ঢাকা রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২
সারা জাহানের খুসবু হুসাইন ইবনে আলী এবং কারবালা
  • নাসিম শফি
  • ২০২২-০৮-০৯ ০০:৫১:৩২

প্রফেট হযরত মোহাম্মদ(সাঃ) এর জিগরের টুকরা আর মা ফাতেমার নয়নের মণি হযরত হাসান ও হুসাইন(আঃ) এর উপর অসংখ্য হাদীস শরীফ বর্ণিত হয়েছে। তাঁদের মর্যাদা ও শান এবং গুণাবলী স্বল্প পরিসরে বলা বা লেখা প্রায় অসম্ভব। যখন স্বয়ং রাব্বুল আলামিন তাদের প্রতি ভালোবাসা প্রতিষ্ঠিত করতে নামাজের মধ্যে তাদের শানে দরুদ শরীফ পড়াকে বাধ্যতামূলক করেছেন। যাদের শানে দরূদ ও সালাম না পড়লে নামাজই হয় না, তবে তাদেরকে কোন উদ্দেশ্যে মাবিয়া এবং তার কুলাঙ্গার সন্তান এজিদ এত নির্মমভাবে হত্যা করলো ?
  আমরা যদি ইতিহাস থেকে পর্যালোচনা করি তখন দেখতে পাই মাবিয়া এবং তার বংশধররা ছিল ক্ষমতালোভী। মাবিয়া হযরত হাসান(আঃ) সাথে চুক্তি ভঙ্গ করে তার মদ্যপ ছেলে এজিদকে ক্ষমতায় বসায়। যে কিনা প্রথমে হাসান (আঃ)কে বিষ প্রয়োগ করে হত্যা করে এবং পরে হযরত হোসাইন (আঃ)কে মদিনা শরীফ এবং মক্কা শরীফ ত্যাগ করতে বাধ্য করে। এজিদের পিতা মাবিয়ার চরিত্রের সামান্য কিছু এখানে উল্লেখ্য করছি, যে কিনা প্রফেট মোহাম্মদ(সাঃ) এর বহু প্রিয় সাহাবীকে হত্যা করে। মাবিয়া হচ্ছে ইসলামের সর্বনাশের মূল। ইসলামের জঘন্যতম শত্রু আবু সুফিয়ান। আর তার এক পাপী শত্রু উৎবা তার কন্যা হিন্দা। এই হিন্দাই হযরত মোহাম্মদ(সাঃ) তার প্রিয় চাচা হযরত হামজা(রাঃ) এর কলিজা চিবিয়ে খেয়েছিল। আমাদের প্রফেট হযরত মোহাম্মদ(সাঃ) তার মুখ দর্শন করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন। এই হিন্দাই আবু সুফিয়ানের স্ত্রী। এই দম্পতির কুলাঙ্গার পুত্র মাবিয়া মক্কা বিজয়ের পর প্রাণ রক্ষার্থে মৌখিকভাবে কালেমা পাঠ করে এবং ইসলাম ধর্মে দাখিল হয়। এই মাবিয়ার পুত্রই খলনায়ক এজিদ। যে শুধু হোসাইনকে নির্মমভাবে হত্যাই করেনি এবং পরবর্তীতে রাসূল পাকের পবিত্র রওজা শরীফ এবং কাবা শরীফ অগ্নিদগ্ধকারী। শুরু থেকেই উমাইয়ারা হযরত আলী ও হাসান হোসেনের বিরুদ্ধে ছিল। মূলত মাবিয়া প্রথম থেকেই হযরত আলী(রাঃ) এর সঙ্গে বেঈমানী করে ক্ষমতায় এসেছে। মদিনায় প্রত্যাবর্তনকালে গদিরে খুম নামক স্থানে বিশ্রাম করার সময় আল্লাহ্ রাব্বুল আলামিনের নির্দেশে সমবেত সঙ্গী-সাথী সাহাবীদের উদ্দেশে তিনি ঘোষণা দেন। বিদায় হজ্ব সমাপ্তির পর গদিরে খুমে... প্রফেট মোহাম্মদ(সাঃ) ঘোষণা করেন, আমি যার মওলা, আলী তার মওলা। মুসা (আঃ) এর নিকট হারুন(আঃ) যেমন আমার নিকট আলীও তেমন। হে সর্ব শক্তিমান আল্লাহ্ তুমি তার(আলী) বন্ধুদের বন্ধু হও ও আলীর শত্রুদের শত্রু হও। যারা তার সাহায্যকারী হয় তুমি তাকে সাহায্য কর এবং যারা তার সঙ্গে প্রতারণা করে তাদেরকে তুমি নিরাশ কর। (ইবনে খাল্লিকস ১ম খ-, পৃঃ ৩৮৩) এটা ঘটেছিল ১৮ই জিলহজ্ব। গাদির ই-খুম ও ঈদুল গাদির একই। অতঃপর আবু বকর ও ওমর তাহাকে(আলী) অভিনন্দন জানালেন। বললেন, হে আবু তালেবের সন্তান, প্রত্যেক মুমিন নর-নারীর মওলা হিসাবে অভিনন্দিত হইয়া তুমি সকাল করিবে এবং সন্ধ্যা করিবে। (নোট ঃ ঐতিহাসিক এ হাদিসটি কমপক্ষে ১১০ জন সাহাবা, ৮৪ জন তাবিইদ, ৩৫৫ জন ওলামা, ২৫ জন ঐতিহাসিক, ২৭ জন হাদিস সংগ্রাহক, ১১ জন ফিকাহ্বিদ, ১৮ জন ধর্মতান্ত্রিক ও ৫ জন ভাষাতান্ত্রিক কর্তৃক বর্ণিত হয়েছে)। এভাবেই কোরআনের আয়াতটি নাজিল হলো ঃ- ‘আজ কাফেরগণ তোমাদের দ্বীন হতে নিরাশ হয়ে গেছে। অতএব, তাদের ভয় করো না; ভয় করো আমাকে। দ্বীন আজ তোমাদের পূর্ণ করে দিলাম এবং তোমাদের দ্বীনের উপর রাজি হয়ে গেলাম।-সুরা মায়েদা-৯২, আয়াত-০৩। আমাদের প্রিয় নবীজি আল্লাহ্র কাছে শুকরিয়া আদায় করলেন দ্বীনকে কামেল করে দেওয়ার উপর এবং নেয়ামতকে পরিপূর্ণ করে দেওয়ার উপর সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ্র এবং আমার রেসালাতের উপর আল্লাহ্র সন্তুষ্টির জন্য এবং আবু তালেব নন্দন আলীর বেলাতের জন্য সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ্র। হযরত আহমেদ বিন হাম্বল তার মসনদে লিখেছেন, “রাসুলে পাক(সাঃ) বলেছেন, আলী আমার হইতে আর আমি আলী হতে, আমার পর সেই তোমাদের অভিভাবক।” আল্লাহ্ এবং রসুলের নির্দেশ মানা মুমিনদের জন্য ফরজ। পবিত্র কোরআনে ঘোষণা করছেন, ওমা ইয়ানতকু আনিল হাওয়া ইন হুয়া ইল্লা ওয়াহ রউন ইউহা (সুরা নজম ঃ ৩-৪)। অর্থ ঃ হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) নিজ প্রবৃত্তি হতে কোন কথা বলেন না, বরং যাহা বলেন তাহা আল্লাহ্র পক্ষ থেকে অবতীর্ণ অহি বটে। হযরত আব্বাস(রাঃ) বলেন, নবী পাকের অসুস্থতা বেড়ে গেলে তিনি বলেন আমার কাছে কাগজ-কলম নিয়ে এসো। আমি এমন কিছু লিখে দেবো যাতে তোমরা বিভ্রান্ত না হও। ওমর বললেন, রাসুলুুল্লাহ(সাঃ) রোগ যন্ত্রণা প্রবল হয়েছে। সাহাবীদের মধ্যে মত-বিরোধ দেখা দেয়ায় শোরগোল বেধে যায়। তখন রাসুলে পাক(সাঃ) বললেন তোমরা আমার কাছে থেকে উঠে যাও। আমার কাছে ঝগড়া-বিবাদ করা উচিত নয়-এইটুকু হাদীস বর্ণনা করে ইবনে আব্বাস(রাঃ) সেখান থেকে উঠে গিয়ে বললেন, হায় বিপদ, সাংঘাতিক বিপদ। (সূত্র ঃ সহীহ বুখারী, হাদিস-১১৫)। হযরত ইমাম গাজ্জালী (রাঃ) লিখেছেন, হুজুর (সাঃ) মৃত্যু শয্যায় বলেছিলেন শিগগিরই আল্লাহ্র দূত আমাকে নিয়ে যাবে, ইতিপূর্বে তোমাদেরকে বলেছি এবং এখনও বলছি যেন তোমাদের মধ্যে কোন ওজর অবশিষ্ট না থাকে। খবরদার আমি তোমাদের মাঝে আল্লাহ্র কিতাব এবং আমার ইতরাত রেখে যাচ্ছি। সুরা আজহাবের ৩৬ নং আয়াতে বলা আছে, আল্লাহ্ ও তার রাসুল কোন বিষয়ে নির্দেশ দিলে কোন মুমিন পুরুষ ও মুমিন নারীর সে বিষয়ে ভিন্ন সিদ্ধান্তের অধিকার থাকবে না। কেউ আল্লাহ্ ও তার রাসুলকে অমান্য করলে সে তো স্পষ্টত পথভ্রষ্ট হবে। সুরা হুজরাত আয়াত নং-২ : হে মুমিনগণ! তোমাদের নবীর কণ্ঠস্বরের উপর তোমাদের কণ্ঠস্বর উঁচু কোরোনা এবং নিজেদের মধ্যে যেভাবে উচ্চস্বরে কথা বলো তার সাথে সেরূপ উচ্চস্বরে কথা বলোনা। কারণ এতে তোমাদের কর্ম নিস্ফল হয়ে যাবে তোমাদের অজ্ঞাতসারে। অতঃপর তিনি হযরত আলী(রাঃ) এর হাত ধরে বললেন, আলী হচ্ছে কোরআনের সাথে এবং কোরআন আলীর সাথে এবং তারা উভয়ই পরস্পর থেকে বিচ্ছিন্ন হবে না যতক্ষণ তারা হাউজে কাউসারে আমার কাছে পৌঁছাবে। এই দুইয়ের কাছেই ইসলাম। খেলাফত না পেলেও হযরত আলী(রাঃ) তার পূর্ববর্তী তিন খলিফার আমলে ইসলামের বৃহত্তর স্বার্থে সর্বাত্মক সহযোগীতা করেছেন। তার জ্ঞান ছিল অপরিসীম। রাসুল(সাঃ) বলেন, “আনা মদিনাতুল ইলমে ওয়া আলীউ বাবুথ”-অর্থাৎ আমি হলাম জ্ঞানের নগর আর আলী হলেন তার দরজা। হে আলী তোমার মর্যাদা কাবার তুল্য। লোকেরা কাবার নিকট যায়, মর্যাদাশীল কাবা কারো নিকট গমন করে না। আমার ওফাতের পর লোকেরা তোমার নিকট এসে বায়াত গ্রহণ করলে তুমি তা গ্রহণ করো কিন্তু তারা যদি তোমার কাছে না আসে তুমি তাদের কাছে যেও না। দ্যা ওহ্সন বলেছেন হযরত মোহাম্মদ(সাঃ) এর অনুসারীবৃন্দ যদি তাদের গুরুর প্রদর্শিত পথে অগ্রসর হতেন এবং খোলাফায়ে রাশেদীনের আদর্শ অবলম্বন করতেন (যেমন হযরত আলী(রাঃ) এর সহিত মাবিয়া ধোঁকাবাজী করে সন্ধিচুক্তি ভঙ্গ করে মদ্যপ ছেলেকে ক্ষমতায় বসায়) তাহলে ইসলামের সা¤্রাজ্য রোমানদের সা¤্রাজ্যের চেয়ে বিশালতর ও অধিকতর স্বায়ী হতো। কিন্তু উমাইয়াদের লোভে, মাবিয়ার সিমপনের যুদ্ধে কোরআন শরীফ বর্ষার ফলকে নিয়ে হযরত আলীর সঙ্গে ধোঁকাবাজী, সন্ধি ভঙ্গ করে হযরত হাসান (আঃ)কে ক্ষমতায় না বসিয়ে নিজ পুত্র মদ্যপ এজিদকে বসিয়ে ইসলামের চরম অধঃপতন ঘটিয়েছিল। ওহ্সন আরও বলেন, ধূর্ত, বিবেক বর্জিত ও নির্মম উমাইয়া বংশের তাদের স্বার্থরক্ষায় এমন কোন অপরাধ নেই যা করতে সংকোচ বোধ করতো। প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বীকে অপসারণ করার জন্য হত্যাই ছিল তার চিরাচরিত রীতি। হযরতের দৌহিত্র হযরত হাসান (আঃ)কে তারা বিষ প্রয়োগে হত্যা করে। হযরত আলীর বীর সহকারী মালিক আল আশতারকে হত্যা করে। মাবিয়া তার ছেলের উত্তরাধিকার নিরাপদ করতে হযরত আলীর একমাত্র জীবিত পুত্র হুসাইনের সঙ্গে তার প্রদত্ত ওয়াদা ভঙ্গ করে। মাবিয়া সম্পর্কে বিশিষ্ট সাহাবী ও অলি-আল্লাহ্দের মতামত ঃ 
১। হযরত আলী(রাঃ) বলেছেন, আমার এবং মাবিয়ার মহব্বত এক সাথে কোন ব্যক্তির হৃদয়ে থাকতে পারে না। 
২। হযরত ওমর বলেছেন, সে(মাবিয়া) তোলাকাদের মধ্যে গণ্য। তার খেলাফত জায়েজ নয়। 
৩। হযরত সা’দ ইবনে আবি ওয়াক্কাস(রাঃ) বলেছেন, আল্লাহ কসম, যে অবস্থায় তুমি (মাবিয়া) ক্ষমতা নিয়েছে, আমি হলে তা কখনো গ্রহণ করতাম না। 
৪। আবুল আউলিয়া হযরত হাসান বসরি(রাঃ) বলেন, মাবিয়ার আখেরাত(পরকাল) ধ্বংস হওয়ার জন্য ইহাই যথেষ্ট যে, সে এজিদকে তার উত্তরাধিকারী মনোনীত করে তার বায়াত গ্রহণ করে। তিনি আরো বলেন, মাবিয়ার চারটি কাজের যে কোন একটি তার পরকাল ধ্বংস হওয়ার জন্য যথেষ্ট। (ক) মুসলিম উম্মাহর তথা বৈধ ইসলামী খেলাফতের বিরুদ্ধে অস্ত্র ধারণ করা ও শুরার পরামর্শ ব্যতীত ক্ষমতা দখল করা। (খ) আপন পুত্র এজিদকে স্থলাভিষিক্ত করে যাওয়া, যে ছিল শরাবী ও লম্পট। (গ) জিয়াদ (তার পিতার জারজ সন্তান)কে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য আপন ভাই হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া। (ঘ) রাসূল(সাঃ) এর বিশিষ্ট সাহাবী হাজর বিন আদি (রাঃ) ও তার সঙ্গীদের বিনা দোষে হত্যা করা। যে সমস্ত সাহাবা ও মহাপুরুষগণ মাবিয়াকে গোমরাহ ও পথভ্রষ্ট হিসেবে জানতেন তাঁদের তালিকা ঃ ১। উম্মুল মুমেনিন হযরত আয়েশা (রাঃ) ২। উম্মুল মুমেনিন হযরত উম্মে সালমাহ(রাঃ) ৩। আসহাবে রাসূল (সাঃ) হযরত আবু দারদা (রাঃ) ৪। আসহাবে রাসূল (সাঃ) হযরত আম্মার বিন ইয়াসির(রাঃ) ৫। আসহাবে রাসূল(সাঃ) হযরত কায়েস বিন সা’দ(রাঃ) ৬। আসহাবে রাসূল(সাঃ) আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস(রাঃ) ৭। আসহাবে রাসূল(সাঃ) আবুজর গিফারী(রাঃ) ৮। আসহাবে রাসূল(সাঃ) হাজর বিন আদি(রাঃ) ৯। হযরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর(রাঃ) ১০। হযরত আবদুল্লাহ ইবনে যুবাইর(রাঃ) ১১। হযরত ওয়াইছ করনি(রাঃ) (তাবেঈ) ১২। হযরত হাসান বসরি(রাঃ) (তাবেঈ) ১৩। হযরত সামমারা বিন জয়নব(রাঃ) ১৪। হযরত জারিয়া বিন ক্কাদামা(রাঃ) (তাবেঈ) ১৫। ইমাম নেছাঈ(রাঃ) ১৬। ইমাম ইছহাক বিন রাহুয়্যা ১৭। আল্লামা ইবনে জারির তাবারি ১৮। আল্লামা বিতে ইবনে জওযি ১৯। উস্তাদুল হিন্দু মোল্লা নেযাম উদ্দিন মুহাম্মদ লক্ষ্মৌবি ২০। শাহ আবদুল আযিজ মুহদ্দেস দেহলভি ২১। মৌলভি আকরাম উদ্দিন ২২। মৌলভি মুহাম্মদ আবুল কাসেম দেওবন্দি ২৩। শাহ আব্দুল হক মুহাদ্দেস দেহলভি (রাঃ) প্রমুখ। 
  হযরত হোসাইন(আঃ) এর শাহাদতের ঘটনা ঃ তোমরা কাফের হয়ে গেছ মুসলমান হওয়ার পর। সূরা তাওবা, আয়াত-৬৬। হোসাইন ইবনে আলীকে কাতিল করেছে তথাকথিত নামধারী মুসলমান যারা পাপিষ্ঠ এজিদের এবং তার বাবা মাবিয়ার অনুসারী। লানত তাদের উপর। হযরত ইমাম হোসেন(রাঃ) ভালোভাবেই বুঝতে পারছিলেন মদিনায় তার  থাকা নিরাপদ নয়। এজিদের সৈন্য তাকে বন্দী করতে আসবে এবং মদিনাতে রক্ত বন্যা বইয়ে দিবে। তাই তিনি মদিনা থেকে চলে যেতে চাইলেন। যাত্রার পূর্বে নানাজীর রওজা মোবারকে বসে সারা রাত্রী অশ্রুপাত করলেন এবং এক সময় ঘুমিয়ে পড়লেন। স্বপ্নের ভিতর দেখলেন প্রিয় নানাজী তার মস্তক কোলে নিয়ে বসে আছে এবং বললেন বেটা যত কঠিন বিপদই আসুক তাতে ভেঙ্গে পড়ো না। মনে রেখো, তুমি দুনিয়ায় বেশী দিন থাকবে না। অতি শীঘ্রই আমার নিকট  চলে আসবে। এই অস্থায়ী জীবনে সুখ ও আরামের জন্য দুর্নীতি ও অধর্মের নিকট মস্তক নত করিও না। তিনি মদিনা থেকে শুধুমাত্র তার পরিবারবর্গ, সন্তান-সন্তাদী ও একান্ত শুভাকাঙ্খী যারা তাকে একা ছাড়তে চাচ্ছিলেন না তাদেরসহ মদিনা থেকে মক্কায় চলে আসেন। তার কনিষ্ঠ কন্যা ফাতেমা ছোগড়াকে তার অসুস্থতার কারণে মদিনায় রেখে যান। পিতৃ শোকে কাতর হয়ে ফাতেমা ছোগড়া তার বাবার জামা ধরিয়ে কাঁদতে থাকেন। দুধের শিশু আলী আসগারকেও তিনি সঙ্গে নেন। মাত্র ৭২ জন সফর সঙ্গীসহ কুফাবাসীর শত শত চিঠির আহ্বানে(যারা তার হাতে বায়াত হতে চেয়ে চিঠি লিখেছিল), মক্কা থেকে কুফায় যান। এখানে উল্লেখ্য যে, মক্কাতে এজিদ গুপ্তঘাতক পাঠিয়েছিলেন ইমাম হোসাইনকে গুপ্ত হত্যা করার জন্য। কারণ তিনি এজিদের হাতে বায়াত গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন। প্রভু হোসাইন এর মর্যাদা বুঝতে হলে জানতে হবে তাকে আমাদের প্রফেট (সাঃ) কতটা ভালোবাসেন। ইমাম হোসাইন (রাঃ) ছিলেন প্রফেট (সাঃ) এর কলিজার টুকরা। আল্লামা নুরুদ্দিন আবদুর জামী (রাঃ) বলেন-‘মোহাম্মদ জানে আলম জামী ওয়া হোসাইন বিন আলী জানে মোহাম্মদ’-অর্থাৎ জানো কো জামী। সমস্ত জগতের জান হলেন মোহাম্মদ রাসুল্লুল্লাাহ (সাঃ) আর মোহাম্মদ (সাঃ) এর জান হলেন হোসাইন ইবনে আলী(রাঃ)। হাদিসে আমরা দেখতে পাই, রাসূল(সাঃ) বলেছেন, ‘যে হোসাইন এর হৃদয়ে কষ্ট দিয়েছে সে আমরাই হৃদয়ে কষ্ট দিয়েছে’। তেমনি আল্লাহ্পাক স্বয়ং যে ইমামদ্বয়কে মহব্বত করেন ও তাদের হৃদয়ে কষ্ট দিতে চান ইহা  নি¤েœর ঘটনা থেকে বুঝতে পারবো।  
  কানজুল সাবাযের গ্রন্থে আছে, একদিন প্রিয় নবীজি (সাঃ) মসজিদে নববীতে নামাজ আদায় করছিলেন। নামাজের মধ্যে তিনি সেজদায় গেলেন। ইমাম হোসাইন (রাঃ) (তখন ছোট ছিলেন) হুজরা হতে বের হয়ে প্রিয় নবীজি (সাঃ) এর কাঁধের উপর বসে পড়লেন। এমতাবস্থায় প্রিয় নবীজি(সাঃ) এর ইচ্ছা হয় নাই ইমামকে কাঁধ হতে নামিয়ে সেজদা হতে মাথা তুলতে। ইহাতে ইমাম সাহেবের হৃদয়ে কষ্ট হবে। কাজেই তিনি ততক্ষণ পর্যন্ত সেজদাতেই পড়েছিলেন যতক্ষণ না ইমাম সাহেব স্বেচ্ছায় নবীজি(সাঃ) এর কাঁধ হতে নেমে না গেলেন। এমতাবস্থায় সাহাবীগণ সবাই ধারণা করতে লাগলেন যে, নিশ্চয়ই প্রিয় নবীজি(সাঃ) এর উপর কোন অহী নাজিল হচ্ছে। নামাজ শেষে সাহাবীগণ সেজদায় এত দেরী হওয়ার কারণ জানতে চাইলে প্রিয় নবীজি(সাঃ) বললেন যে, ‘আমার বেটা হোসাইন সেজদার সময় আমার কাঁধে চড়ে বসে। আমি তার হৃদয়ে কষ্ট দিতে চাইনি, তাই যতক্ষণ স্বেচ্ছায় সে নেমে না যায় ততক্ষণ আমি সেজদা হতে মাথা উঠাতে পারিনি।’ কোন কোন রেওয়াতে দেখা যায় যে, সেই সেজদায় ৭০ বার ”সুবহানা রাব্বিয়াল আলা” পড়া হয়েছিল। এইরূপ অনেক হাদিস আছে যা দ্বারা প্রমাণীত হবে, প্রিয় নবীজি(সাঃ) ইমামদ্বয়কে অত্যধিক আদর মহব্বত করতেন। এই আদর মহব্বত শুধু রক্তের সম্পর্ক থাকার কারণেই করেননি। ইহার পিছনে আরও বহু অন্তর্নিহিত কারণ আছে। ইহার পিছনে তাঁদের শান, মান, মর্যাদার প্রসার লুকিয়ে আছে। সে জন্যই তিনি বলেছেন, ‘হোসাইন মিননি ওয়া আনা মিনাল হোসাইন।’ অর্থাৎ, হোসাইন আমা হতে এবং আমি হোসাইন হতে। 
  ইমামদ্বয়ের বয়স তখন খুবই কম। একবার এক ঈদের সময় তারা তাদের আম্মা হযরত ফাতেমা রাজিয়াল্লাহু আনহার নিকট নতুন জামা কাপড়ের বায়না ধরলেন।  যেহেতু হযরত ফাতেমা(রাঃ) অত্যন্ত গরীব ছিলেন এবং নতুন জামা-কাপড় কিনে দেওয়ার ক্ষমতা ছিল না, তাই ইমামদ্বয়ের এই আব্দার হতে নিজেকে বাঁচাবার জন্য তিনি বললেন, তোমাদের নানাজীর নিকট নতুন জামাকাপড় দিতে বল। ইমামদ্বয় তৎক্ষণাৎ নানাজীর দরবারে হাজির হয়ে বললেন, নানাজী, সবাই নতুন জামা-কাপড় পরে ঈদগাহে যাচ্ছে। আমাদের নতুন জামা-কাপড় চাই। প্রিয় নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর তখন নতুন জামা কাপড় দেয়ার ক্ষমতা ছিল না। কিন্তু ইমামদ্বয়কে কোন উত্তর দেয়ার আগেই দেখতে পেলেন যে, হযরত জিব্রাইল(আঃ) ইমামদ্বয়ের জন্য বেহেশতি পোশাক নিয়ে অবতরণ করছেন। বেহেশতি পোশাক ছিল সাদা। ইমামদ্বয় আবদার করলেন, তারা সাদা পোশাক নেবে না। জিব্রাইল(আঃ) এক বাটি পানি নিয়ে সেই পানিতে পোশাক দুইটি ভিজিয়ে উপরে তুললেন। তোলা মাত্র একটি পোশাক লাল বর্ণ ধারণ করলো এবং অন্যটি নীল বর্ণ ধারণ করলো। লাল পোশাক ইমাম হোসাইন এবং নীল পোশাক ইমাম হাসান (রাঃ) পছন্দ করলেন। জামা পাওয়ার পর ইমামদ্বয় আবার প্রিয় নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া আলিহি ওয়া সাল্লাম এর নিকট আবদার করলেন যে, সকলের মতো তারাও ঘোড়ায় চড়ে ঈদগাহে যাবেন। প্রিয় নবীজি(সাঃ) খুশি করার জন্য দুই দৌহিত্রকে নিজের দুই কাঁধে বসালেন এবং ঈদগাহের দিকে রওয়ানা দিলেন। ইমামদ্বয় নানাজীর নিকট পুনরায় আবদার করলেন, ঘোড়ায় লাগাম থাকে তাদের বাহনের লাগাম চাই। তিনি এই আবদার রক্ষার জন্য নিজের জুলফি মোবারক দুই ভাগ করে একভাগ ইমাম হোসাইনকে আর একভাগ ইমাম হাসান (রাঃ)কে দিলেন। ইমামদ্বয় আবার আবদার করলেন, সবার ঘোড়া যেভাবে ডাকে তাদের ঘোড়াকে সেইরূপ ডাকতে হবে। প্রিয় নবী(সাঃ) ইমামদ্বয়কে খুশি করার জন্য ঘোড়ার ডাকের নকল করে ডাকতে আরম্ভ করলেন এবং ঈদগাহের দিকে পথ চলতে লাগলেন। প্রিয় নবীজি(সাঃ) এর ইমামদ্বয়কে নিয়ে এইরূপে ঈদগাহে যাওয়া অবলোকন করে, হযরত ওমর(রাঃ) বলে উঠলেন ‘আপনাদের বাহন অত্যন্ত উত্তম’। উত্তরে প্রিয় নবীজি(সাঃ) বললেন, ‘এ কথা কেন বল না, কি উত্তম সওয়ার আমি পেয়েছি।’ এই উত্তরের মধ্যেই ইমামদ্বয়ের অতি উচ্চ মান-মর্যাদার প্রচ্ছন্ন ইঙ্গিত পাওয়া যায়। লক্ষ্যণীয়, নবীজি(সাঃ) এবং আল্লাহ্পাক কেউই চান না ইমামদ্বয়ের হৃদয়ে কোন প্রকার কষ্ট হোক। ইমামদ্বয়ের হৃদয়ে কষ্ট হলে প্রিয় নবীজি(সাঃ) কষ্ট পান। প্রিয় নবীজি(সাঃ) কষ্ট পেলে আল্লাহ্পাক কষ্ট পান। আরও দুইটি ঘটনা-একদা ইমাম হাসান ও হোসাইন(রাঃ) দুটি তখতিয়ারে উপর কিছু লিখে পিতার নিকট জানতে চাইলন, কার লেখা সুন্দর। তিনি ভেবে দেখলেন যদি একজনের লেখাকে সুন্দর বলা হয় অপরজন তাতে মনঃক্ষুণœ হবে। তাই তিনি দুই পুত্রকে তাদের আম্মার কাছে যেতে বললেন। তারা হযরত ফাতেমার (রাঃ) নিকট গেলে তিনিও মীমাংসা না করে তাদেরকে নানাজানের কাছে যেতে বললেন। মহানবী(সাঃ) বললেন, এর ফয়সালা করবে জিব্রাইল(আঃ)। হযরত জিব্রাইল(আঃ) বললেন, এটি আমার দ্বারা সম্ভব নয়। এর মীমাংসা করবেন খোদ আল্লাহ্পাক। অবশেষে আল্লাহ্পাক হযরত জিব্রাইল (আঃ)কে বললেন তাদের লেখা দুই জায়গায় রাখতে এবং একটি আপেল বা ছেব ফল বেহেশত হতে নিয়ে উপর হতে ছেড়ে দিতে। এ ফল যে লেখায় বসবে তার লেখাই সুন্দর বলে বিবেচিত হবে। তখন জিব্রাঈল(আঃ) একটি ছেব ফল উপর হতে ছেড়ে দিলেন মহান আল্লাহ্র অপার মহিমায় ফলটি দুইভাগ হয়ে দুইজনের লেখার উপরই বসল। এতে উভয় লেখাই সুন্দর বলে বিবেচিত হলো। এতে বোঝা যায় স্বয়ং আল্লাহ্পাকও তাদের মনে দুঃখ হোক তা পছন্দ করেন না। মুসলমান, খ্রিস্টান ও ইহুদিদের মধ্যে ঝগড়ার সূত্রপাত হলে কোরআন পাকের সুরা আল ইমরানের ৬১ নং আয়াত নাজিল হয় ঃ হে লোকগণ, তোমরা আসো। আমি আমার আওলাদদের ডাকি। তুমি তোমাদের আওলাদদের ডাক। আমি আমার মহিলাদের ডাকি, তুমি তোমাদের মহিলাদের ডাক। একত্রে জমা হই। যারা সত্য পথে আছেন তাদেরকে আল্লাহ্ যেন বাঁচান এবং যারা মিথ্যার পথে আছে তারা যেন ধ্বংস হয়। তদানুযায়ী হুজুর পাক(সাঃ) হযরত আলী(রাঃ), হযরত ফাতেমা(রাঃ), হযরত ইমাম হাসান(রাঃ), হযরত ইমাম হোসাইন (রাঃ)কে নিয়ে মুক্ত আকাশের নিচে মাঠে গমন করলেন এবং অপর পক্ষকে তাদের স্বজন নিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানালেন। উভয়পক্ষ একত্রে মিলিত হলেন। এরই মধ্যে হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইদি ওয়াসাল্লাম হযরত আলী(রাঃ) হযরত ফাতেমা(রাঃ) হযরত হাসান ও হযরত হোসাইন(রাঃ) সমবেত জনতাকে দেখিয়ে বললেন যে, হে আল্লাহ্ ইহারা আমার আহলে বায়াত। তখন লর্ড পাদ্রী আসকাফ সেখানে উপস্থিত হয়ে বললেন যে, বিরুদ্বাচারীদের সঙ্গে মোবাহেলায় লিপ্ত হইও না। কেননা আমি যে সমস্ত জ্যোতির্ময় চেহারা দেখছি তাদের সঙ্গে তোমরা মোবাহেলার লিপ্ত হলে তোমরা ধ্বংস হযে যাবে এবং তোমাদের কোন চিহ্ন থাকবে না। লর্ড পাদ্রীর বক্তব্য শ্রবণ করে ইহুদি ঈশায়ী  দল আর মোবাহেলায় বসলো না। এই আয়াতে মোবাহেলাতে বিশিষ্ট আহলে বায়াত যে হযরত আলী(রাঃ), হযরত ফাতেমা(রাঃ), হযরত ইমাম হাসান ও হযরত ইমাম হোসাইন(রাঃ) আনহুমা তা পরিষ্কার হয়ে গেল। আর একটি ঘটনা ঃ হযরত জিব্রাঈল(আঃ) যখন প্রিয় নবীজি(সাঃ) এর সাথে দেখা করতে আসতেন, তখন বেশীর ভাগ সময়ই সাহাবী হযরত দাহিয়া কালবী(রাঃ) এর সুরতে আসতেন। হযরত দাহিয়া কালবী(রাঃ) সবসময়ই একটি জোব্বা গায়ে দিয়ে হুজুর প্রিয় নবীজি(সাঃ) এর দরবারে আসতেন। একবার হযরত জিব্রাঈল(আঃ) দাহিয়া কালবী(রাঃ) সুরতে রাসূলে পাক(সাঃ) এর নিকট সাক্ষাৎ করতে আসেন। ইমামদ্বয় তাকে দেখে দৌড়ে এসে জোব্বার পকেটে কী যেন হাতিয়ে খুঁজতে লাগলেন। তা দেখে জিব্রাঈল (আঃ) আশ্চর্য হয়ে প্রিয় নবীজি (সাঃ)কে বললেন, বাচ্চারা আমার পকেটে কি খুঁজছে? প্রিয় নবীজি(সাঃ) বললেন তোমাকে দেখে ওরা ভেবেছে হযরত দাহিয়া কালবী এসেছেন। উনি যখন আসেন তখন সবসময়ই পকেটে করে তাদের জন্য কিছু মেওয়া নিয়ে আসেন এবং ওরা সেই মেওয়া পকেট হতে খুঁজে বের করে। হযরত জিব্রাঈল(আঃ) ভাবলেন তার পকেটে কিছুই নেই, এতে ইমামদ্বয় হৃদয়ে কষ্ট পাবে। তিনি তৎক্ষণাৎ হাত বাড়িয়ে বেহেস্তের বাগিচা হতে মেওয়া এনে ইমামদ্বয়ের হাতে দিলেন। এমন আরও অনেক ঘটনা হাদিস শরীফে উল্লেখ আছে, যা হতে আমরা দেখতে পাই যে, আল্লাহ্পাক, ফেরেশতা, প্রিয় নবীজি(সাঃ) কেউই ইমামদ্বয়ের হৃদয়ে এতটুকু কষ্ট হোক তা সহ্য করতেন না। কিন্তু প্রশ্ন, এতই যদি তাদের প্রতি দয়া, মায়া, মহব্বত হবে আল্লাহ্পাক কেন ইমাম হোসাইন (রাঃ)কে কারবালায় নির্মমভাবে শহীদ করালেন? শুধু তাই নয়, তার দেহের উপর দিয়ে দশটি ঘোড়া সওয়ারসহ দৌড়িয়ে সম্পূর্ণ শরীরকে ছিন্নভিন্ন করে ফেলে। কী তার অপরাধ ছিল ? উপলব্ধি করার বিষয় এটাই। এখানে উল্লেখ করতে হয়, আমরা উপরের উল্লেখিত ঘটনা হতে দেখতে পাই যে, প্রিয় ইমামদ্বয়ের হৃদয়ে যখন যে আকাঙ্খা বা ইচ্ছা উদয় হয়েছে তৎক্ষণাৎ আল্লাহ্পাক, ফেরেশতাগণ এবং প্রিয় নবীজি(সাঃ) তা পূরণ করার জন্য তৎপর হতেন। কিন্তু কারবালায় ইমাম হোসাইন(রাঃ) তাঁর পরিবারবর্গ ও সঙ্গী-সাথীসহ তিন দিন বিনা পানিতে শাহাদতবরণ করলেন। সেদিন যদি ইমাম পাক ইচ্ছা করতেন তবে তাঁকে ফোরাতের নিকট যেতে হতো না, ফোরাত নদী তাঁর নিকট চলে আসতো। এমনকি তিনি যদি পা দিয়ে মাটিতে আঘাত করতেন তবে হযরত ইসমাঈল(আঃ) এর জমজম কূপের মতো পানির ফোয়ারা নির্গত হতো এবং তাকে পরিবার পরিজন ও সঙ্গী-সাথী নিয়ে পানির জন্য হাহাকার করতে হতো না। এমনকি তিনি চাইলে ফেরেশতাকূল তাঁর সাহায্যার্থে এগিয়ে আসতো। কিন্তু তিনি কেন তা করলেন না, তাঁর মূল্যায়ন করতে হবে। সেদিন তিনি যদি কারবালার প্রান্তরে কোন অলৌকিক ঘটনা ঘটাতেন তবে কারবালার মূল উদ্দেশ্য সাধিত হতো না। 
  খাজা গরীব নেওয়াজ রাহমাতুল্লাহ আলাইহে তাই বলছেন- বোকারা বুঝতে পারেনি, ইমাম হোসাইন(রাঃ) পানির পিপাসায় অসহায়ের মতো মারা যাননি বরং তিনি আসল ও নকলের ভাগটি পরিষ্কার করে দেখিয়ে দিয়েছেন। ইমাম হোসাইন(রাঃ) এর ঘোড়া ‘জুলজেনার’ পদধূলা বলতেও নিজেকে লজ্জা বোধ করি, অথচ আমি মাঈনুদ্দিন যদি সেদিন কারবালার মাঠে একটি আঙ্গুল দিয়ে খোঁচা দিতাম তাহলে, আল্লাহর কসম, সঙ্গে সঙ্গে পানির নহর বয়ে যেত। খাজা গরীব নেওয়াজ মাঈনুদ্দিন চিশতি (রঃ) ইমাম হোসাইন (রাঃ) এর গোলামের গোলাম হয়ে আল্লাহ্র কসম খেয়ে যে কাজটি করতে পারতেন বলে বলেছেন, ইমাম হোসাইন (রাঃ) ‘আকা’ হয়ে সেই কেরামতটি দেখালেন না কেন? পৃথ্বীরাজ যখন খাজা গরীব নেওয়াজের(রঃ) জন্য ‘আনা সাগরের’ পানি বন্ধ করে দিয়েছিলেন, তখন হযরত গরীব নেওয়াজ হুঙ্কার ছেড়ে বলেছিলেন, ‘এজিদের বাচ্চা, তুই কি কারবালা পেয়েছিস যে, আমার পানি বন্ধ করবি? তোর সমস্ত রাজস্থানের পানি আমি আমার ঘটির মধ্যে তুলে নিলাম।’ কথিত আছে যে, এর ফলে সমগ্র রাজস্থানের পানি শুকিয়ে গিয়েছিল, এমনকি মায়ের স্তনের দুধও ! সত্যিই তো, যার হাতে হাউজে কাউছারের কর্তৃত্ব, যিনি সমগ্র জান্নাতিদের হাউজ-এ কাওছার এর পানি পান করাবেন, যিনি বেহেস্তের সরদার, যিনি ইচ্ছা করা মাত্র বেহেস্ত হতে পোশাক ও মেওয়া চলে আসে, প্রিয় নবীজি (সাঃ) এর নয়নমনি, খাতুনে জান্নাত হযরত মা ফাতেমা (রাঃ) এর কলিজার টুকরা হযরত আলী(রাঃ) এর আদরের দুলাল ইমাম হোসাইন(রাঃ) কীভাবে পিপাসিত থাকতে পারেন? আওলাদে ইব্রাহীম এর পায়ের আঘাতে কী জমজম এর মতো পবিত্র ও বরকতময় কূপ সৃষ্টি হতে পারতো না? অথবা প্রিয় নবীজি(সাঃ) যেভাবে এক মুষ্টি বালি নিক্ষেপ করে যুদ্ধের ময়দানে কাফেরদের পরাস্ত করেছিলেন, তেমনি ইবনে রাসূল(সাঃ) কারবালার প্রান্তর হতে এক মুষ্টি বালু নিক্ষেপ করে এজিদের বিশাল বাহিনীকে পরাস্ত করতে পারতেন অথবা ঊর্ধ্বকাশের আবাবিল বাহিনীকেও যদি তিনি আহ্বান করতেন তা হলেও প্রস্তর নিক্ষেপে আব্রাহার বিশাল হস্তি বাহিনীর মতো ইয়াজিদ বাহিনী ধূলিস্যাৎ হয়ে যেত। কিন্তু ইমাম হোসাইন(রাঃ) তা করেননি। কিন্তু কেন করেননি? তা জানতে হলে আহলে বাইয়েতকে বুঝতে হবে। ইহার অন্তর্নিহিত উদ্দেশ্য কি তা বুঝতে হবে। কারবালার এই ঘটনার মধ্যে আল্লাহ্পাকের ইচ্ছা ছিল এক সাথে অনেকগুলি উদ্দেশ্য সাধিত করানো। তন্মধ্যে নি¤েœর কয়েকটি উল্লেখ করা হলো-বিশ্ববাসীকে দেখানো যে অন্যায়ের বিরুদ্ধে ন্যায় ও সত্যের সংগ্রামে কোন প্রকার আপোষ চলবে না। দরকার হলে নিজের এবং পরিবারের জানমাল কোরবান দিতে প্রস্তুত থাকতে হবে। ইসলাম ধর্মকে রক্ষা ও প্রতিষ্ঠিত করা। ইমাম হোসাইন (রাঃ)কে ”সাইয়্যেদুশ শুহাদা” অর্থাৎ শহীদদের সর্দার রূপে প্রতিষ্ঠিত করা। প্রিয় নবীজি(সাঃ) এর উম্মতের জন্য রোজ কেয়ামতে নাজাতের বা মুক্তির উছিলা বানানো। 
  সেদিন যদি ইমাম হোসাইন(রাঃ) অন্যায়কারী, ব্যাভিচারী, পাষ-, মদ্যপ ও সৎমায়ের সাথে জেনাকারী ইয়াজিদের নিকট প্রাণের ভয়ে এবং নিজের পরিবারবর্গ, আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধু-সাথীদেরকে রক্ষা করার জন্য এজিদের বশ্যতা স্বীকার করে তাকে খলিফা মেনে নিতেন, তবে আজ দুনিয়ার বুকে মুসলমানের মধ্যে একটি উদাহরণ সৃষ্টি হয়ে যেত যে, জীবন রক্ষার জন্য প্রয়োজনে এজিদের মতো লোকের বশ্যতা স্বীকার করা জায়েজ আছে, এতে দোষের কিছু নেই। মুসলমানগণ তখন এই উদাহরণ সবাইকে দেখাতেন যে, বেহেস্তের সর্দার প্রিয় নবীজি(সাঃ) এর দৌহিত্র ইমাম হোসাইন (রাঃ) যদি ইয়াজিদের মতো এমন একজন ব্যভিচারী, লম্পট লোকের হাতে বাইয়াত গ্রহণ করতে পারেন ও খলিফা বলে স্বীকার করতে পারেন, তবে আমরা কেন পারব না? এইদিকেই ইঙ্গিত করে সুলতানুল হিন্দ গরীবে নেওয়াজ হযরত খাজা মাঈনুদ্দিন চিশ্তি আজমেরী রাহমাতুল্লাহ আলাইহে বলেছেন, 
শাহ আস্ত হোসাইন, বাদশা আস্ত হোসাইন,
দ্বীন আস্ত হোসাইন, দ্বীন পানাহ্ আস্ত হোসাইন,
ছেরদাদ ওয়া নাদাদ দস্ত দরে দস্তে এজিদ
হক্কাকে বেনায়ে লা ইলাহা আস্ত হোসাইন
  অর্থাৎ, হোসাইন স¤্রাট, হোসাইন বাদশাহ, হোসাইন ধর্ম, ধর্মের আশ্রয়দাতা হোসাইন। মাথা দিলেন কিন্তু এজিদের হাতে হাত দিলেন না। সত্যতা ইহাই যে, লা ইলাহার বুনিয়াদই হোসাইন। সেদিন যদি হোসাইন(রাঃ) পাষন্ড ইয়াজিদের হাতে বাইয়াত নিতেন তবে লা ইলাহার বুনিয়াদ দুনিয়ার বুক হতে সেদিনই চিরতরে মুছে যেত। কাজেই ইমাম হোসাইন(রাঃ) সেদিন ইসলামের জন্য নেতিবাচক উদাহরণ সৃষ্টি হতে পারে, এমন কাজ হতে নিজেকে রক্ষা করলেন। নিজের এবং পরিবারের জান-মাল কোরবান করে নানাজির ধর্ম ইসলামকে সেই অপবাদ হতে মুক্তি দিলেন এবং এখানেই সেই কারবালার ঘটনার সবচেয়ে বড় মাহাত্ম্য। যদি ইহার অন্যথা হতো তবে প্রিয় নবীজি(সাঃ) যে দুঃখ কষ্ট সহ্য করে আল্লাহ্পাকের মনোনীত ধর্ম ইসলামকে দুনিয়ার বুকে প্রতিষ্ঠিত করে গেছেন তা সেই দিনই ধুলায় ভুলুণ্ঠিত হতো এবং চিরতরে দুনিয়ার বুক হতে মুছে যেত। হোসাইন(রাঃ) এর আত্মত্যাগের মধ্যে দিয়ে প্রকারান্তরে প্রিয় নবীজি (সাঃ) এর ইসলাম ধর্ম দুনিয়ার বুকে প্রতিষ্ঠিত হয়ে আছে।
  তাই প্রিয় নবীজি (সাঃ) সর্বদা বলতেন, হোসাইন মিন্নী ওয়া আনা মিনাল হোসাইন, অর্থাৎ- হোসাইন আমা হতে এবং আমি হোসাইন হতে। হযরত ইমাম হোসাইন(রাঃ) প্রিয় নবীজি(সাঃ) এর বংশধর এবং তার রক্ত হযরত ইমাম হোসাইনের(রাঃ) শরীরে প্রবাহিত। কাজেই হোসাইন আমা হতে তা প্রমাণীত হলো। তদ্রুপ ইমাম হোসাইন(রাঃ) এর এই আত্মত্যাগের ঘটনার প্রতি ইঙ্গিত করে এক কবি বলেছেন, ‘ইসলাম জিন্দা হোতা হ্যায় হর কারবালা কা বাদ’-অর্থাৎ কারবালার মতো ত্যাগ ও বিসর্জনের মাধ্যমেই বারে বারে ইসলাম পুনঃজীবন লাভ করে। 
  রেসালেতর দ্বিতীয় ফুল পাঞ্জাতন পাকের শেষ নিদর্শন ঃ সৈয়েদেনা ইমাম হুসাইন (আঃ)কে ৬১ হিজরীর ১০ই মহররম উল হারাম আলে নবীর ৭২ জন নর-নারীসহ উত্তপ্ত কারবালার প্রান্তরে ৩ দিন ৩ রাত্রি ঘেরাও করিয়া ক্ষুধা, তৃষ্ণায় যখন তাদের প্রাণ ওষ্ঠাগত, সেই মুহূর্তে শিকারী জানোয়ারের ন্যায় বনু উমাইয়া ও কুফাবাসীরা তাদের উপর বিষাক্ত তীর, নেজা, বল্লম, তরবারী, খঞ্জর, কুঠার নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে। লাইস-বিন-সআদ বলেছেন, হুসাইন(আঃ) এর সঙ্গে আব্বাস, জাফর আব্দুল্লাহ, ওসমান, আবু বকর (ইহারা সকলেই আলী(আঃ) এর শাহাজাদা) আলী আকবর হুসাইন(আঃ) এর শাহাজাদা। আবু বকর-বিন-হাসান আওন, মোঃ বিন আব্দুল্লাহ বিন জাফর, মুসলিম ও জাফর বিন আকীল ও ইমাম হোসাইন(আঃ) এর গোলাম। সুলাইমান শহীদ হয়ে গেলেন। এমনকি আব্দুল্লাহ (আলী আজগর) ৬ মাসের দুগ্ধপোষ্য শিশু শাহাজাদাকে নিষ্ঠুরতমভাবে হত্যা করলো। মোহাম্মদ বিন আনফিয়া বলেন, ইমাম হুসাইন(আঃ) এর শহীদ বনু ফাতেমা ১৭ জন শাহাজাদা শাহাদৎবরণ করেন। তাদের সকলেরই সিলসিলা-এ-নসব জনাব ফাতেমা(আঃ) এর সহিত মিলিত ছিলেন। রাসুল নোমা, রসূলের স্কন্দ দেশের সওয়ার ফাতেমা বাগিচার শেষ ফুলটিকে শুক্রবারের দিন নামজে সিজদাবনত অবস্থায় জবেহ করে দিল। তার জিসম মোবারকে তীর, বর্শা, নেজা, তরবারী, ৭২টি আঘাত হানিয়া ও তাহাদের হিংসা চরিতার্থ হয় নাই। রাসুল নুমার এই লাশ মোবারকের উপর ১০টি অশ্বকে দৌড়াইয়া উপর্যুপরি অশ্বের ক্ষুরাঘাতে ফাতেমা বাগিচার শেষ ফুলটি ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন করে কারবালার ধুলিকণার সাথে মিলিয়েছিল। 
  হায় হোসাইন, হাই হোসাইন। আঁ হযরত(সাঃ) বলেছেন, আশুরার দিন আসমান, পাহাড়, সাগর, লওহ্, কলম এবং আদম (আঃ)কে পয়দা করা হয়। এই আশুরার দিনেই হযরত আদম(আঃ) এর বেহেশত প্রবেশ। আসমান হতে প্রথম বৃষ্টিপাত। আদম(আঃ) এর তওবা কবুল। নূহ(আঃ) এর নৌকার নিরাপত্তা লাভ। ইব্রাহিম(আঃ) এর জন্মদিন। নিজের পুত্রকে খোদার রাস্তায় কোরবানী করা। ফেরাউনের নীল নদে নিমজ্জিত। দাউদ(আঃ) এর তওবা কবুল। আয়ুব(আঃ) এর দুঃখ ব্যথা বেদনা ও রোগ হইতে মুক্তি। সোলায়মান(আঃ) এর তওবা কবুল ও আংটি লাভ। ঈসা(আঃ) এর জন্মগ্রহণ। আরও শত শত ঘটনা ঘটেছে এই দিনে। আর এই সমস্ত ঘটনাই পাঞ্জাতনে পাক (হযরত মোহাম্মদ (সাঃ), আলী, ফাতেমা, হাসান ও হোসাইন সারা দিয়েছেন, যে মুহূর্তেই কেউ স্মরণ করেছেন। ১০ই মহররম পাঞ্জাতন পাকের মহান হোসাইন (আঃ) সত্যিকার কুরবান হলেন এজিদের বিরুদ্ধে ইসলামের শান্তির ভিত্তিপ্রস্তর মজবুত করতে। তাই যে কেউ আশুরার দিন রোযা রাখেন, শহীদদেরকে স্মরণ করে, ইবাদত বন্দেগী, মারসিয়াখানি করে, গরীব লোক ও পিপাসার্তকে শরবত বা অন্ন দান করে, এতিমদের প্রতি ¯েœহশীল হয়, ব্যাধিগ্রস্থের সান্ত¡না দেয় তারা অপূর্ব মর্যাদার অধিকারী হয়। যে আঁশু ঝরায়, কারবালায় শোহাদার জিকির করে আর সেই কান্না যদি মশার পাখনার ন্যায় সামান্যতম হলেও তার সমুদ্রসম গুণাহ্কে ধৌত করে দেয় তাদের রহমতের ধারায়। হে আল্লাহ এদেরই জিকির ধ্যান-ধারণা আমাদের জীবনের অঙ্গ করিয়া দাও। রাসূল পাক(সাঃ) বলেছেন, হযরত ইমাম হাসান ও হোসাইন রাদিয়াল্লাহু আনহুমা জান্নাতের যুবকদের সর্দার এবং হযরত ফাতেমা রাদিয়াল্লাহু আনহু বেহেশতের মহিলাগণের সরদার। মুসলিম, তিরমিজি। ইমাম হোসেনের হত্যাকান্ডে অংশগ্রহণকারী কেউ রেহাই পায়নি। কেউ পাগল হয়ে গিয়েছিল অথবা কুষ্ঠ রোগে আক্রান্ত বা পক্ষাঘাতগ্রস্থ হয়েছিল। ৬৪ হিজরিতে এজিদের মৃত্যু হয়। রাতে সে মাতাল ছিল। সকালে তার লাশ আলকাতরার মতো কালো হয়েছিল। সে পানির তৃষ্ণায় ভুগতো কিন্তু পানি দিলেও পান করতে পারতো না। সীমারের মৃত্যু হয়েছিল কুষ্ঠ রোগে। লানত তাদের উপর। 
  তথ্যসূত্র ঃ দ্য স্পিরিট অব ইসলাম-জাস্টিস স্যার সৈয়দ আমীর আলী, হিস্ট্রি অব স্যারসেন, এথিকস্ অব ইসলাম, মহামেডান ল এবং কা

সারা জাহানের খুসবু হুসাইন ইবনে আলী এবং কারবালা
সরকারী-বেসরকারী ব্যবস্থাপনায় হজ্বের দুইটি প্যাকেজ নির্ধারণ
রাজবাড়ীতে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত॥বৃষ্টিতে নামাজ আদায়ে মুসল্লীদের ভোগান্তি
সর্বশেষ সংবাদ