ফয়জুননেসা চৌধুরানী, করিমুন ন্নেছা প্রমুখ আধুনিক মনস্ক সমাজ সংস্কারকদের অবদানে ধর্মীয় অনুশাসনে গৃহবন্দী মুসলিম নারীরা শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পায়। রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন মুসলিম নারীদের উচ্চশিক্ষার দ্বার উন্মোচন করেন। 
  ব্রিটিশ পরাধীনতার নাগপাশ ছিন্ন করার দৃঢ় প্রত্যয়ে বীরত্বের সাথে সংগ্রাম করে জীবন উৎসর্গ করেন ঝাসির রাণী লক্ষীবাই এবং প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার। ১৯৪৭ এর ভারত বিভক্তির পর ১৯৫২ এর ভাষা আন্দোলন, ১৯৬৬ এর ছয়দফা, ১৯৬৯ এর গণঅভ্যূত্থান, ১৯৭১ এর স্বাধীনতা যুদ্ধ, বাংলাদেশের অভ্যুদয় এবং পরবর্তীতে বাংলাদেশের উন্নয়নে নারীদের অবদান উল্লেখযোগ্য। স্বাধীনতার পর আমরা দীর্ঘ পঞ্চাশ বছর অতিক্রম করেছি। এই সুদীর্ঘ পথ পরিক্রমায় সমঅধিকার প্রতিষ্ঠার অনেক সফলতা রয়েছে। জ্ঞান বিজ্ঞানের অগ্রগতিতে আমরা এক অভূতপূর্ব আলোকিত যুগে বাস করছি। সমাজে আমূল পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। পরিবর্তীত সমাজের সাথে নারীর মানসিকতা এবং চাহিদার পরিবর্তন ঘটেছে। কিন্তু সমাজের পরিবর্তনের সাথে সাথে অন্যায়, অবিচার, অসমতা নতুন নতুন রূপ নিয়ে যেন আবির্ভূত হচ্ছে, আর এগুলোকে সমূলে উৎপাটন করতে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ সহ নারীবান্ধব প্রতিষ্ঠান সমূহের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।
  বর্তমানে নারীর প্রতি সহিংসতা ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে। নারী ঘরে-বাইরে কোথাও নিরাপদ নয়। স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, কর্মক্ষেত্র সর্বত্রই হতাশাজনক পরিবেশ বিরাজ করছে। নারীর মানবাধিকার আজ পদদলিত, ভুলুণ্ঠিত। তাই নারীর মানবাধিকার ও মৌলিক স্বাধীনতার উন্নতি বর্ধন ও উৎসাহিতকরণের লক্ষ্যে ১৯৭৯ সালের ১৮ই ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে গৃহিত হয়- Convention on the Elimination of All Forms of Discrimination Against Women (CEDAW)। এটি নারীর প্রতি সব ধরনের বৈষম্য বিলোপ সনদ। এই সনদে নারীর প্রতি বৈষম্যমূলক  আচরণের অবসানের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়েছে। এছাড়া এতে পারিবারিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক জীবনে পুরুষের পাশাপাশি নারীর সমান অধিকার ও দায়িত্বের কথা বলা হয়েছে। এই সনদের ১৪(গ) ও ২ ধারায় নারীর প্রতি বৈষম্য সৃষ্টিকারী আইন প্রণয়নসহ উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করার কথা বলা হয়েছে। বাংলাদেশ ১৯৮৪ সালের ৬ই নভেম্বর এই সনদ অনুমোদন করে স্বাক্ষর করে। যদিও আইনগত বাধ্যবাধকতা নেই তথাপি বাংলাদেশ সহ অন্যান্য রাষ্ট্রের উচিৎ এই সনদের আদর্শ অনুসরণ ও বাস্তবায়ন করা। সিজে সনদের পূর্ণ অনুমোদন ও এর নীতিমালা অনুসরণের পথে এক বিরাট বাঁধা আমাদের দেশের ভিন্ন ভিন্ন ধর্মের ভিন্ন ভিন্ন পারিবারিক আইন। পারিবারিক আইনের কতিপয় বিধান সমূহ নারী পুরুষের বৈষম্যকে করেছে ব্যাপক থেকে ব্যাপকতর।
  বাংলাদেশ সংবিধানের ২৮ অনুচ্ছেদের ১দফায় বলা হয়েছে, কেবল ধর্ম, বর্ণ, গোষ্ঠী, নারী-পুরুষ ভেদ বা জন্মস্থানের কারণে কোন নাগরিকের প্রতি রাষ্ট্র বৈষম্য প্রদর্শন করবে না। কিন্তু বাস্তবক্ষেত্রে তা বাস্তবায়ন করা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। পারিবারিক আইনগুলোতে এমন কিছু বিধান রয়েছে, যা নৈতিক বিচারে অসমর্থনযোগ্য। নারীকে যে পূর্ণ মানুষ হিসেবে বিচেচনা করা হয় না এই আইনগুলো তার আরো একটি প্রমাণ। এটি নারীকে পুরুষতান্ত্রিক সমাজ কর্তৃক অঙ্কিত গন্ডীতে পাকাপোক্তভাবে আবদ্ধ রাখার একটি দলিল।
  মুসলিম উত্তরাধিকার আইনে কন্যা সন্তান পুত্র সন্তানের অর্ধেক সম্পত্তি পায়। হিন্দু উত্তরাধিকার আইনে পুত্র সন্তান থাকলে কন্যা সন্তান কোন সম্পত্তি পায় না। আবার পুত্র সন্তান না থাকলেও কন্যাদের সম্পত্তি পেতে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। পারিবারিক আইন না থাকায় নৃ-গোষ্ঠীর নারীরাও সম্পত্তির অধিকার থেকে বঞ্চিত। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা হিন্দু পারিবারিক আইন অনুসরণ করে থাকে। খ্রিস্টান নারীরা কিছুটা সুফল ভোগ করলেও অনেক সময় জটিল পরিস্থিতির শিকার হতে হয়। নারীর অন্তর্নিহিত শক্তিগুলোর বিকাশের মাধ্যমে আত্মনির্ভরশীল হয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণের জন্য সম্পত্তি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আর এই সম্পদ থেকে নারীকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। এই বঞ্চনার পিছনে দেখানো হচ্ছে ভিত্তিহীন যুক্তি। হিন্দু পারিবারিক আইনে অসবর্ণ বিবাহ ও বিবাহ বিচ্ছেদের অনুমোদন নেই যা ব্যক্তি স্বাধীনতার অধিকার লংঘন করে। এছাড়া বিবাহ নিবন্ধন ও এই আইনে আবশ্যিক নয়। ফলে নারীরা প্রতারণার শিকার হচ্ছে আবার আইনের সাহায্য গ্রহণে বাঁধাপ্রাপ্ত হচ্ছে। এছাড়া দত্তকগ্রহণ, ভরণপোষণ ও অভিভাবকত্ত্বের ক্ষেত্রেও হিন্দু নারীর মর্যাদা ক্ষুন্ন ও অধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। পারিবারিক আইনের ভ্রান্ত বিধান নারী-পুরুষ সমতা আনয়নে বাঁধার সৃষ্টি করছে।
  উক্ত পরিস্থিতিতে একটি সমতাভিত্তিক, যুক্তিসঙ্গত, গ্রহণযোগ্য অভিন্ন পারিবারিক আইন সর্বস্তরের মানুষের কাম্য। অভিন্ন পারিবারিক আইন কার্যকর হলে নারীরা সর্বক্ষেত্রে সমান অধিকার ভোগ করবে এবং পরিবার, সমাজ, রাজনীতি, অর্থনীতি ও সংস্কৃতিতে অবদান রাখতে সমর্থ হবে। কেবল নারীর স্বার্থে নয় সমগ্র জাতীর স্বার্থে নারীকে জাতীয় উন্নয়নের স্রোতধারায় সম্পৃক্ত করতে হবে। সুতরাং সিডও সনদের পূর্ণ অনুমোদন এবং অভিন্ন পারিবারিক আইন প্রণয়নের জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি। লেখক ঃ সদস্য ও কর্মী, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, রাজবাড়ী জেলা শাখা। 

 

সিডও সনদের পূর্ণ অনুমোদন ও অভিন্ন পারিবারিক আইন প্রণয়নের দাবি
সৈয়েদেনা হযরত ইমাম হোসাইন শহীদে কারবালা(আঃ) এঁর ১০ মহররম স্মরণে-
আমার চোখে আমার বাবা
সর্বশেষ সংবাদ