ঢাকা শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১
রাজবাড়ীতে বিভিন্ন স্থানে হাতি দিয়ে চাঁদাবাজী॥সাধারণ মানুষের বিড়ম্বনা
  • মীর সামসুজ্জামান সৌরভ
  • ২০২১-০৯-১৪ ০০:৫৭:১৭
রাজবাড়ী শহরের বিভিন্ন সড়কে গতকাল ১৩ই সেপ্টেম্বর সকাল থেকে এ ভাবেই শুঁড় উঁচু করে যানবাহন থামিয়ে হাতি টাকা নিচ্ছে -মাতৃকণ্ঠ।

করোনা পরিস্থিতি, বন্যাসহ নানা কারণে বিপাকে পড়েছেন সার্কাসসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে পোষা হাতি ভাড়া দেওয়া হাতির মালিকরা। 
  আগে হাতির ভাড়া থেকেই চলতো তাদের সংসার খরচ ও হাতির খাবারের খরচ। কিন্তু দীর্ঘ দিন সার্কাস বন্ধ থাকায় নিজেদের সংসার খরচ ও হাতির খাবারের খরচ জোটাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের। ফলে অনেকটা বাধ্য হয়েই হাতির মালিকরা রাস্তায় চাঁদাবাজীতে নেমেছেন। হাতি নিয়ে তারা পথচারী, দোকানী ও যানবাহনের চালক ও যাত্রীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করছেন।
  গতকাল ১৩ই সেপ্টেম্বর সকালে রাজবাড়ী শহরের বিভিন্ন সড়কে দেখা যায়, হাতি দিয়ে গাড়ী থামিয়ে টাকা নেওয়া হচ্ছে। পথচারী, যানবাহনের যাত্রী-চালক ও দোকানীরা টাকা দিলেও অনেকে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন। হাতির মালিকরা পেটের দায়ে রাস্তায় নামেন বললেও জনগণ এটাকে একপ্রকার চাঁদাবাজী হিসেবেই দেখছে।  
  দেখা যায়, বড় একটি হাতি মহাসড়ক দিয়ে হাঁটছে। হাতির পিঠে বসে আছেন রাজু নামের একজন মাহুত। তিনিই হাতিটির মালিক। পাকা সড়ক ধরে শুঁড় উঁচু করে হেলে দুলে চলছে হাতিটি। যানবাহন দেখলেই শুঁড় উঁচু করে সামনে গিয়ে দাঁড়াচ্ছে। টাকা না দেওয়া পর্যন্ত ছাড়ছে না। যাত্রী ও চালকদের কেউ কেউ টাকা দিচ্ছেন, আবার কেউ কেউ বিরক্তি প্রকাশ করছেন। 
  আজিজ মন্ডল নামে একজন পথচারী বলেন, বাসা থেকে বের হয়ে বাজারের দিকে যাচ্ছিলাম। পথে হাতি সামনে এসে দাঁড়ায়। তারপর শুঁড় উঁচু করে টাকা চায়। টাকা দিতে না চাইলে হাতিটি হুংকার দেয়া শুরু করে। শুঁড় উঁচু করে সামনের দিকে তেড়ে আসে। পরে ১০ টাকা দিলে শুঁড় নামায়।
  অটোরিকশার যাত্রী শহিদুল ইসলাম বলেন, যাওয়ার সময় হাতিটি সামনে এসে দাঁড়িয়ে শুঁড় দিয়ে চেপে ধরে। ১০ টাকা করে দিতে হবে। কম দিলে তা গ্রহণ করে। পরে ১০ টাকা দিলে হাতিটি তার মাহুতের কাছে টাকাটা নিয়ে দেয়।
  রাজবাড়ী সদর উপজেলার উড়াকান্দা এলাকার রশিদ মন্ডল নামে একজন দোকানী বলেন, সকালে দোকান খোলার কিছুক্ষণ পরই একটি হাতি আসে। দোকানের মধ্যে শুঁড় ঢুকিয়ে দিয়ে টাকা চায়। পরে ১০ টাকা দিলে চলে যায়।
  স্থানীয় একাধিক দোকানী অভিযোগ করে বলেন, হাতি দোকানের সামনে এসে দাঁড়ালে ক্রেতারা ভয়ে দোকানে ঢুকতে সাহস পান না। বিড়ম্বনা এড়াতে দোকান মানিকরা বাধ্য হয়ে টাকা দিয়ে দেন। যাতে হাতি তাড়াতাড়ি দোকানের সামনে থেকে চলে যায়। 
  হাতির মাহুত রাজুর কাছে পথচারীদের কাছ থেকে টাকা নেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সবাই খুশি হয়ে দিচ্ছে-তাই নিচ্ছি। এটাকে চাঁদাবাজী বলা চলে না। করোনার কারণে দীর্ঘদিন সার্কাস বন্ধ। আয়-রোজগার নেই। তাই পেটের দায়ে বাধ্য হয়েই রাস্তায় নামি। পথচারী, যানবাহনের চালক-যাত্রী ও দোকান থেকে টাকা তুলি। হাতি দিয়ে প্রতিদিন দুই হাজার টাকার মতো আয় হয়। তা দিয়ে হাতির খাবারসহ নিজের সংসার খরচ চালাই।
  রাজবাড়ী থানার ওসি মোঃ শাহাদাত হোসেন বলেন, রাস্তায় হাতি দিয়ে চাঁদাবাজির বিষয়ে আমার জানা নেই। এ ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নিব।

‘অতি জরুরি’ ভিত্তিতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন জোরদারের দাবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার
করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিনকে সার্বজনীন গণপণ্য ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
সংবাদ সম্মেলনে নিজেকে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী ঘোষণা দিলেন কাজী কেরামত আলী
সর্বশেষ সংবাদ