ঢাকা মঙ্গলবার, জানুয়ারী ২৬, ২০২১
গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নের গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ
  • মইনুল হক মৃধা
  • ২০২০-১২-২৯ ০০:৩৪:১৮
গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নে সরকারীভাবে গৃহহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে কাজে ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন ফকির কর্তৃক মিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহারসহ ব্যাপক দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে -মাতৃকণ্ঠ।

রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নে সরকারীভাবে গৃহহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে কাজে ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন ফকিরের বিরুদ্ধে ব্যাপক দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। 

  সরেজমিনে পরিদর্শনকালে ভুক্তভোগীরা জানান, এসব গৃহ নির্মাণে ব্যবহার করা হচ্ছে পুরাতন ইটের খোয়া, পুরাতন রড, নিম্নমানের কাঠ ও অন্যান্য সামগ্রী। সম্পূর্ণ বিনামূল্যে ঘর তৈরীর কথা থাকলেও ইট, বালু, কাঠসহ নির্মাণ সামগ্রী বাড়ীতে নিতে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা দিতে হচ্ছে গৃহহীনদের। এছাড়াও আগামী ১০ই জানুয়ারীর মধ্যে ঘর নির্মাণ সম্পূর্ণ করে বুঝিয়ে দেয়ার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত অনেক বাড়ীতে পৌঁছেনি গৃহ নির্মাণ সামগ্রী। উজানচর ইউনিয়নে এ বছর ৬০টি ঘর বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। এর মধ্যে প্রত্যন্ত দুর্গম চর মহিদাপুর এলাকায় গৃহহীন ২৬টি পরিবার রয়েছে। এসব ঘরের নির্মাণ সামগ্রী চর মহিদাপুর এলাকায় নিতে তাদেরকে পরিবহন খরচ বাবদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে দিতে হচ্ছে ১৫-২০ হাজার টাকা করে। যারা টাকা দিয়েছেন তাদের ঘর নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। বাকীদের মালামাল এখনো পৌঁছানো হয়নি। মালামাল পরিবহনের টাকা পরিশোধ না করলে তাদের ঘর বাতিল হয়ে যাবে বলেও হুমকি দেয়া হচ্ছে। ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন বহু বছরের পুরাতন কয়েকটি স্কুল ঘর নিলামে কিনে সেই ঘরের অতি নিম্নমানের সামগ্রী গৃহহীনদের নতুন ঘর নির্মানে ব্যবহার করছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। এর আগে ঘরের বরাদ্দ পেতে ওই এলাকার উপকারভোগীদের কাছ থেকে প্রশাসনিক খরচের কথা বলে স্থানীয় কাবুল গাজী নামে এক ব্যক্তি ৫হাজার টাকা করে আদায় করেছেন বলেও অনেকে অভিযোগ করেন। 

  অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিন চেয়ারম্যানের বাড়ীতে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে পুরনো ইট ও ইটের খোয়া এবং পুরনো রড দিয়ে তৈরী করা হচ্ছে গৃহহীনদের ঘরের বিম ও অন্যান্য গৃহ নির্মাণ সামগ্রী। স্তুপ করে রাখা হয়েছে বহু পুরাতন ও নিম্নমানের ইট এবং রড। 

  তবে চেয়ারম্যান আবুল হোসেন ফকির দাবী করেন, পুরাতন নির্মাণ সামগ্রীগুলো আমি ব্যবসায়ীক কাজের জন্য বাড়ীতে সংরক্ষণ করে রেখেছি। সরকারী ঘরের কাজে পুরাতন কোন মালামাল ব্যবহার করিনি। কারো কাছ থেকে কোনরূপ টাকাও গ্রহণ করিনি। ইতিমধ্যে যে ৬টি ঘরের মালামাল উপকারভোগীরা সেখানে নিজেরাই নিয়েছেন আমরা তাদের খরচের টাকা দিয়ে দেব।

  গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, যারা ঘর পেয়েছেন তাদের কাছ থেকে কোন টাকা গ্রহণ করা যাবে না। এ ধরনের অভিযোগের কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। এছাড়া পুরাতন মালামাল ব্যবহারে সংশ্লিষ্ট সকলকে নিষেধ করে দেয়া হয়েছে।

গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নের গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ
রাজবাড়ীর সাবেক সাব-রেজিস্ট্রার গোলাম মাহবুবসহ ৮জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
রাজবাড়ীর ডাঃ আবুল হোসেন কলেজে অচলাবস্থা॥অনিয়ম এখন নিয়মে পরিণত
সর্বশেষ সংবাদ