ঢাকা মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২
গোয়ালন্দে ফেস্টুন লাগানোকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগ নেতার অফিস ভাংচুর
  • গোয়ালন্দ প্রতিনিধি
  • ২০২২-০৭-১৪ ০১:৫১:১৪

রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দে ঈদের শুভেচ্ছা ফেস্টুন লাগানোকে কেন্দ্র করে গত ৯ই জুলাই রাতে গোয়ালন্দ বাজারস্থ রিদয় সুপার মার্কেটের ২য় তলায় উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবির হোসেন রিদয়ের ব্যক্তিগত অফিস ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। 

  এ ব্যাপারে আবির হোসেন রিদয় বাদী হয়ে গোয়ালন্দ পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রাতুল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আকাশ সাহাসহ ৭জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাতনামা ১২/১৩ জনকে আসামী করে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে।

  আবির হোসেন রিদয় জানায়, ঈদের আগের রাতে সে তার ব্যক্তিগত অফিসে দলীয় কর্মীদের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করছিল। এমন সময় রাত ৯টার দিকে পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রাতুল আহমেদ ২০/২৫ জন অনুসারী নিয়ে তার অফিসে প্রবেশ করে পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম মন্ডলের বাড়ীর সামনে লাগানো তার ফেস্টুন কেন সরানো হয়েছে জানতে চায়। এক ঘন্টার মধ্যে পুনরায় ওই স্থানে তার ফেস্টুন লাগানোর কথা বললে সে উত্তেজিতভাবে অফিস থেকে বের হওয়ার সময় দরজায় সজোরে ধাক্কা মারে। এর প্রতিবাদ করলে সে অফিসের চেয়ার-টেবিল ও গ্লাস ভাংচুর করে। এছাড়া টেবিলে থাকা কলমদানি ছুড়ে মারলে তা প্রধানমন্ত্রীর ছবিতে লেগে বাঁধানো কাচ ভেঙ্গে যায়। সুমন নামে এক কর্মী বাধা দিলে তাকে মারধর করে ও টেবিলের ড্রয়ারে থাকা ৭০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। 

  এ ব্যাপারে গোয়ালন্দ পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রাতুল আহমেদ বলেন, মেয়রের বাসার সামনে আমার লাগানো ফেস্টুন আমাকে না জানিয়ে সরিয়ে আবির হোসেন রিদয়ের ফেস্টুন স্থাপন করে। সেটি কেন সরানো হয়েছে তা জানতে তার অফিসে যাই। সে পুনরায় আমার ফেস্টুন স্থাপনের কথা বললে আমরা ফিরে আসি। পরে শুনতে পাই তার অফিস ভাংচুরের অভিযোগ করে আমাদেরকে দায়ী করা হচ্ছে। 

  গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব ঘোষ বলেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের অফিসে যে ঘটনাটি ঘটেছে তা দুঃখজনক। পরবর্তীতে উপজেলা ছাত্রলীগ ও পৌর ছাত্রলীগ পৃথক কর্মসূচী আহ্বান করায় অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে গত ১২ই জুলাই রাতে দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বসে উভয় পক্ষের কর্মসূচী স্থগিত এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মামুন অর রশিদকে আহ্বায়ক করে ৯ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটি তিন দিনের মধ্যে রিপোর্ট পেশ করবে। এতে কেউ দোষী সাব্যস্ত হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে। 

  এছাড়া সমস্যার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের সকল ধরনের কর্মকান্ডের উপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।      

  উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোস্তফা মুন্সী বলেন, ছাত্রলীগের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি থেকে উদ্ভুত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তবে এটা সাময়িক সমস্যা বলে মনে করি। তারা সবাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক। এ বিষয়ে আমরা বসেছিলাম। একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির রিপোর্টের আলোকে পরবর্তীতে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ছাত্রদল-যুবদলের ১৪ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলার ঘটনায় সাবেক এমপি খৈয়মের নিন্দা
জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানকে মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রীর ফুলেল শুভেচ্ছা
সম্মেলনের ১বছরেও রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি
সর্বশেষ সংবাদ