ঢাকা শনিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২০
রাজবাড়ীর ডাঃ আবুল হোসেন কলেজে অচলাবস্থা॥অনিয়ম এখন নিয়মে পরিণত
  • সুশীল দাস
  • ২০২০-০৯-২০ ০১:০১:৪২
রাজবাড়ী শহরের ডাঃ আবুল হোসেন কলেজ -মাতৃকণ্ঠ।

রাজবাড়ীর ডাঃ আবুল হোসেন কলেজের প্রভাষক খন্দকার ফারুক আহম্মদের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ পদে থাকা নিয়ে প্রশ্ন ওঠাসহ অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। 
  বিদায়ী অধ্যক্ষ এবিএম মঞ্জুরুল আলম দুলাল মাউশি’র নীতিমালা অনুযায়ী এবং ১৩/৫/২০১৯ তারিখের পত্রের নির্দেশনার জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন করে অবৈধভাবে খন্দকার ফারুক আহম্মদকে দায়িত্ব দেয়ায় কলেজ পরিচালনায় অচলাবস্থা চলছে।
  ‘অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদানের ব্যাপারে’ কলেজের বর্তমান জ্যেষ্ঠ শিক্ষক সহকারী অধ্যাপক চৌধুরী আহসানুল করিম কর্তৃক মাউশি’র মহাপরিচালক বরাবর করা লিখিত আবেদনের প্রেক্ষিতে মাউশি’র সহকারী পরিচালক মোঃ আবুল কাদেরের স্বাক্ষরিত ২৭/০৭/২০২০ইং তারিখের ৩৭.০২.০০০০.১০৫.২২.০৪৮.১৯.২৪২ নং স্মারকের একটি পত্রে ‘জ্যেষ্ঠ শিক্ষককে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদান করার নির্দেশনা কেন প্রতিপালন হয়নি’ তার কারণ ব্যাখ্যা করার জন্য কলেজের গভর্নিং বডি’র সভাপতিকে অনুরোধ জানানো হয়। একই সঙ্গে কলেজের এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের তালিকা প্রেরণের জন্য বলা হয়। কিন্তু এরপর দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও অদ্যাবধি মাউশি’র সেই নির্দেশনা পালন করা হয়নি। 
  অভিযোগে জানা গেছে, ডাঃ আবুল হোসেনের কলেজের অধ্যক্ষ এবিএম মঞ্জুরুল আলম দুলাল গত ০৮/০৭/২০২০ইং তারিখে অবসরে যান। তার আগে ০৫/০৭/২০২০ইং তারিখে গভর্নিং বডি’র একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় গভর্নিং বডি’র সভাপতি ও রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী মাউশি’র নীতিমালা অনুযায়ী জ্যেষ্ঠ শিক্ষককে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদানের ব্যাপারে মতামত ব্যক্ত করেন। কিন্তু অধ্যক্ষ মঞ্জুরুল আলম দুলাল এর বিরোধিতা করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী খন্দকার ফারুক আহম্মেদকে দায়িত্ব দেয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করেন। তখন সভাপতি তাদেরকে এ ব্যাপারে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চিঠি নিয়ে আসার পরামর্শ দেন। কিন্তু তারপরও বিদায়ী অধ্যক্ষ মঞ্জুরুল আলম দুলাল অবৈভভাবে প্রভাষক খন্দকার ফারুক আহম্মেদকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদান করেন। 
  এ ঘটনার পর গভর্নিং বডি’র সভাপতি রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী ওই সভার (০৫/০৭/২০২০) রেজুলেশনে স্বাক্ষর করা থেকে বিরত থাকেন। এরপর বিদায়ী অধ্যক্ষ এবং ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অদ্যাবধি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোন চিঠি আনতে পারেননি। ইতিমধ্যে কলেজের গভর্নিং বডি’র সভাপতির ব্যাপারে ২৭/০৭/২০২০ইং তারিখে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সংসদ সদস্যদের পরিবর্তে বিভাগে বিভাগীয় কমিশনার, জেলায় জেলা প্রশাসক এবং উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের সভাপতি করার ব্যাপারে জরুরী বিজ্ঞপ্তি জারী করা হয়। 
  জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের এ বিজ্ঞপ্তি জারীর পর বিদায়ী অধ্যক্ষ এবিএম মঞ্জুরুল আলম দুলাল ও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ খন্দকার ফারুক আহম্মদের পক্ষটি তৎপর হয়ে ওঠে। এ প্রেক্ষিতে তার পর দিনই ২৮/০৭/২০২০ইং তারিখে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাজবাড়ী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফকীর আব্দুল জব্বারকে গভর্নিং বডি’র সভাপতি এবং সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডঃ ইমদাদুল হক বিশ্বাসকে সদস্য করে একটি চিঠি নিয়ে আসা হয়। 
  নতুন সভাপতি দায়িত্ব নেয়ার পর গত ১৭ই সেপ্টেম্বর নতুন কমিটির দ্বিতীয় সভায় বিদায়ী অধ্যক্ষ এবিএম মঞ্জুরুল আলম দুলালকে গভর্নিং বডি’র সদস্য করা হয়। ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ খন্দকার ফারুক আহম্মদের কোন বৈধতা না থাকা সত্তে¡ও কলেজের যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনা করা হলেও জ্যেষ্ঠ শিক্ষক চৌধুরী আহসানুল করিমের আবেদনের প্রেক্ষিতে মাউশি’র প্রেরিত চিঠির নির্দেশনা বাস্তবায়নে কোন পদক্ষেপই গ্রহণ করা হয়নি। এর ফলে কলেজের শিক্ষক মন্ডলীসহ রাজবাড়ীর সুধীজনদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
  এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে ডাঃ আবুল হোসেন কলেজের সহকারী অধ্যাপক চৌধুরী আহসানুল করিম বলেন, বর্তমানে আমরা ৩জন সহকারী অধ্যাপক রয়েছি। তাদের মধ্যে আমি সর্বজ্যেষ্ঠ। মাউশি’র নীতিমালা অনুযায়ী জ্যেষ্ঠ শিক্ষক হিসেবে আমিই কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হবো-এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু বিদায়ী অধ্যক্ষ এবিএম মঞ্জুরুল আলম দুলালসহ কয়েকজন কলেজে তাদের কর্তৃত্ব ধরে রাখতে প্রভাষক খন্দকার ফারুক আহম্মদকে অবৈধভাবে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব দিয়ে কলেজ পরিচালনায় অহেতুক জটিলতার সৃষ্টি করেছে। তারা গভর্নিং বডি’কে ভুল বুঝানোসহ নানাভাবে সমস্যা জিইয়ে রাখা হয়েছে। 
  তিনি আরও বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী গভর্নিং বডি’র শিক্ষক প্রতিনিধিদের নির্বাচনের মাধ্যমে কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত হতে হয়। কিন্তু বিদায়ী অধ্যক্ষ তা না করে সিলেকশনের মাধ্যমে নিজের পছন্দমতো শিক্ষকদের গভর্নিং বডি’র শিক্ষক প্রতিনিধি সদস্য করেন। এসব কারণে বর্তমানে ব্যাপক জটিলতা সৃষ্টি হওয়ার পাশাপাশি অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।
  বর্তমানে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্বে থাকা খন্দকার ফারুক আহম্মেদের কাছে তার দায়িত্ব পালনের বৈধতার ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, গত ০৫/০৭/২০২০ইং তারিখের গভর্নিং বডি’র সভার পরে আমাকে মৌখিকভাবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তবে তৎকালীন সভাপতি এ সম্পর্কিত রেজুলেশনে স্বাক্ষর করেননি। 
  কলেজের গভর্নিং বডি’র বিদায়ী সভাপতি ও রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী বলেন, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদানের বিষয়ে আমি কোন রেজুলেশনে স্বাক্ষর করিনি। আমি দায়িত্ব ছাড়ার পর কী হয়েছে বলতে পারবো না।  
  গভর্নিং বডি’র নবনিযুক্ত সদস্য রাজবাড়ী সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডঃ ইমদাদুল হক বিশ্বাস বলেন, আমারও জানা মতে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদানের বিষয়ে সাবেক সভাপতি কোন রেজুলেশনে স্বাক্ষর করেননি।
  রাজবাড়ী সদর উপজেলার ভবদিয়ার কৃতি সন্তান শিক্ষানুরাগী লন্ডন প্রবাসী চিকিৎসক ডাঃ আবুল হোসেনের উদ্যোগে ও অর্থায়নে ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠিত ডাঃ আবুল হোসেন কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়। কিন্তু বর্তমানে কলেজের প্রশাসনিক পরিচালনায় সংশ্লিষ্টদের স্বচ্ছতা না থাকা এবং বিদায়ী অধ্যক্ষ এবিএম মঞ্জুরুল আলম দুলাল কর্তৃক নিয়ম নীতি লংঘন করার মাধ্যমে অনিয়মকে নিয়মে পরিণত করায় কলেজটির ভবিষ্যৎ নিয়ে সচেতন মহলে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। 

রাজবাড়ীর সাবেক সাব-রেজিস্ট্রার গোলাম মাহবুবসহ ৮জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
রাজবাড়ীর ডাঃ আবুল হোসেন কলেজে অচলাবস্থা॥অনিয়ম এখন নিয়মে পরিণত
রাজবাড়ী রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটে সদস্যভূক্তির আবেদন ফরম বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ
সর্বশেষ সংবাদ