ঢাকা রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২
বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদের পরিচিতি-অর্জন ও সাফল্যসমূহ
  • জয়দেব পাল
  • ২০২২-০৩-২৬ ০১:৫৬:২৫

বাংলাদেশ মৎস্য সম্পদে অত্যন্ত সমৃদ্ধ। এ দেশের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে আছে অসংখ্য পুকুর-দিঘী, ডোবা-নালা, নদ-নদী, খাল-বিল ও হাওড়-বাঁওড়। দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল জুড়ে রয়েছে বিশাল হাওড় এলাকা, যা আমাদের মৎস্য সম্পদের সূতিকাগার হিসেবে পরিচিত। বাংলাদেশে ৩ দশমিক ৫ লাখ হেক্টর আয়তনের প্রায় ১৩ লাখ পুকুর-দিঘী রয়েছে। দেশের ২৪ হাজার কিঃ মিঃ দীর্ঘ নদ-নদীর আয়তন প্রায় ১০ দশমিক ৩২ লাখ হেক্টর। এছাড়া রয়েছে ১ দশমিক ১৪ লাখ হেক্টর জলায়তনের প্রায় ১১ হাজার বিল, ৫ হাজার ৪৮৮ হেক্টর আয়তনের বাঁওড়, ৬৮ হাজার ৮০০ হেক্টর কাপ্তাই হ্রদ, প্রায় ২.০০ লাখ হেক্টর সুন্দরবন খাড়ি অঞ্চল এবং ২৮ দশমিক ৩ লাখ হেক্টরের বিশাল প্লাবন ভূমি। 
  বাংলাদেশে প্রচুর স্বাদু(মিঠা) পানির ও লোনা পানির মাছ পাওয়া যায়। এ দেশের স্বাদু পানিতে প্রায় ২৬০ প্রজাতির মাছ এবং ২৪ প্রজাতির চিংড়ি পাওয়া যায়। এছাড়াও বর্তমানে আরও ১২ প্রজাতির বিদেশী মাছ বাংলাদেশের প্রায় সর্বত্রই চাষ হচ্ছে। পার্বত্য জেলাসমূহে ক্রিকের মাধ্যমেও মাছ উৎপাদনে সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হচ্ছে। বাংলাদেশে সামুদ্রিক মৎস্য উৎপাদন মূলত আহরণ-নির্ভর। উপকূলব্যাপী ৭১০ কিঃ মিঃ দীর্ঘ তটরেখা থেকে ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত ১ দশমিক ৬৬ লাখ বর্গ কিঃমিঃ বিস্তৃত বিশাল সমুদ্রে মৎস্য সম্পদ উন্নয়নের সুযোগ রয়েছে। 
  বাংলাদেশের সামুদ্রিক জলসম্পদে ৩৬ প্রজাতির চিংড়ি এবং ৪৭৫ প্রজাতির মাছ রয়েছে। বর্তমানে বঙ্গোপসাগর থেকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রল ফিশিং এবং আর্টিসেনাল মৎস্য আহরণের মাধ্যমে মোট ৪ দশমিক ৩৯ লাখ টন মৎস্য আহরণ করা হচ্ছে।
  বাংলাদেশের ১৭ কোটি জনসংখ্যার ১২ শতাংশেরও বেশী অর্থাৎ প্রায় ২ কোটি ৪ লক্ষ মানুষ তাদের জীবিকা নির্বাহের জন্য প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে মৎস্য খাতের সাথে জড়িত। অভ্যন্তরীণ মৎস্য সম্পদের মতো সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদের ক্ষেত্রেও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মৎস্যজীবীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। যান্ত্রিক ও অযান্ত্রিক নৌযানে মৎস্য আহরণে নিয়োজিত প্রায় ২ দশমিক ৭০ লাখ মৎস্যজীবীর পরিবারের ন্যূতম ১৩ দশমিক ৫০ লাখ মানুষের জীবিকা নির্বাহ হচ্ছে উপকূলীয় সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদের মাধ্যমে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে গণভবন লেকে আনুষ্ঠানিকভাবে মাছের পোনা অবমুক্ত করে মৎস্য চাষকে সামাজিক আন্দোলনে রূপ দেওয়ার শুভ সূচনা করেছিলেন। ওই সময় বঙ্গবন্ধু ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন-‘মাছ হবে এ দেশের দ্বিতীয় প্রধান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী সম্পদ।’ জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী ও প্রাজ্ঞ নেতৃত্বে মৎস্যবান্ধব বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণের ফলে বঙ্গবন্ধুর সেই স্বপ্ন আজ সফল হয়েছে। এর ফলে একদিকে যেমন দেশ আজ মাছে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ায় সাধারণ মানুষ স্বল্পমূল্যে মাছ ও পুষ্টি পাচ্ছে; অন্যদিকে দেশে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে বেকারত্ব দূর হচ্ছে। 
  জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণে মৎস্য অধিদপ্তর বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদের টেকসই উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে এবং দেশের বিশাল মৎস্য সম্পদের ব্যবস্থাপনা এবং মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে। জাতীয় জিডিপিতে মৎস্য খাতের অবদান ৩.৫২ শতাংশ এবং মোট কৃষি জিডিপির এক-চতুর্থাংশের বেশী (২৬.৩৭%) মাছের অবদান। মোট রপ্তানী আয়ের ১.৩৯ শতাংশ মাছ এবং মৎস্য পণ্যের অবদান (ইঊজ, ২০২০)। নারীসহ দেশের মোট জনসংখ্যার ১২% এরও বেশী মানুষ প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জীবিকা নির্বাহের জন্য মৎস্য খাতের আওতাধীন বিভিন্ন কর্মকান্ডে জড়িত। বাংলাদেশ মাছ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে। বর্তমানে মাথা পিছু মাছের ব্যবহার ৬০ গ্রাম/দিনের বিপরীতে ৬২.৫৮ গ্রাম/দিনে উন্নীত হয়েছে (ইইঝ, ২০১৬)। 
  বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় মৎস্য উৎপাদনকারী দেশগুলির একটি হিসাবে, অভ্যন্তরীণ উন্মুক্ত জলাশয়ে মাছ আহরণে বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয়, এফএও থেকে প্রকাশিত রিপোর্ট (দ্যা স্টেট অফ ওয়ার্ল্ড ফিসারিজ এন্ড অ্যাকোয়া কালচার, ২০২১) অনুয়ায়ী বিশ্বব্যাপী চাষের মাছ উৎপাদনে ৫ম, অভ্যন্তরীণ মুক্ত জলাশয়ের মাছ উৎপাদনে বিশ্বে দ্বিতীয়, ইলিশ আহরণে বাংলাদেশের অবস্থান ১ম এবং তেলাপিয়ার উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বের মধ্যে ৪র্থ এবং এশিয়া মহাদেশের মধ্যে তৃতীয়। মৎস্য খাতে স্থিতিশীল প্রবৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। ২০১৯-২০২০ সালে মোট মাছের উৎপাদন ৪৫.০৩ লক্ষ মেট্রিক টন এবং ২০২০-২১ সালে লক্ষ্যমাত্রা ৪৫.৫২ লক্ষ মেট্রিক টন। মাছ উৎপাদনে অভাবনীয় অগ্রগতি হয়েছে। ২০০৯-১০ অর্থ বছরে দেশে মাছের উৎপাদন ছিল ২৮ লাখ ৯৯ হাজার টন, ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে দেশে মাছের মোট উৎপাদন ছাড়িয়েছে ৪৫ লাখ ৩ হাজার টন। ফলে এক দশকে মাছ উৎপাদন বেড়েছে ১৬ লাখ টন বা প্রায় ৫৫ শতাংশ। ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে জিডিপিতে মৎস্য খাতের অবদান ১৩ দশমিক ৪৭ শতাংশ। ২০২০-২১ অর্থ বছরে মৎস্য পণ্য রপ্তানী করে প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হয়েছে, যা ২০০৮-০৯ অর্থ বছরে ছিল ৩২৪৩.৪১ কোটি টাকা। ঐতিহাসিক সমুদ্র বিজয়ের মাধ্যমে বঙ্গোপসাগরে ১ লক্ষ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গ কিলোমিটার জলসীমায় আইনগত একচ্ছত্র অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে। শীর্ষ ইলিশ উৎপাদনকারী দেশ বাংলাদেশ। ইলিশের উৎপাদন ২.৯৮ লক্ষ মেঃ টন থেকে বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় ৫.৩৩ লক্ষ মেঃ টনে উন্নীত। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর আওতায় জাটকা সমৃদ্ধ ১৭ জেলার ৮৫টি উপজেলায় জাটকা আহরণে বিরত থাকতে ২ লাখ ৩৮ হাজার ৬৭৩ জন জেলে পরিবারকে মাসিক ৪০ কেজি করে ৪ মাসের জন্য মানবিক খাদ্য সহায়তা কর্মসূচীর আওতায় মোট ৩৮,১৮৭.৬৮ মেঃ টন চাল প্রদান করা হয়েছে। বিভিন্ন নদ-নদী ও অভ্যন্তরীণ মুক্ত জলাশয়ে ৫৩৪টি মৎস্য অভয়াশ্রম স্থাপন করা হয়েছে। অত্যন্ত পুষ্টি সমৃদ্ধ ও ঔষধি গুণসম্পন্ন কুচিয়া রপ্তানী করে ১৪ মিলিয়ন ডলার মূল্যের বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হয়েছে। মৎস্য চাষ প্রযুক্তি ও চিকিৎসা সেবাসহ যে কোন ধরনের সমস্যার জন্য যে কোন মোবাইল ফোন হতে ১৬২১৬ নম্বরে মৎস্য কল সেন্টারের মাধ্যমে পরামর্শ সেবা পাওয়া যাচ্ছে।
  বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ হওয়ার দূরদর্শী লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করেছে এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা ও গতিশীল নেতৃত্বে এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ সঠিক পথেই এগিয়ে যাচ্ছে। জাতির উন্নয়নে সরকারের গৃহীত স্বপ্ন-প্রেরণা ‘ভিশন ২০২১’ এর অনুকরণে ‘ভিশন ২০৪১’ গৃহীত হয়েছে। এর লক্ষ্য হলো চরম দারিদ্রের অবসান ঘটানো এবং সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণ। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের মাধ্যমে ২০৩১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উচ্চ মধ্যম আয়ের মর্যাদা পাবে এবং দারিদ্রতা দূর করে একটি উন্নত দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে। বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে একটি সমৃদ্ধ, উন্নত ও দারিদ্রমুক্ত রাষ্ট্রে পরিণত করতে সমষ্টিগত, একটি অভিযোজিত জাতীয় ব্যবস্থা তৈরীতে সরকার অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। সমৃদ্ধ হোক বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা, জয় বাংলাদেশ। 
(লেখক পরিচিতি ঃ সাবেক জেলা মৎস্য অফিসার, রাজবাড়ী। বর্তমানে জেলা মৎস্য অফিসার, খুলনা)।

 

মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল কেন জরুরী
বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণা
বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদের পরিচিতি-অর্জন ও সাফল্যসমূহ
সর্বশেষ সংবাদ