ঢাকা মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২
মীর মশাররফ হোসেন ঃ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় শাণিত বাংলা ভাষা ও সাহিত্য প্রেমিক
  • শাহ্ মুজতবা রশীদ আল কামাল
  • ২০২২-১১-১৩ ০০:২০:২৪

বাংলা ভাষা ও সাহিত্য জগতে মীর মশাররফ হোসেন (১৮৪৭-১৯১১) উদার শৈল্পিক, অসাম্প্রদায়িক চেতনায় শাণিত কালজয়ী ধীশক্তিসম্পন্ন বাঙালী। তাঁর সাহিত্যচর্চায় শিল্প নৈপুণ্য ও অসাম্প্রদায়িকতার চেতনার রসবোধ দেদীপ্যমান। 

  ভারতবর্ষে ইংরেজ শাসন-শোষণে একদিকে মুসলমান সমাজ হতাশায় নিমজ্জিত, অন্যদিকে হিন্দু সমাজ ইউরোপীয় রেনেসাঁসের আলো আর ইংরেজ শাসকদের মদদে উজ্জীবিত। মধ্যযুগের ভাবধারা ক্রমশঃ নিষ্প্রভ হয়ে আধুনিকতার সূর্যরশ্মি দীপ্তি ছড়াতে শুরু করেছে। ঠিক এমনই যুগসন্ধিক্ষণে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যাকাশে এক নতুন নক্ষত্রের আবির্ভাব। যাঁর নাম মীর মশাররফ হোসেন। 

  তিনি বিত্তশালী জমিদার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর শৈশব কেটেছে কুসংস্কারাচ্ছন্ন ও রক্ষণশীলতার আবরণে আচ্ছাদিত। এমন এক সমাজে যেখানে ইংরেজী শিক্ষাকে মনে করা হতো পাপ। মূলতঃ রক্ষণশীল পরিবারে জন্ম হলেও মীর মশাররফ হোসেনের পিতা মীর মোয়াজ্জেম হোসেন ছোটবেলা থেকেই তাঁকে সম্পূর্ণ বিপরীতধর্মী শিক্ষায় আলোকিত মানুষ হিসাবে গড়ে তোলেন। একদিকে মুন্সী জমির উদ্দিনের কাছে শিখেছিলেন আরবী-ফার্সির প্রাথমিক পাঠ, অন্যদিকে জগমোহন নন্দীর পাঠশালা থেকে শিখেছিলেন সংস্কৃত ও ব্যাকরণ। এরপর কুষ্টিয়ায় ইংরেজী-বাংলা স্কুল, পদমদীর নবাববাড়ী স্কুল এবং কৃষ্ণনগরের কলেজিয়েট স্কুলে তিনি লেখাপড়া করেছেন। কৃষ্ণনগরের সামাজিক পরিবেশের প্রভাব তার চিন্তা-চেতনায় ব্যাপকভাবে প্রভাব বিস্তার করে অসাম্প্রদায়িকতা ও উদার মানসিকতা। এ সম্পর্কে বিশ্বজিৎ ঘোষের উক্তি প্রণিধানযোগ্য ঃ “ভিন্ন প্রকৃতির এই দুই বিদ্যা মীর মানসে কোনো অসঙ্গতির বীজ বপন করেনি, দুটিকে একাধারে গ্রহণ করে শৈশব-কৈশোরেই তিনি পেয়েছিলেন অসাম্প্রদায়িকতার বীজমন্ত্র”। 

  মীর মশাররফ হোসেন সাহিত্যচর্চার শুরুতেই কাঙাল হরিনাথ মজুমদারের (১৮৩৩-১৮৯৬) গ্রামবার্তা প্রকাশিকা পত্রিকায় কাজ করার সূত্রে তাঁর সান্নিধ্য ঘটে এবং তিনি নিজেই নিজেকে কাঙাল হরিনাথের ভাবশিষ্য হিসাবে উল্লেখ করেছেন। কাঙাল হরিনাথের বিভিন্ন রচনা বিশেষতঃ “বিজয়বসন্ত” (১৮৫৯) তাঁর সাহিত্য চেতনাকে শাণিত করেছে। বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগে কারবালার কাহিনী নিয়ে তাঁর রচিত “বিষাদ-সিন্ধু” (১৮৮৫) মর্যাদা পেয়েছে বাংলা সাহিত্যের অন্যতম ধ্রুপদী গ্রন্থের। জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে এই গ্রন্থটি শুধু বাংলা সাহিত্যেই নয়-ইংরেজী সাহিত্যে অনুবাদের পরে আন্তর্জাতিক বিশ্বের সাহিত্য অঙ্গনেও অন্যতম জনপ্রিয় গ্রন্থ হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছে। উল্লেখ্য, বিষাদ-সিন্ধু গ্রন্থের বিষয় মুসলিম ইতিহাস-ঐতিহ্য থেকে নেওয়া হলেও ভাষারীতি ও কাহিনী বর্ণনার গুনে এটি সকল ধর্মের মানুষের কাছে সমাদৃত হয়েছে। মীর মশাররফ হোসেন অসাম্প্রদায়িক ভাষাভিত্তিক জাতীয়তাবাদী চেতনায় বিশ্বাসী ছিলেন। তিনি “আমাদের শিক্ষা” প্রবন্ধে লিখেছেন “বঙ্গবাসী মুসলমানদের দেশভাষা বা মাতৃভাষা বাঙ্গালা। মাতৃভাষায় যাহার আস্থা নাই, সে মানুষ নহে”। 

   মীর মশাররফ হোসেন অসাম্প্রদায়িক চেতনার প্রকাশ ঘটিয়েছেন সন্তানদের “বাংলা” নামকরণের মাধ্যমে। তিনি তার সন্তানদের নাম রেখেছিলেন শরত, শিশির, সতী, সাবিত্রী, সত্যবান, কুকী, সুনীতি, সুমতি, রনজিত, সুধম্বা, ধর্মরাজ ও যুবরাজ। তৎকালীন রক্ষণশীল মুসলমান সমাজের নিন্দা ও সমালোচনা তিনি সহ্য করেছেন সন্তানদের এই ধরনের নাম রাখার কারণে। ‘অপ্রকাশিত আত্মজীবনী’তে তিনি লিখেছেন ঃ আকিকা হইল। নাম রাখিবার নময় উপস্থিত। নাম রাখা হইল মফাজ্জল হোসেন। পারস্যভাষায় নাম রাখা হইল। আমি সদা সবর্ক্ষদা ডাকার জন্য বাঙ্গালা ভাষায় নাম রাখিব। দুই একজন বলিলেন বাঙ্গালা নাম রাখিবেন রাখুন, তাই বলিয়া রাম, কৃষ্ণ, শিব, দুর্গা, কালি নাম রাখা ভাল নয়। আমি বলিলাম তাহাতে দোষ কী ? আপনারা একচক্ষে দেখিবেন। কাজেই বাঙ্গালা ভাষাটা আপনাদের চক্ষেই ধরে না। অথচ বাঙ্গালার জল, বাঙ্গালার বাতাস, বাঙ্গালার শস্য, বাঙ্গালার মাটি, বাঙ্গালার সকলই আপনারা বলিতেছেন, ভাষাটার প্রতি এত ঘৃণার কারণ কী ? বাঙ্গালার মাটিতে জন্মগ্রহণ করিয়া প্রথম ডাক “মা” ডাকিতেছেন। কথা ফুটিয়ে বাঙ্গালা ভাষায় কথা কহিতেছেন, অথচ সাহসের সঙ্গে বলছেনঃ ‘শরত নামেই আন্দোলন মহা আন্দোলন, আমি তাহাতে কিছু মাত্র ভীত হইলাম না। দমিলাম না। মীর মশাররফ হোসেনের অসাম্প্রদায়িক চেতনার শ্রেষ্ঠ ফসল “গো-জীবন” প্রবন্ধ। তিনি বলেছেন ঃ গোমাংস হালাল, খাইতে বাধা নাই। কিন্তু শাস্ত্রে একথা লিখা নাই যে, গো-হাড় কামরাতেই হইবে, গোমাংস গলাধঃ করিতেই হইবে, না করিলে নরকে পচিতে হইবে। তিনি মনে করেন এই উপমহাদেশে হিন্দু-মুসলিম এই দুই সম্প্রদায়ের মানুষের সংখ্যাই বেশী। তাই একে অপরের সঙ্গে দ্বন্দ্ব না করে ভ্রাতৃত্ব বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে বসবাস করা উচিত। এজন্য প্রয়োজনে মুসলমানদের গো-মাংস খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। 

   হিন্দু-মুসলমানের মিলন সাধনে লেখনী ধারণ করায় মীর মশাররফ হোসেন স্বধর্মের মানুষের কাছে নিগ্রহের শিকার হয়েছেন। আব্দুল হামিদ খান ইউসুফজয়ীর সম্পাদনায় টাঙ্গাইলের ‘আহমদী’ পত্রিকায় গো-জীবনের প্রথম প্রস্তাব “গোকুল নির্ম্মূল আশংকা” ছাপা হলে সেখানকার ‘আখবারে এসলামিয়া’ পত্রিকায় বিরূপ প্রতিক্রিয়া ছাপা হয়। তাতে বলা হয়, মীর সাহেব মুসলমান নন এবং তাকে কাফের ফতওয়া দেওয়া হয়। ক্ষুব্ধ মশাররফ হোসেন এদেরকে আদালতে অভিযুক্ত করেন এবং শেষ পর্যন্ত একটা অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। 

   সামগ্রিক বিশ্লেষণে এ কথা বলা যায় যে, মীর মশাররফ হোসেন ছিলেন অসাম্প্রদায়িক চেতনায় শাণিত বাংলা ভাষা ও সাহিত্য প্রেমিক। তাঁর জীবন চেতনা ও সাহিত্য সম্ভারকে ছড়িয়ে দিতে হবে বাংলা ভাষাভাষি মানুষের জীবনের সর্বত্র। নতুন প্রজন্ম ও অনাগতকালের পাঠকের কাছে পৌঁছে দিতে হবে তাঁর অসাম্প্রদায়িক চিন্তা ও উদার মানসিকতা সম্পন্ন চেতনাবোধকে।

(লেখক পরিচিতি ঃ সহকারী অধ্যাপক, ডাঃ আবুল হোসেন কলেজ, রাজবাড়ী)।  

কবি সুফিয়া কামাল
ডাঃ আবুল হোসেন ঃ একজন আলোকিত মানুষ এবং মহৎ প্রাণের প্রতিকৃতি
মীর মশাররফ হোসেন ঃ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় শাণিত বাংলা ভাষা ও সাহিত্য প্রেমিক
সর্বশেষ সংবাদ