ঢাকা শুক্রবার, জুন ১৪, ২০২৪
রাজবাড়ীর রাজনৈতিক ইতিহাসের নতুন অধ্যায় মন্ত্রী জিল্লুল হাকিম
  • শিপন আলম
  • ২০২৪-০৫-২৬ ১৬:৪২:৫৫

২০১৮ সালের ব্যক্তিগত একটি ঘটনা দিয়ে শুরু করি। আমি তখন রাজবাড়ী সরকারী আদর্শ মহিলা কলেজে হিসাব বিজ্ঞান বিভাগে প্রভাষক হিসেবে কর্মরত ছিলাম। এক বন্ধুর মারফত খবর পেয়ে একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক পদে চাকরির জন্য আবেদন করি। বিভিন্ন মাধ্যমে জানতে পারি যোগ্যতার পাশাপাশি নিজ আসনের সংসদ সদস্যর ডিও লেটার(ডেমি-অফিসিয়াল লেটার) চাকরি প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বাড়তি সুবিধা প্রদান করে। ফলে ডিও পত্র প্রাপ্তির আশায় যোগাযোগ করি আমার নিজ সংসদীয় এলাকার এমপি’র সাথে। আর এ কাজে সহযোগিতা করেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সাবেক সদস্য ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক প্রয়াত ড. কে এম মোহসীন। তখন ছিল ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগ মুহুর্ত। মনোনয়ন প্রার্থিতা নিয়ে স্বভাবতই এমপি খুব ব্যস্ততার মধ্যে সময় পার করছিলেন। খানিকটা উৎকণ্ঠাও ছিল তাঁর মধ্যে। কারণ মনোনয়নের জন্য তাঁর প্রতীকে তিনি ছাড়াও আরও কয়েকজন প্রার্থী দৌড় ঝাঁপ করছিলেন। এমন অস্থির ও ব্যস্ত সময়ে তাঁর সাথে দেখা করার জন্য আমিও সাহস করছিলাম না। এর কিছুদিন আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বন্ধুর মাধ্যমে আমার ফেসবুক টাইমলাইনে মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রতিদ্বন্দ্বী এক প্রার্থীর সাথে আমার ও ওই বন্ধুর বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের একটি ছবি শেয়ার হয় যেটি কি না যে কোন মাধ্যমে এমপির দৃষ্টিগোচর হয়। এমন টালমাটাল মুহুর্তে এমপির কাছ থেকে ডিও লেটার পাবো এমনটি আশা করাই দূরূহ ছিল। কিন্তু আমাকে ও ব্যাপারটি জানেন এমন সবাইকে অবাক করে দিয়ে প্রথম সাক্ষাতেই তিনি ডিও লেটারে স্বাক্ষর করে দেন। আমার চাকরি না হলেও এ ঘটনা থেকেই অনুধাবন করতে পারি কেমন উদার, প্রশস্ত ও পরোপকারী হৃদয়ের মানুষ তিনি। আর এই মুক্তমনা উদার মনের মানুষটিই হলেন রাজবাড়ী-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা জননেতা মোঃ জিল্লুল হাকিম। যিনি বর্তমান সরকারের গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের একটি রেলপথ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
 ১৯৮৪ সালের ১লা মার্চ রাজবাড়ী জেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেলেও গুরুত্বপূর্ণ ভৌগোলিক অবস্থান ও বিপুল সম্ভাবনা সত্ত্বেও স্বাধীনতার আগে ও পরে কোন আমলেই শুধু যোগ্য রাজনৈতিক নেতৃত্বের অভাবে রাজবাড়ী জেলায় প্রত্যাশিত উন্নয়ন সম্ভব হয়নি। পাকিস্তান আমলে স্বাধীন পাকিস্তানের প্রথম স্পীকার ও আইয়ুব সরকারের দুই বারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি ছিলেন রাজবাড়ী জেলার বসন্তপুরের কৃতি সন্তান তমিজ উদদীন খাঁন। জেলা সৃষ্টির পর বর্তমান মন্ত্রী জিল্লুল হাকিমের আগ পর্যন্ত রাজবাড়ী জেলার ভাগ্যে জুটেছে মাত্র ২জন প্রতিমন্ত্রী। এই দু’জনের একজন ছিলেন ১৯৯১-৯৬ সালে বিএনপি সরকারের আমলে সাংস্কৃতিক প্রতিমন্ত্রী জাহানারা বেগম এবং ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে প্রায় ১বছরের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রী(মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন রাজবাড়ী-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী।
 ফলে রাজবাড়ী জেলার ইতিহাস বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, জেলা সৃষ্টির আগে ও পরে কোন সময়েই রাজবাড়ী জেলার ১,২০৪ বর্গ কিঃ মিঃ আয়তন বিশিষ্ট ভৌগোলিক সীমারেখা থেকে কোন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বই পূর্ণ মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনের সুযোগ পাননি। ব্রিটিশ বিতাড়নের ৭৬ বছরের মন্ত্রিত্বের দীর্ঘ বঞ্চনা থেকে যিনি রাজবাড়ীবাসীকে মুক্ত করেন তিনিই মোঃ জিল্লুল হাকিম। তাঁর হাত ধরেই রাজবাড়ী জেলায় এক নব ইতিহাস রচিত হয়। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত বর্তমান সরকারের রেলপথ মন্ত্রী হিসেবে যোগদানের মাধ্যমে তিনিই হয়েছেন রাজবাড়ী জেলার নতুন রাজনৈতিক ইতিহাস স্রষ্টা।
 রাজবাড়ী জেলার তিনটি উপজেলা পাংশা, কালুখালী ও বালিয়াকান্দি নিয়ে গঠিত রাজবাড়ী-২ আসন। এ আসনে যোগ্য রাজনৈতিক নেতার অভাব না থাকলেও মোঃ জিল্লুল হাকিমের বিকল্প হিসেবে এখানকার জনসাধারণ এখনো কাউকে ভাবতে পারেননি। তাই টানা ৪বারসহ মোট ৫বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য তিনি।
 রণাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা তিনি। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তি সংগ্রামে তিনি যুদ্ধকালীন কমান্ডার হিসেবে অসীম ত্যাগ ও সাহসিকতা প্রদর্শন করেন। তাঁর নেতৃত্বে রাজবাড়ী জেলায় পাক হানাদারদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি সফল অপারেশন পরিচালিত হয়। বঙ্গবন্ধুর আহবানে সাড়া দিয়ে মহান মুক্তি সংগ্রামে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে তিনি যে চারিত্রিক দৃঢ়তা ও কঠোরতা অর্জন করেছিলেন তা সারা জীবনই বহন করেছেন আপন মহিমায়। তাঁর চারিত্রিক এই দৃঢ়তা ও কঠোরতার প্রতি মুগ্ধ হয়েই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রেলপথ মন্ত্রণালয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব ন্যস্ত করেছেন যাতে করে মন্ত্রী নিজ গুণে সেখানে শৃঙ্খলা ও সুব্যবস্থাপনা ফিরিয়ে আনেন।
 বীর মুক্তিযোদ্ধা এ জননেতা ১৯৫৪ সালের ২রা জানুয়ারী রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার আনন্দবাজার গ্রামে এক মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈত্রিক নিবাস পাংশা উপজেলার নারায়ণপুর গ্রামে। এলাকার বিশিষ্ট সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিত্ব মোঃ আবুল হোসেন ছিলেন তাঁর পিতা। তাঁর মায়ের নাম লুৎফুন্নাহার মিনা। হাবাসপুর গ্রামের সম্ভ্রান্ত খান পরিবার তাঁর নানা বাড়ি। মরহুম আবদুল কাদের খান ছিলেন তাঁর নানা আর মরহুম শরিফা খানম ছিলেন তাঁর নানী। শৈশবের অনেক সোনাঝরা সুন্দর দিন কেটেছে তাঁর এ বাড়িতেই। তাছাড়া মহান মুক্তিযুদ্ধের যুদ্ধকেন্দ্রিক অনেক স্মৃতির আধারও তাঁর এই নানা বাড়িটি।
 ছাত্র জীবন থেকেই জিল্লুল হাকিম রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। লেখাপড়া করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নন্দিত অধ্যাপক মরহুম প্রফেসর ড. কে এম মোহসীন ছিলেন তাঁর মামা ও প্রত্যক্ষ শিক্ষক।
 রাজনীতির পাশাপাশি তিনি একজন সফল ব্যবসায়ী। তাঁর স্ত্রী সাঈদা হাকিম এবং দুই ছেলে মিতুল হাকিম ও রাতুল হাকিমও সফল ব্যবসায়ী। ব্যবসার পাশাপাশি বড় ছেলে মিতুল হাকিম রাজনীতির সাথেও প্রত্যক্ষভাবে জড়িত। জনসাধারণের দৃষ্টিতে তিনিই পিতার ভবিষ্যত যোগ্য উত্তরসূরী। তর একমাত্র মেয়ে চিকিৎসা সেবার মতো মহৎ পেশায় নিয়োজিত।   
 জিল্লুল হাকিম রাজবাড়ী জেলার প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতা। রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ দীর্ঘদিন যাবৎ তিনিই অলংকৃত করে আছেন।
 দ্বাদশ নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত মন্ত্রিসভায় রেলপথ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব গ্রহণের মাধ্যমে তিনি রাজবাড়ীবাসীর দীর্ঘদিনের চাওয়াকে পাওয়ায় পরিণত করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর উপর আস্থা রেখে বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে যুগোপযোগী ও কাঙ্খিত যোগাযোগ মাধ্যম রেলপথের আধুনিকায়ন ও স্মার্ট রেল ব্যবস্থা বিনির্মাণের লক্ষ্যে গুরুত্বপূর্ণ এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বটি তাঁর কাঁধেই ছেড়ে দিয়েছেন। এক বক্তৃতায় তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে বলেছেন, “আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছিলাম রাজবাড়ী জেলা এ পর্যন্ত কোন পূর্ণ মন্ত্রী পায়নি- এবারে যেন সেই অপ্রাপ্তি পূর্ণ হয়। তিনি আমাকে নিরাশ করেন নি। আমাকে পূর্ণ মন্ত্রীর দায়িত্ব দিয়ে তিনি আমার পাশাপাশি পুরো রাজবাড়ীবাসীকে সম্মানীত করেছেন। এজন্য আমরা তাঁর নিকট কৃতজ্ঞ।”
 রেলপথ মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পরই তিনি রেলওয়ের দুর্নীতির মূলোৎপাটনের ঘোষণা দিয়েছেন। রেলের দখলকৃত জমি উদ্ধার ও টিকিট কালোবাজারি বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে এর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করেছেন। রেলের জন্য পর্যাপ্ত জনবল নিয়োগের বিষয়টিও তাঁর মাস্টার প্ল্যানে রয়েছে। রেলওয়ের বর্তমান উন্নয়ন ধরে রেখে ভবিষ্যতে এটির আরও সম্প্রসারণের মাধ্যমে গোটা দেশকে রেল-নেটওয়ার্কের আওতায় নিয়ে এসে রেলকে একটি নিরাপদ ভ্রমণের বাহন ও লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তর করাই তাঁর মন্ত্রণালয়ের প্রধান লক্ষ্য বলে তিনি মনে করেন।
 ইতোমধ্যেই রেলপথ ব্যবস্থায় সুবাতাস বইতে শুরু করেছে। মন্ত্রীর প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় এ বছরের এপ্রিল মাসের ৫ তারিখে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণে ইচ্ছুক ১২৫ জন পরীক্ষার্থীকে নিয়ে যাত্রাকারী ঢাকা-রাজশাহীগামী ধূমকেতু এক্সপ্রেসের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ প্রতিকূল পরিস্থিতি সত্ত্বেও নির্দিষ্ট সময়ে পরীক্ষার্থীদের পৌছে দিয়ে অত্যন্ত মানবিকতাবোধ আর দায়িত্ববোধের পরিচয় দিয়েছেন। তাছাড়া তাঁর সুপরিকল্পিত স্মার্ট দিক-নির্দেশনায় গত ঈদুল ফিতরের ট্রেন যাতায়াত অন্যান্য বারের তুলনায় যথেষ্ট স্বস্তিদায়ক ছিল। এসবই রেল ব্যবস্থার আগামীর সুদিনকেই নির্দেশ করে।
 নিজ জেলা ও নিজ সংসদীয় আসন রাজবাড়ী জেলার রেলপথ ব্যবস্থাসহ সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যেও তিনি বাস্তবসম্মত উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। কোন ভালো উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে হলে নিজ ঘর থেকেই শুরু করতে হয়- এই মন্ত্রে বলীয়ান হয়ে তিনি নিজ ঘর পাংশা থেকেই রেলওয়ের জমিতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের কাজ শুরু করেছেন। রেলের জমি উদ্ধারের মাধ্যমে রেলের শহর রাজবাড়ীর ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন তিনি। রাজবাড়ীতে দক্ষিণাঞ্চলীয় রেলওয়ের বিভাগীয় কার্যালয় ও বাংলাদেশ রেলওয়ের সবচেয়ে বড় মেরামত কারখানা স্থাপনের জন্য নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন তিনি। চেষ্টা করছেন রাজবাড়ীবাসীর দীর্ঘদিনের চাওয়া রাজবাড়ী জেলাকে দ্বিতীয় পদ্মা সেতু বা টানেলের মাধ্যমে সরাসরি ঢাকার সাথে সংযোগ স্থাপনের। তাছাড়া গত বছর রাজবাড়ী জেলায় ইউজিসি প্রস্তাবিত একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের কাজটি যাতে অতি দ্রুত শুরু হয় সে লক্ষ্যেও কাজ করছেন তিনি।
 আজীবন সংগ্রামী বীর মুক্তিযোদ্ধা জননেতা মোঃ জিল্লুল হাকিম কঠোরতা ও কোমলতার মিশেলে একজন নিখাদ মানুষ। ইতিহাস পড়তে পড়তে তিনি নিজেই এখন হয়ে উঠেছেন ইতিহাস স্রষ্টা- রাজবাড়ী জেলার রাজনৈতিক ইতিহাস এখন শুধু তাঁকেই নিয়ে আবর্তিত। জেলার উন্নয়নে তিনি যে বিরাট কর্মযজ্ঞ হাতে নিয়েছেন তা বাস্তবায়িত হলে তিনি পরিণত হবেন একজন মহানায়কে। রাজবাড়ীবাসীর নিকট এখন তাঁর একটিই চাওয়া তিনি যেন সুস্থতার সাথে সুন্দরভাবে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক অর্পিত দায়িত্ব আস্থার সাথে পালন করতে পারেন। 

লেখক : শিপন আলম, সহকারী অধ্যাপক হিসাববিজ্ঞান বিভাগ, সরকারী সা’দত কলেজ, করটিয়া, টাঙ্গাইল।

 

রাজবাড়ীর রাজনৈতিক ইতিহাসের নতুন অধ্যায় মন্ত্রী জিল্লুল হাকিম
রাজবাড়ী-১ আসনে নৌকা প্রত্যাশী ফ্রান্স প্রবাসী আশরাফুলের পক্ষে দলীয় মনোনয়ন ফরম দাখিল
চন্দনীতে ঘোষণা : রাজবাড়ী-১ আসনে মনোনয়ন চাইবেন আকবর আলী মর্জি
সর্বশেষ সংবাদ