ঢাকা শনিবার, মে ২৮, ২০২২
৫২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আজ॥বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস
  • ক্রিষ্টিনা মারিও রেখা দাস
  • ২০২২-০৪-০৪ ০০:৩৫:৪৮

বাংলাদেশের নারী আন্দোলনের পথিকৃত বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে শক্তিশালী নেতৃত্ব গড়ে তোলার অঙ্গীকার নিয়ে ৫২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করছে। “সমতার চেতনা প্রতিষ্ঠা করি, নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে শক্তিশালী নেতৃত্ব গড়ে তুলি”- এই শ্লোগান নিয়ে সংগঠনটি এ বছর প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করছে। নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা ও নারী জাগরণের অঙ্গীকার নিয়ে ১৯৬৯ সালের ৪ঠা এপ্রিল বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ প্রতিষ্ঠিত হয়।
  বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ একটি স্বেচ্ছাসেবী আন্দোলনমুখী গণ নারী সংগঠন। সকল প্রকার পশ্চাৎপদতা, শোষণ ও বৈষম্য থেকে নারী সমাজের মুক্তি ও নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা এবং নারী-পুরুষের সমতাভিত্তিক অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক, মানবিক সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করাই এর লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ প্রতিষ্ঠার একটি দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে। ১৭৫৭ সালে ভারতে উপনিবেশ যুগ শুরু হয়। বৃটিশ শাসনের সূত্রপাত হয়। ভারতের মানুষ  ইংরেজী শিক্ষা ও আধুনিক জীবনের সাথে পরিচিত হয়। যেসব মহান পুরুষরা সমাজের সার্বিক প্রগতির জন্য চিন্তা করতেন তারা সমাজের কুসংস্কার ও কুপ্রথা উচ্ছেদে সচেষ্ট হন। রামমোহন রায়ের প্রচেষ্টায় ১৮২৯ সালে সতীদাহ প্রথা নিষিদ্ধ হয়। ১৮৫৬ সালের ২৬শে জুলাই ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের উদ্যোগে বিধবা বিবাহ আইন প্রণীত হয়। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, মদন মোহন তর্কালঙ্কার, কালীকৃষ্ণ দেব, হরচন্দ্র ঘোষ প্রমুখ ব্যক্তিবর্গের পরিচালনায় ১৮৪৯ সালের ৭ই মে ক্যালকাটা ফিমেল স্কুল প্রতিষ্ঠিত হয়, যা বেথুন স্কুল নামে পরিচিত। 
  মুসলিম নারীদের পশ্চাৎপদতার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন বিবি তাহেরুন্নেসা, ফয়জুন্নেসা চৌধুরাণী, করিমুন্নেসা খানম প্রমুখ। নবাব ফয়জুন্নেসা চৌধুরাণী ১৮৭৩ সালে কুমিল্লায় মুসলিম নারী স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৭৮ সালে ঢাকায় প্রতিষ্ঠিত হয় ইডেন গার্লস স্কুল। ১৯১০ সালে বেগম রোকেয়া মেয়েদের জন্য উচ্চ বিদ্যালয় ‘সাখাওয়াত মেমোরিয়াল গার্লস স্কুল’ প্রতিষ্ঠা করেন। এ সময় মেয়েরা অধিকার সচেতন হয়ে ওঠে এবং লেখালেখি শুরু করে। নারী কল্যাণমূলক বিভিন্ন সভা-সমিতি গড়ে ওঠে। ব্রাক্ষিকা সমাজ, অবলাবান্ধব, সখী সমিতি এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য। ক্রমান্বয়ে রাজনীতিতে নারীদের প্রবেশ ঘটে। ১৯১৬ সালে রোকেয়া প্রতিষ্ঠা করেন আঞ্জুমানে খাওয়াতীনে ইসলাম। ১ম বারের মতো নারীদের ভোটাধিকারের পটভূমিকায় ১৯২১ সালে গঠিত হয় বঙ্গীয় নারী সমাজ। ১৯২৪ সালে লীলা রায়ের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয় দীপালী সংঘ। ১৯২৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় নিখিল ভারত মহিলা সংগঠন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পটভূমিকায় ১৯৪৩ সালে গড়ে ওঠে নিখিল বঙ্গ মহিলা আত্মরক্ষা সমিতি। সমগ্র বাংলার বিভিন্ন স্থানে এই সমিতি গড়ে ওঠে এবং দুর্ভিক্ষ পীড়িত নারী ও শিশুদের সাহায্যার্থে ব্যাপকভাবে কাজ করে। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনেও নারীদের অংশগ্রহণ ছিলো উল্লেখযোগ্য। ব্রিটিশ বিরোধী অহিংস ও সশস্ত্র আন্দোলনে যেসব নারীরা যুক্ত ছিলেন তারা প্রত্যেকেই ছিলেন এক একটা সংগঠন। অহিংস আন্দোলনে ছিলেন সরোজিনী নাইড়ু, বাসন্তী দেবী, উর্মিলা দেবী, নেলী সেনগুপ্তা ও আশালতা সেন। সশস্ত্র আন্দোলনে ছিলেন প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার, শান্তি ঘোষ, সুনীতি চৌধুরী, কল্পনা দত্ত, বীণা দাস, উজ্জ্বলা মজুমদার, লীলা নাগ ও কল্পনা দাসগুপ্ত। 
  ১৯৪৭ সালে ভারত বিভক্তির পর পাকিস্তান রাষ্ট্রের জন্ম হলো। কিন্তু পূর্ব পাকিস্তান উপনিবেশে পরিণত হলো। এ সময় নিখিল বঙ্গ আত্মরক্ষা সমিতিকে পাকিস্তান সরকার বেআইনী ঘোষণা করে। ১৯৪৭ সালে সাঁওতাল বিদ্রোহে নেতৃত্ব দেওয়ায় ইলা মিত্রের উপর চালানো হয় অমানুষিক অত্যাচার। ১৯৪৯ সালে পাকিস্তান সরকারের অনুগত মহিলাদের নিয়ে ‘আপওয়া’ গঠন করা হয়। ১৯৫০ সালে কবি সুফিয়া কামাল ওয়ারী মহিলা সমিতি গঠন করেন। এ সময় প্রগতিশীল ছাত্রী সংগঠনের উদ্যোগে গড়ে ওঠে মহিলা সমিতি। পূর্ব পাকিস্তানের বিভিন্ন জেলায় অবস্থানরত প্রগতিশীল নারীরা ময়মনসিংহ শহরে একটি সম্মেলনের মাধ্যমে গড়ে তোলেন পূর্ব পাকিস্থান মহিলা সমিতি। উদ্যোক্তাদের মধ্যে ছিলেন জুঁইফুল রায়, নিবেদিতা নাগ, পূর্ণিমা বকশী, রীনা চক্রবর্তী, মজিরা খাতুন, মনোরমা বসু, হেনা দাস, জ্যোৎস্না নিয়োগী, ভানু দেবী ও সুফিয়া কামাল। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে নারীরা মিছিল করায় এবং বিভিন্ন সভায় যোগ দেওয়ায় কারাবরণ করেন।
  ১৯৫৮ সালে পাকিস্তান সরকার সব ধরনের সভা-সমিতি নিষিদ্ধ ঘোষণা করায় নারী সংগঠনের সদস্যরা বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে একত্রিত হয়ে ঘরোয়া আলোচনায় অংশ নিতেন। ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানে নারীরা ব্যাপকভাবে অংশগ্রহণ করে এবং স্বাধীকারের দাবীতে গড়ে তোলেন পূর্ব পাকিস্তান মহিলা সংগ্রাম পরিষদ। সুফিয়া কামালকে সভাপতি এবং মালেকা বেগমকে আহ্বায়ক করে এই কমিটি গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করেন ছাত্রী নেতৃবৃন্দ। ছাত্রী নেতৃবৃন্দের মধ্যে ছিলেন ডাঃ মাখদুমা নার্গিস, আয়শা খানম, মুনিরা আক্তার, কাজী মমতা হেনা এবং ডাঃ ফওজিয়া মোসলেম (যিনি বর্তমানে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সভাপতি) প্রমুখ। পূর্ব পাকিস্থানের বিভিন্ন অঞ্চলে মহিলা সংগ্রাম কমিটি গড়ে ওঠে। মহিলাদের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ সংগঠনের আকাঙ্খার প্রেক্ষিতে ১৭৯০ সালের ৪ঠা এপ্রিল নারীমুক্তি ও মানবমুক্তির দর্শন নিয়ে জন্ম হয় পূর্ব পাকিস্তান মহিলা পরিষদের। 
  ১৯৭১ এর মার্চে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ নারীদেরকে সংগঠিত করে এবং অসহযোগ আন্দোলনে অংশগ্রহণে উদ্বুদ্ধ করে। এই আন্দোলনে নারীদের মিছিলে নেতৃত্ব দেন পূর্ব পাকিস্তান মহিলা পরিষদের সভাপতি কবি সুফিয়া কামাল। অসংখ্য নারী মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন। প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে ক্যাম্পে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা সেবা দেন-যাদের অনেকেই ছিলেন এই পরিষদের সদস্য। বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের পর এর নাম হয় ‘বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ’। স্বাধীন বাংলাদেশে রাষ্ট্র পরিচালনায় নারীর সমঅংশীদারীত্ব, নারীর রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন, আইন সংস্কার প্রভৃতি ক্ষেত্রে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের ভূমিকা ছিল অনস্বীকার্য। ১৯৯০ সালে সর্বপ্রথম বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে মিছিল বের করে। ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হয় এরশাদ। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ বিজয় মিছিল বের করে। নারীর প্রতি বৈষম্য দূরীকরণ এবং নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ ও প্রতিকারের জন্য বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক দিবস পালন করে থাকে। যেমন- সিডো দিবস, আন্তর্জাতিক নারী দিবস, আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ, বিশ্ব মানবাধিকার দিবস ইত্যাদি। এই দিবসগুলো পালন উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ কর্তৃক সংবাদ সম্মেলন ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। তৃণমূল পর্যায়ে নারী নির্যাতন বিরোধী সংস্কৃতি গড়ে তুলতে পাড়া কমিটিগুলোতে প্রশিক্ষণ, আলোচনা সভা ও উঠান বৈঠকের আয়োজন করা হয়। এছাড়া জাতীয় দিবসগুলোও মর্যাদার সাথে পালন করা হয়।
  বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ নির্যাতনের শিকার নারীদেরকে আইনী সহায়তা প্রদান করে এবং পুনর্বাসনের মাধ্যমে জীবনের মূল ধারায় নিয়ে আসে। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ১৯৮৫ সালে প্রতিষ্ঠা করে সহিংসতার শিকার নারীদের নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্র ‘রোকেয়া সদন’। এখানে নারীদেরকে তাদের যোগ্যতা অনুযায়ী পুনর্বাসন করা হয়। জেন্ডার সংবেদনশীল মানব সম্পদ এবং জেন্ডার সমতাপূর্ণ সমাজ গড়তে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ কর্মী, সাংবাদিক এবং আইনজীবীদের জন্য জেন্ডার, নারীর ক্ষমতায়ন ও উন্নয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ পরিচালনা করে থাকে। শক্তিশালী নেতৃত্ব গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে ১৬-৩০ সেপ্টেম্বর পালন করা হয় সাংগঠনিক পক্ষ। এই লক্ষ্যে পরিষদে তরুণ প্রজন্মকে সম্পৃক্তকরণ প্রক্রিয়া আন্দোলনে নতুন মাত্রা এনে দিয়েছে। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ দেশের যে কোন ধরনের অন্যায়, অবিচার, দুর্নীতি এবং সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ ও অবস্থান কর্মসূচী পালন করে থাকে। দুর্যোগ ও মহামারীতে দুস্থ নারীদেরকে ত্রাণ সামগ্রী ও অর্থ সহায়তা করে থাকে। এছাড়া জাতিসংঘের বিভিন্ন সম্মেলনে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের প্রতিনিধিরা যোগদান করেন এবং নিয়মিত প্রতিবেদন পেশ করেন। 
  বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ অভিন্ন পারিবারিক আইন (ইউনিফর্ম ফ্যামিলি কোড- ইউএফসি) প্রণয়নের লক্ষ্যে ১৯৮৯ সাল থেকে কাজ করছে এবং ১৯৯২ সালে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোতে প্রস্তাবনা পেশ করে। নারীর সমঅধিকার, মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য অভিন্ন পারিবারিক আইন প্রতিষ্ঠায় আন্দোলন অব্যাহত রেখেছে। অভিন্ন পারিবারিক আইনের যৌক্তিকতা এই যে, পারিবারিক আইনগুলো ধর্মীয় আইন দ্বারা নির্ধারিত-এতে নারী পুরুষের সমতা প্রতিষ্ঠিত হয়নি। অভিন্ন পারিবারিক আইন প্রতিষ্ঠিত হলে বিবাহ, বিবাহ বিচ্ছেদ, ভরণ-পোষণ, অভিভাবকত্ব এবং উত্তরাধিকারের সমঅধিকার নিশ্চিত হবে।
  নারীর প্রতি সকল প্রকার বৈষম্য বিলোপ সনদ সিডো জাতিসংঘ কর্তৃক কার্যকর হয় ১৯৮১ সালের সেপ্টেম্বরে। বাংলাদেশ এই সনদে স্বাক্ষর করে ১৯৮৪ সালে। কিন্তু বাংলাদেশ এখনো এই সনদের ২নং ধারা এবং ১৬ (১ এর গ) ধারা সংরক্ষিত রেখেছে। যদিও এই দু’টি ধারার মধ্যে নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার সকল বিষয় নিহিত রয়েছে। ধর্মীয় সমাজ-সংস্কৃতির দোহাই দিয়ে এই দু’টি ধারা অনুমোদন করছে না। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ দীর্ঘদিন এই দু’টি ধারা অনুমোদনের মাধ্যমে সিডো সনদের পূর্ণ বাস্তবায়নের জন্য আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে। এভাবে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ নারী সমাজের সার্বিক মুক্তির লক্ষ্যে শোষণ ও বৈষম্যহীন, নারী-পুরুষের সমতাভিত্তিক, গণতান্ত্রিক, অসাম্প্রদায়িক, মানবিক সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় বহুমুখী কাজ করে যাচ্ছে। (লেখক পরিচিতি ঃ সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, রাজবাড়ী জেলা শাখা)

 

“শিশুদের জন্য সোনালী বিকেল” অনুষ্ঠানের প্রবক্তা ডিসি কল্লোল এখন মহিলা ও শিশু মন্ত্রণালয়ের সচিব
আমার দেখা ৭১-এর গণহত্যা
আজ ৮ই মে ঃ বিশ্ব থ্যালাসেমিয়া দিবস
সর্বশেষ সংবাদ