ঢাকা বৃহস্পতিবার, জুন ২০, ২০২৪
আন্তর্জাতিক যোগাযোগে রেলের নতুন পরিকল্পনা
  • মিনার সুলতান
  • ২০২৩-১১-২০ ১৬:২২:৫৯

বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও ভুটানকে নিয়ে দক্ষিণ এশিয়ায় একটি রেল সংযোগ(কানেকটিভিটি) স্থাপনের পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা চলছে। যে পরিকল্পনাটি বাস্তবায়নে সহায়তা করবে দাতা সংস্থা বিশ্ব ব্যাংক। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে এটি এমন একটি রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা হবে, যেখানে যাত্রী ও পণ্য পরিবহনে কোনো সীমান্ত বাধা থাকবে না। ইউরোপের দেশগুলোর মতো কোনো ধরনের বাধা ছাড়াই এক দেশের রেল আরেক দেশে পণ্য ও যাত্রী নিয়ে যেতে পারবে। 

প্রস্তাবে যা আছে- 

প্রস্তাবিত রেল কানেকটিভিটি প্রকল্পটিকে- বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও ভুটানের সঙ্গে যে মোটরযান চলাচল চুক্তি (বিবিআইএন) তার অনুরূপ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে বিবিআইএন চুক্তিতে ভুটান স্বাক্ষর করেনি। এছাড়া ভুটানে কোনো রেল যোগাযোগ ব্যবস্থাও নেই। তবে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের রেল সংযোগ রয়েছে। নেপালের সঙ্গেও ভারতের রেল সংযোগ আছে। এছাড়া ভারত ও নেপালের মধ্যে আন্তঃসীমান্ত সংযোগের মাধ্যমে জয়নগর-বিজলপুরা-বারদিবাস রেললাইনের কুর্থা থেকে বিজলপুরা পর্যন্ত রেল সেকশন চালু হয়েছে। ফলে বর্তমান অবকাঠামো সুবিধা দিয়ে রেল কানেকটিভিটি চালু হলে বাংলাদেশ, ভারত, নেপালের মধ্যে ত্রিমুখী যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে উঠতে পারে। 

 ইতোমধ্যেই ত্রিপুরা থেকে ঢাকা হয়ে কলকাতার মধ্যে সরাসরি রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু হয়েছে। আঞ্চলিক করিডর ছাড়িয়ে ভারত, নেপালের পাশাপাশি, চীন, পাকিস্তান, ইরান হয়ে ইউরোপ পর্যন্ত এই যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু হলে সুফল পাওয়া যাবে। বিশ্ব ব্যাংকের প্রস্তাবিত ক্রস বর্ডার রেল যোগাযোগ প্রকল্পটি নিয়ে সরকারের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে কাজ করছে যুক্তরাজ্য ভিত্তিক পরিষেবা কোম্পানী ডেলয়েট। কোম্পানীটির প্রতিনিধি দল বিষয়টি নিয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনার আগ্রহ জানিয়ে চিঠিও পাঠিয়েছে।

 ডেলয়েটের সিনিয়র কনসালটেন্ট রুশাভ শাহ সম্প্রতি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো এক চিঠিতে উল্লেখ করেছেন, ‘আমরা বিশ্বব্যাংকের জন্য একটি প্রকল্প হাতে নিচ্ছি, যেখানে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বিশেষ করে বিবিআইএন (বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল, ভুটান) অঞ্চলে আন্তঃসীমান্ত রেল পরিষেবার জন্য রোডম্যাপ তৈরির ওপর মনোযোগ দেওয়া হচ্ছে। বিশ্ব ব্যাংকের সীমান্তবিহীন এই রেল পরিষেবা চালু হলে আন্তঃ আঞ্চলিক বাণিজ্যের আরও বেশি প্রসার ঘটবে বলেও চিঠিতে জানানো হয়। কোম্পানীটির প্রতিনিধি দল এ বিষয়টি নিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ছাড়াও অর্থ মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের(এনবিআর) সঙ্গে আলোচনার আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিতে যা করছে সরকার-

সরকার রেলপথ সম্প্রসারণ, নতুন রেলপথ নির্মাণ ও সংস্কার, রেলপথকে ডুয়েলগেজে রূপান্তরকরণ, নতুন ও বন্ধ রেলস্টেশন চালু, নতুন ট্রেন সার্ভিস চালু, কম্পিউটার বেইজড সিগন্যালিং ব্যবস্থা প্রবর্তন এবং ট্রেনের নতুন কোচ সংগ্রহ অব্যাহত রেখেছে। নতুন নতুন জেলাকে রেল নেটওয়ার্কের আওতায় এনে অভ্যন্তরীণ রেল যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নসহ আন্তর্জাতিক রেল যোগাযোগ, বিশেষ করে ট্রান্স এশিয়ান রেল নেটওয়ার্ক, সার্ক রেল নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠায় সরকারের প্রচেষ্টা দৃশ্যমান।

 ২০১১ সালে রেলপথ বিভাগকে একটি স্বতন্ত্র মন্ত্রণালয়ে উন্নীত করা হয়। ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের সময় স্বাক্ষরিত ৭টি সমঝোতা স্মারকের অন্যতম ছিল ভারতের রেলওয়ের প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটগুলোতে বাংলাদেশ রেলকর্মীদের প্রশিক্ষণ এবং বাংলাদেশ রেলওয়েকে তথ্য প্রযুক্তিগত সহযোগিতা। বাংলাদেশ জাতীয় অর্থনৈতিক সমীক্ষা ২০২৩ অনুসারে, বর্তমানে ৩ হাজার ১০১ কিলোমিটার দীর্ঘ রেললাইনের নেটওয়ার্ক দেশের ৪৩টি জেলাসহ প্রায় সব গুরুত্বপূর্ণ স্থানকে সংযুক্ত করেছে।

আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েলগেজ রেলপথ-

অতি সম্প্রতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কর্তৃক খুলনা-মোংলা এবং আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েল গেজ রেলপথ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের রেল যোগাযোগে অনন্য মাইল ফলক স্থাপিত হয়েছে। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সমুদ্র বন্দর মোংলার সঙ্গে সরাসরি রেল যোগাযোগ ছিল না বিধায় সড়কপথে পণ্য আনা-নেওয়া ছিল অনেক ব্যয় বহুল ও সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। এ রেলপথ চালু হওয়ায় দ্রুততর সময়ে এবং কম খরচে পণ্য পরিবহণের অবারিত সুযোগ উন্মোচিত হয়েছে। পাশাপাশি ভারত, নেপাল ও ভুটান মোংলা বন্দর ব্যবহারে যে আগ্রহ প্রকাশ করেছে; সেক্ষেত্রে এ রেলপথ অনেক সহায়ক হবে বলে প্রত্যাশা। এ প্রকল্পের মাধ্যমে বিভিন্ন অঞ্চলকে রেলওয়ে নেটওয়ার্কের আওতায় আনা, বিশ্বের সর্বাপেক্ষা বড় ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল সুন্দরবনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের জন্য পর্যটকদের আকৃষ্ট করা, রেলওয়ের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ এবং বাংলাদেশ রেলওয়ের রাজস্ব বৃদ্ধি করে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত হয়েছে।

 আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ৭ রাজ্যের সঙ্গে বাংলাদেশের রেলপথের মাধ্যমে নতুন সংযোগ স্থাপিত হয়েছে। ব্যবসায়ী মহলের দাবি, এ উদ্যোগের ফলে ভারতের সেভেন সিস্টার্সে বাংলাদেশের বাণিজ্যের পরিধি আরও বিস্তৃত হবে। বর্তমানে সড়কপথে আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে আগরতলা থেকে পার্শ্ববর্তী রাজ্যগুলোয় রপ্তানি হওয়া পণ্য স্বল্প খরচে রেলপথে নেওয়া সম্ভব হবে। ১২ কিলোমিটার দীর্ঘ এ রেলপথ দ্বারা ভারতের অভ্যন্তরীণ রেল যোগাযোগেও এসেছে নতুন বিপ্লব। রেলপথটি চালু হওয়ায় কলকাতার সঙ্গে আগরতলার দূরত্ব কমেছে প্রায় ১১০০ কিলোমিটার। প্রাথমিক পর্যায়ে এ পথে পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল করলেও অল্প সময়ের মধ্যে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল করবে। 

দোহাজারী-কক্সবাজার রেলপথ-

উদ্বোধন করা হয়েছে নবনির্মিত চট্টগ্রামের দোহাজারী-কক্সবাজার রেলপথ। এই রুটে বাণিজ্যিকভাবে ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। প্রথমবারের মতো রেলপথে যাওয়া যাচ্ছে পর্যটন শহর কক্সবাজারে। যোগাযোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, কক্সবাজার-ঘুনধুম রেলপথ সম্পন্ন হলে বাংলাদেশ ট্রান্স এশিয়ান রেল নেটওয়ার্কের পথে এক ধাপ এগিয়ে যাবে। তাছাড়া কক্সবাজার-ঘুনধুম পর্যন্ত মহাসড়ক সম্প্রসারিত হলে এর আরও বিস্তৃতি ঘটবে, যা মিয়ানমার হয়ে চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় ইউনান প্রদেশের রাজধানী কুনমিং সিটির সঙ্গে আন্তর্দেশীয় মহাসড়কে সংযুক্ত করবে বাংলাদেশকে। ফলে পশ্চিমে আফগানিস্তান থেকে বাংলাদেশ হয়ে পূর্বে চীন অবধি ঐতিহাসিক ‘সিল্ক রুট’ হবে পুনরুজ্জীবিত। 

 জাপান, চীন, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনামের মতো দক্ষিণ, দক্ষিণ-পূর্ব ও পূর্ব এশীয় দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের মধ্যকার পূর্বমুখী (লুক ইস্ট) অর্থনৈতিক দুয়ার হবে উন্মুক্ত। বিনিয়োগ-শিল্পায়ন ও বাণিজ্যিক বন্ধন সহজ হয়ে উঠবে। কৃষি খামার ও শিল্প-কারখানায় উৎপাদিত পণ্যসামগ্রীর বাজারজাত এবং রপ্তানি সুবিধার প্রসার ঘটবে। বৃহত্তর চট্টগ্রামের জনগণের মধ্যে কর্মচাঞ্চল্য ও স্বচ্ছলতা বৃদ্ধি পাবে। 

পদ্মা সেতু রেল সংযোগ ও বঙ্গবন্ধু (যমুনা) রেল সেতু-

দেশের দক্ষিণাঞ্চলে রেলের পরিধি বৃদ্ধিকরণে পদ্মা সেতুতে রেলব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। পদ্মা সেতু ব্যবহার করে বাংলাদেশ থেকে ইউরোপ পর্যন্ত রেলপথ তৈরির জন্য সরকার নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে। গত ১০ই অক্টোবর পদ্মা সেতু হয়ে দক্ষিণের পথে রেলপথ চালু করা হয়েছে। নতুন রেলপথটি ঢাকার গেণ্ডারিয়া, কেরানীগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ থেকে পদ্মা সেতু হয়ে মাদারীপুর-ফরিদপুর গেছে। আগামী বছর এ রেলপথের বাকি অংশ ভাঙ্গা থেকে যশোর পর্যন্ত চালুর লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে বর্তমান সরকার। 

 প্রকল্পের বিশদ বিবরণে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, সমাপ্ত হওয়ার পর রেল যোগাযোগ পদ্মা সেতুর মাধ্যমে দেশের মধ্য ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানী শহরের প্রবেশপথ আরও বর্ধিত হবে, যা মুন্সীগঞ্জ, শরীয়তপুর, মাদারীপুর ও নড়াইল জেলার নতুন এলাকাকে যুক্ত করবে। প্রকল্পটি ঢাকা-যশোর-খুলনাকে ২১২ দশমিক শূন্য ৫ কিলোমিটার সংক্ষিপ্ত রাস্তা দিয়ে বিকল্প রেলপথ সংযোগ স্থাপন করবে। 

 এটি বাংলাদেশের ট্রান্স-এশিয়ান রেলওয়ে নেটওয়ার্কের আরেকটি উপ-রুট স্থাপন, জাতীয়-আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক মালবাহী এবং বিজি কনটেইনার ট্রেন পরিষেবা চালু করবে। এ রুটটি কনটেইনার বহনের জন্য গতি ও লোড সীমাবদ্ধতা থেকে মুক্ত হবে। 

 মিয়ানমার হয়ে চীনের সঙ্গে সংযোগ ঘটাতে ট্রান্স-এশিয়ান রেল রুটের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে স্বপ্নের পদ্মাসেতুর রেল রুট। পদ্মা সেতুর রেল রুটটি পেট্রাপোল সীমান্ত দিয়ে ভারতকে সংযুক্ত করে বেনাপোল-যশোর-নড়াইল-ভাঙ্গা-মাওয়া হয়ে নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা-টঙ্গী-আখাউড়া-চট্টগ্রাম-দোহাজারি হয়ে মিয়ানমারের গুনদুম সীমান্তে গিয়ে মিশবে। 

বঙ্গবন্ধু রেল সেতু-

যমুনার বুকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতু নির্মাণ কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে। বঙ্গবন্ধ সেতুর ৩০০ মিটার উজানে সিরাজগঞ্জ ও টাঙ্গাইলে যমুনার দুই প্রান্তে দুটি ভাগে দেশি, বিদেশি প্রকৌশলী আর কর্মীদের অক্লান্ত পরিশ্রমে চলছে এ সেতুর নির্মাণ কাজ। জাপান এবং বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে রেল সেতু প্রকল্পটির বাস্তবায়ন করছে জাইকা। আগামী বছর চালু করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে কাজ এগিয়ে চলছে। 

 রেল বিভাগের তথ্য মতে, ৪.৮০ কিলোমিটার দীর্ঘ ডুয়েল গেজ ডাবল-ট্র্যাকের এ সেতুটি হবে দেশের সবচেয়ে বড় রেল সেতু। এই সেতুটিতে ঘন্টায় সর্বোচ্চ ১২০ কিলোমিটার বেগে ট্রেন চলতে পারবে। এটির উপর দিয়ে যেকোনো ওজনের মালবাহী ও যাত্রীবাহী ট্রেন চলতে পারবে। এই ব্রিজটির উপর দিয়ে একাধিক লোকোমোটিভ বা ইঞ্জিন দিয়ে ট্রেন চালানো যাবে। সাধারণত মালবাহী ট্রেনগুলোকে প্রায়ই দুটি ইঞ্জিন দিয়ে টানতে হয়। বাংলাদেশ ট্র্যান্স এশিয়ান রেলওয়ে নেটওয়ার্কের সাথে যুক্ত হতে এই সেতুটি সহায়তা করবে। 

আরও যত উন্নয়ন-

 ৯ই ফেব্রুয়ারী প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ রেলওয়ে নির্মিত নতুন তিনটি গুরুত্বপূর্ণ রেলপথ উদ্বোধন করেন। এগুলো হলো-ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা থেকে মন্দবাগ ও কুমিল্লার শশীদল থেকে রাজাপুর পর্যন্ত ৩২ কিলোমিটার দীর্ঘ ডাবল লাইন, ঢাকা-টঙ্গী সেকশনে তৃতীয় ও চতুর্থ ডুয়েলগেজ লাইনসহ টঙ্গী-জয়দেবপুর সেকশনে ডুয়েলগেজ নির্মাণের আওতায় টঙ্গী-জয়দেবপুর ১১ কিলোমিটার ডাবল লাইন এবং পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলায় রূপপুর রেলস্টেশন-নবনির্মাণ-সংস্কার করা ২৬ দশমিক ৫০ কিলোমিটার রেললাইন। লেখক ঃ মিনার সুলতান, গণমাধ্যম কর্মী।

“রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচম” শত বছরের ঐতিহ্যবাহী মিষ্টান্ন
জেলা প্রশাসনের উগ্যোগে রাজবাড়ীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত
পবিত্র শবে বরাতের রাত বা ভাগ্য রজনী
সর্বশেষ সংবাদ