ঢাকা বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪
বাঙালীর ২১শে ফেব্রুয়ারী ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস
  • বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবদুল মালেক মিয়া
  • ২০২৪-০২-২০ ১৫:৩১:২০

বাঙালীর জাতি সত্তার শেকড়ের অনুপ্রেরনার দিন ২১শে ফেব্রুয়ারী। একটি জাতি তার সাংস্কৃতিক চেতনা প্রদীপ্ত রাখার জন্য যে ঘটনাকে উৎস হিসাবে মহিমান্বিত করে বাঙালীর জীবনে মাতৃভাষার জন্য প্রানদান তেমনই একটি অবিনাশী ঘটনা। একুশ তো শুধু একটি ঘটনা নয়, এর সুদুর প্রসারী দিক নিহিত ছিল। যার পথ ধরেই বাঙালীর জাতীয়তাবোধ প্রবলতর হয়, জাতি সত্বার বিকাশ হতে থাকে, স্বাধীকারের দাবী ওঠে, স্বাধীনতার দাবী তীক্ষè হয়। এ সমস্ত দাবীর কেন্দ্রবিন্দুতে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হিসাবে চলে আসেন শেখ মুজিব। এক পর্যায়ে ‘৬৬ সালে শেখ মুজিব ৬দফা দেন। ছাত্র সমাজের পক্ষ থেকে ১১দফা দেয়া হয়, ‘৬৮ সালে ষড়যন্ত্রমূলক আগরতলা মামলায় শেখ মুজিবসহ অনেককে রাজবন্দী করা হয়, ‘৬৯ এ সামরিক শাসকের বিরুদ্ধে আন্দোলন গণঅভ্যুত্থানে রূপ নেয়। ফলশ্রুতিতে আগরতলা মামলা প্রত্যাহার হয়, শেখ মুজিবসহ রাজবন্দীরা মুক্তি পান। অতঃপর শেখ মুজিব আর শেখ মুজিব থাকেন না। রেসকোর্সের গণসম্বর্ধনায় শেখ মুজিব বাঙালীর মুক্তির দুত হয়ে পড়েন, বঙ্গবন্ধুতে রূপান্তরিত হন। বঙ্গবন্ধুর অনুপ্রেরণা ও নির্দেশনায় মুক্তিযুদ্ধ হয় এবং তিনি স্বাধীনতার স্থপতি হয়ে পড়েন। ১৯৭২ সালে প্রণীত সংবিধানে বঙ্গবন্ধু বাঙালী জাতির জনক হিসাবে গোটা বিশে^ পরিচিতি পান।

 ১৯৪৭ সালে অঙ্কুরিত ও ৪৮-৫২ তে বিস্ফোরিত মায়ের ভাষা বাংলাকে (যা তৎকালিন পাকিস্তানের ৫৬ শতাংশ নাগরিকের ভাষা) অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করার সংগ্রাম মূলত বাঙালী জাতীয়তাবাদের তথা স্বাধীনতার মাইলস্টোন হিসাবে বিবেচিত। ১৯৪৮ সালের ১১ই মার্চ মাতৃভাষাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করতে হবে-ছাত্রসমাজ তথা দেশবাসির এ দাবীর আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন শেখ মুজিবসহ অন্য গুণীজনরা। বাংলা ভাষাকে বিলুপ্ত করার চক্রান্ত প্রতিরোধ এবং অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসাবে মাতৃভাষা বাংলার সাংবিধানিক স্বীকৃতি আদায়ের লক্ষ্যে আন্দোলন দানা বাঁধতে থাকে। ১৯৪৮ সালের ২৩শে ফেব্রুয়ারী করাচীতে শুরু হয় পাকিস্তান গণপরিষদের প্রথম অধিবেশন এবং সেই অধিবেশনে পূর্ববঙ্গ থেকে নির্বাচিত সদস্য কুমিল্লার ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত দু’টি সংশোধিত প্রস্তাব উত্থাপন করেন। ভাষা বিষয়ক সংশোধনী প্রস্তাবে বলা হয় যে, উর্দু ও ইংরেজীর পাশাপাশি বাংলাকেও গণপরিষদের কার্য পরিচালনার ভাষা হিসাবে গ্রহন করা হোক। তৎকালিন পাকিস্তান সরকারের মনোভাবি দলের সদস্যদের বিরোধিতার কারণে সংশোধনী প্রস্তাবটি বাতিল হয়ে যায়। মাতৃভাষার বিরুদ্ধে এ চক্রান্ত প্রতিহত করার অঙ্গিকার নিয়ে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্র সমাজ গঠন করে রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ। ১৯৪৮ সাল থেকে ১৯৫২ পর্যন্ত  বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামের মধ্যদিয়ে পূর্ববঙ্গের মানুষের কাছে এ দাবী অত্যন্ত জোড়ালো হয়ে উঠে। রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ ৫২ এর ৪ঠা ফেব্রুয়ারী ঢাকার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘট পালনের কর্মসুচী দেয় এবং ২১শে ফেব্রুয়ারী প্রদেশব্যাপি হরতাল, বিক্ষোভ, সমাবেশ ইত্যাদি আহ্বান করে। পাকিস্তান সরকার ২০শে ফেব্রুয়ারী ঢাকা শহরে ১৪৪ ধারা জারি করে এবং ৪ জনের বেশী সমাবেশ নিষিদ্ধ ঘোষনা করে। ২১শে ফেব্রুয়ারী সংগ্রামী ছাত্র-জনতা ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে মিছিল নিয়ে অগ্রসর হলে পুলিশ ঢাকা মেডিকেল কলেজের সন্নিকটে গুলি চালাতে শুরু করে এবং বিশ^বিদ্যালয়ের এমএ ক্লাসের ছাত্র আবুল বরকত, সালাম, রফিক, জব্বার, শফিউর রহমান প্রমুখ শহীদ হন। রাষ্ট্রীয় ও সমাজ জীবনের সর্বত্র মাতৃভাষা বাংলা প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে আত্মাহুতি দেয়া শহীদদের স্মরণে ১৯৫৬ সালে প্রথমবারের মতো একুশে ফেব্রুয়ারী রাষ্ট্রীয়ভাবে পালিত হয়েছিল। সে বছর যুক্তফ্রন্টের অংশ বিশেষের ভাগাভাগিতে আবু হোসেন সরকারের নেতৃত্বে তৎকালিন পূর্ব বাংলায় গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এর পর পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় একুশে ফেব্রুয়ারী পালন করার জন্য বাংলাদেশের স্বাধীনতা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছে। ১৯৭২ সাল থেকে অতঃপর প্রতিবছর ২১শে ফেব্রুয়ারী জাতীয় মর্যাদায় অভিসিক্ত হয়ে আমরা ভাষা শহীদ দিবস পালন করি। অমর একুশে মহান শহীদ দিবস আমাদের জাতীয় জীবনে ও সমকালিন ইতিহাসের প্রেক্ষাপটে এক অভূতপূর্ব ঘটনা। কিন্তু এই একুশ শুধু আর এখন আমাদের গর্বের বিষয় নয়, এটা এখন বিশে^র ৬০০০ মাতৃভাষাভাষি মানুষের মাতৃভাষা রক্ষার মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে পালিত হচ্ছে। ১৯৯৯ সালের ১৬ই নভেম্বর জাতিসংঘের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য সংরক্ষণ প্রতিষ্ঠান ইউনেস্কোর (UNESCO) পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে একুশে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি অনুমোদন হয়। 

 কিন্তু কেমন করে ২১শে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মর্যাদা পেল তা আমাদের দেশের অনেক ব্যক্তি বিশেষ করে আমাদের তরুন সমাজের অনেকেই প্রকৃত ইতিহাস জানে না। এ ব্যাপারে ২০০০ সালে ড. মোহাম্মদ হান্নান দৈনিক জনকন্ঠ পত্রিকায় ও ২০০৬ সালে যুগান্তর পত্রিকার চীফ রিপোর্টার রফিকুল ইসলাম রতন বিস্তারিত তথ্য উল্লেখ করে প্রকাশ করেছিলেন।

 আমাদের রাজবাড়ী জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তরুণ ছাত্র-ছাত্রী ও তাদের অভিভাবক-শিক্ষকসহ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব সকলের অবগতির জন্য আমি ড. হান্নান ও রফিকুল ইসলাম রতন প্রদত্ত তথ্য হতে কিছু উদ্ধৃত করছি- 

 একুশে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের সম্মানলাভ করার পিছনে যারা ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেছিলেন তারা হলেন বাংলাদেশ সরকারের তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শিক্ষামন্ত্রী এএসএইসকে সাদেক, ইউনেস্কোতে তৎকালিন বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি সাবেক পররাষ্ট্র সচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, বাংলাদেশ ন্যাশনাল কমিশন ফর ইউনেস্কোর তৎকালীন সচিব প্রফেসর কফিল উদ্দিন আহমেদ, ইউনেস্কোর মহাপরিচালকের তৎকালিন উপদেষ্টা আর এক বাঙালী কৃতি সন্তান তোজাম্মেল হক- যিনি সবার কাছে টনি হক নামে পরিচিত এবং কানাডার ভেনকুভারে বসবাসকারী বাংলাদেশের ছেলে রফিকুল ইসলাম ও তার সহযাত্রীরা। ১৯৯৫ সাল থেকে কানাডায় বসবাসরত এই রফিকুল ইসলাম একুশের প্রেরণায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ১৯৯৭ সালের শেষ দিকে জাতিসংঘের তৎকালিন মহাসচিব কফি আনানকে একটি চিঠি লিখে বলেন, ‘বিশে^র বহুভাষা ইতোমধ্যেই বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। বহুদেশে মাতৃভাষার পরিবর্তে অন্য ভাষাও চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। বিশে^র একমাত্র দেশ বাংলাদেশ যেখানে মাতৃভাষার জন্য দীর্ঘ লড়াই-সংগ্রাম ও জীবন উৎসর্গ করে  উর্দুর পরিবর্তে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারী শুধু মাতৃভাষার জন্য রাজপথে পুলিশের গুলিতে প্রাণ দিয়েছেন সালাম, বরকত, রফিক, শফিক, জব্বারসহ আরও নাম না জানা অনেকেই। পৃথিবীর ভাষাসমুহের রক্ষা, বিকাশ এবং ভাষার জন্য আত্মত্যাগের এসব ইতিহাসকে স্মরণে রাখার জন্য একুশে ফেব্রুয়ারকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষনার দাবী জানাই’।  

 জাতিসংঘ মহাসচিবের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা ২৩/০১/১৯৯৮ তারিখে এই চিঠির উত্তরে রফিকুল ইসলামকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে জানান, কোন ব্যক্তি, দল বা গোষ্ঠির পক্ষ থেকে দাবী বা প্রস্তাব জানালে তা বিবেচনা করার তাদের কোন সুযোগ নেই। প্রস্তাবটি আসতে হবে জাতিসংঘের কোন সদস্য রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে। রফিকুল ইসলাম এই চিঠি পেয়ে প্রথমেই আলাপ ও পরামর্শ করলেন ভেনকুভারে বসবাসকারী আর এক বাঙালী আবদুস সালামের সাথে। বিষয়টি জেনে তিনিও আগ্রহ দেখালেন এবং কিছু একটা করা যায় কিনা তা নিয়ে দু’জনে কাজে নেমে পড়লেন। এরই মধ্যে তারা ভেনকুভারে বসবাসকারী অন্যান্য দেশের ও ভাষার সমমনা বন্ধুদের সঙ্গে কথা বলে গড়ে তুললেন ‘মাদার ল্যাঙ্গুয়েজ লাভার্স অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ নামে একটি সংগঠন। ৭ ভাষা ও জাতির ১০ প্রতিনিধি নিয়ে গড়ে ওঠা এই সংগঠনের পক্ষ থেকে ১৯৯৮ সালের ২৯শে মার্চ আবারও জাতিসংঘের মহাসচিব কফি আনানের কাছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষনার দাবী জানিয়ে আগের মতোই প্রস্তাব পাঠানো হয়। প্রস্তাবে বলা হয়, `The Bangalis have played a very important role in protecting their Mother language from serious crisis related to its existence. In today`s world there are many nation and/or communities still facing serious crisis and threat against their Mother language’| সংগঠনের যে ১০ প্রতিনিধি এই প্রস্তাবে স্বাক্ষর করেছিলেন তারা হচ্ছেন- ফিলিপিনো ভাষার এলবার্ট ভিনজন ও কারমান ক্রিস্টোভাল, ইংরেজী ভাষার জেসেন মরিস ও সুজান হর্জিন, চীনের ক্যান্টোনিজ ভাষার ড. কেলভিন চাও, জার্মান ভাষার রেনেটো মার্টিন, ভারতের কাচি ভাষার নাজনীন ইসলাম, হিন্দি ভাষার অরুণা জসি এবং বাংলাভাষার রফিকুল ইসলাম ও আবদুস সালাম। এবার রফিকুল ইসলামসহ অন্যরা কানাডার নাগরিক হিসাবে জাতিসংঘে নিযুক্ত কানাডার স্থায়ী প্রতিনিধির মাধ্যমে চিঠি পাঠালেন। কিন্তু এতে বিপদ আরো বাড়লো। জাতিসংঘে নিযুক্ত কানাডার স্থায়ী প্রতিনিধি এটিকে পাঠিয়ে দিলেন কানাডার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। এখানে চিঠিটি এ-টেবিল সে-টেবিল ঘুরাঘুরি করে প্রায় বছর খানেক পর নিউইয়র্ক পৌঁছে। মহাসচিবের অফিস থেকে জানানো হলো, এটি পাঠাতে হবে জাতিসংঘের শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক সংস্থা ইউনেস্কোর প্রধান কার্যালয় প্যারিসে। এবারও উদ্যম না হারিয়ে রফিক ও সালাম অনেক কষ্টে প্যারিসের ঠিকানা সংগ্রহ করেন। সংগঠনের পক্ষ থেকে ইউনেস্কোর ভাষা বিষয়ক পরিচালক ড. পার্থের কাছে টেলিফোন করে রফিক সর্বপ্রথম তাদের প্রস্তাবের কথা জানান। এরই আলোকে পরে ১৯৯৯ সালের প্রথম দিকে তারা আবার চিঠিও পাঠান। চিঠি পেয়েই সেখানকার ভাষা বিভাগের প্রোগ্রাম স্পেশালিস্ট আন্না মারিয়া মাজলন ৩রা মার্চ উত্তরে জানান, এটি একটি আকর্ষণীয় ও চমৎকর প্রস্তাব। 

 মাতৃভাষা দিবস ঘোষনার এই চমৎকার নতুন আইডিয়ার তিনি খুবই প্রশংসা করেন। পরে আবারও আন্না মারিয়া ৮ই এপ্রিল-১৯৯৯ এক চিঠিতে পরামর্শ দেন যে, এ ধরনের প্রস্তাব কোন সংগঠনের পক্ষ থেকে পাঠালে চলবে না। প্রস্তাব আসতে হবে জাতিসংঘ তথা ইউনেস্কোর কোন সদস্য রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে (Of course, as I also mentioned to you, the eventual adoption of the document depends on the interest of the Board Members)| এই চিঠি পেয়ে সংগঠনের সমন্বয়কারী রফিকুল ইসলাম আবার টেলিফোনে যোগাযোগ করেন আন্নার সঙ্গে। চিঠি আদান-প্রদান এবং টেলিফোনে কথাবার্তার মধ্য দিয়ে আন্না মারিয়ার সাথে রফিকুল ইসলামের যে সখ্য গড়ে ওঠে তারই সুত্র ধরে আন্না ইউনেস্কোর সদস্য রাষ্ট্রের একটি তালিকাও পাঠান রফিকের কাছে। তালিকা পেয়ে রফিক অন্যদের সাথে যোগাযোগ করে ২৩শে জুন ১৯৯৯ কানাডা, বাংলাদেশ, ভারত, ফিনল্যান্ড ও হাঙ্গেরীর সরকারের কাছে চিঠি দিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস প্রস্তাব উত্থাপনের দাবী জানান। এরই মধ্যে হাঙ্গেরী থেকে রফিকুল ইসলামের কাছে চিঠির উত্তর আসে। ১৬ই আগস্ট তারা চিঠি দিয়ে জানান, এটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রস্তাব। আমরা এই প্রস্তাবে সমর্থন জানাচ্ছি। তারা বাংলাদেশে একুশে ফেব্রুয়ারীর আত্মত্যাগের কথা জানতে পেরে বিস্ময় প্রকাশ করে সব ধরনের সহায়তারও আশ^াস দেন। কিন্ত বাংলাদেশ থেকে কোন উত্তর না পেয়ে রফিকুল ইসলাম মনে খুবই কস্ট পান। পরে তিনি ইউনেস্কোর দেয়া ঠিকানা অনুযায়ী বাংলাদেশ ন্যাশনাল কমিশন ফর ইউনেস্কো (সংক্ষেপে BNCU) এর সচিব প্রফেসর কফিল উদ্দিন আহমেদের সাথে আলাপে জানতে পারেন যে, তিনি চিঠি পাননি। রফিকুল ইসলাম জুন ‘৯৯ চিঠির একটি কপি তার কাছে পাঠান। কফিল উদ্দিন খুবই আগ্রহের সঙ্গে বিষয়টি নেন এবং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সম্ভাব্য সবকিছু করার প্রতিশ্রুতি দেন।

 এদিকে ২৩শে জুন ১৯৯৯ কানাডা থেকে রফিকুল ইসলামের চিঠি পেয়েই শিক্ষামন্ত্রী এএসএইসকে সাদেকের নির্দেশে ফাইলের কাজ শুরু হয়। প্রধানমন্ত্রী অফিসের পরিচালক মশিউর রহমান ১২ই আগস্ট ১৯৯৯ এক চিঠিতে শিক্ষা সচিবকে জানান, এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়ের মতামত নিতে হবে (প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়:পত্র সুত্র নং- ৪২.১০.৩০.০.০.১১৩.৯৯-১৩১ তারিখঃ ১২.০৮.১৯৯৯)। চিঠি পেয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে সংশ্লিষ্ট ৮টি মন্ত্রণালয়ে চিঠিও পাঠান হয়(পত্র সুত্র নং- বিএনসিইউ/ইডি-২৫/৯৯/৬৬৭-শিক্ষা, তারিখ ঃ ১৮.০৮.১৯৯৯)। শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ৭ই সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে চিঠি দিয়ে জানানো হয়, একটিমাত্র মন্ত্রণালয় ছাড়া আর কেউই চিঠির উত্তর দেয়নি। এরই মধ্যে কানাডা থেকে রফিকুল ইসলাম শিক্ষা সচিব কাজী রকিব উদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক মশিউর রহমান ও ইউনেস্কো সচিব জনাব কফিল উদ্দিনকে টেলিফোনে জানান যে, ১০ই সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রস্তাবটি ইউনেস্কোর সদর দফতরে পাঠতে হবে। তা না হলে প্রস্তাবটি অধিবেশনে উঠবেই না। এ কথা জানতে পেরেই শিক্ষা সচিব প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিবের কাছে চিঠি লেখেন যে, বর্তমান অবস্থাতেই প্রস্তাবটির সারসংক্ষেপ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে দেয়া যেতে পারে। বিষয়টি শিক্ষামন্ত্রী জানতে পেরে তিনি জাতীয় সংসদ অধিবেশন চলাকালে এ বিষয়ে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে। প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি জানার সঙ্গে সঙ্গেই অনুমোদনের মৌখিক নির্দেশ দিয়ে দিলেন এবং অতি দ্রুত প্রস্তাবটি প্যারিসে ইউনেস্কোর সদর দফতরে পাঠানোর ব্যবস্থা করার জন্য শিক্ষামন্ত্রীকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে বলেন। এ সবকিছুই ঘটে গেল বিস্ময়কর দ্রুততার সঙ্গে। এরই মধ্যে রফিকুল ইসলামের সহযোগিতায় ইউনেস্কো থেকে প্রস্তাব উত্থাপনের নির্ধারিত ফরম সংগ্রহ করা হয় এবং সেই ফরমেই বাংলাদেশের ইউনেস্কো সচিব অধ্যাপক কফিল উদ্দিন ৯ই সেপ্টেম্বর তারিখে প্রস্তাবটি সদর দফতরে পাঠিয়ে নিশ্চিত করলেন যে, তারা সেটি পেয়েছেন। বাংলাদেশপ্রস্তাবের শেষ লাইনে লেখে : Proposes that 21 February be proclaimed International Mother language day throughout the world to commemorate the martyrs who sacrificed their lives on this very date in 1952. এই কাজের মধ্যে অবিশ্বাস্য রকমের সহযোগিতা করেছেন ইউনেস্কোতে তৎকালিন বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও প্যারিসের তৎকালিন রাস্ট্রদূত সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী এবং ইউনেস্কোর মহাপরিচালকের উপদেষ্টা আর এক বাঙালী কৃতি সন্তান তোজাম্মেল হক- যিনি সবার কাছে টনি হক নামে পরিচিত। এ প্রস্তাবটি হাতে পেয়ে ইউনেস্কোর তৎকালিন মহাসচিব মাহলি রোসাও দারুন উৎফুল্ল হলেন এবং তার সার্বিক সহযোগিতায় প্রস্তাবের খুটিনাটি বিষয় নিয়ে কাজ শুরু হলো। ইউনেস্কো নির্বাহী বোর্ডের ১৫৭তম অধিবেশনে যোগ দেয়ার জন্য শিক্ষামন্ত্রী এএসএইসকে সাদেকের নেতৃতে একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল প্যারিসে পৌঁছেই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষনার প্রস্তাবটি নিয়ে অধিবেশনে আগত বিশে^র ১৮৮ দেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে জোর কুটনৈতিক তৎপরতা শুরু করে।

 শিক্ষামন্ত্রী তার মেধা, প্রজ্ঞা ও বিচক্ষণতা দিয়ে অধিবেশনে একুশে ফেব্রুয়ারীর তাৎপর্য, গুরুত্ব, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রয়োজনীয়তা, বাংলা ভাষার জন্য সংগ্রাম ও আত্মত্যাগের ইতিহাস তুলে ধরলেন। অধিবেশনে উপস্থিত অন্যান্য দেশের শিক্ষামন্ত্রীদের সঙ্গেও তিনি ব্যক্তিগতভাবে দেখা করে প্রস্তাবের সমর্থন আদায়ের জন্য জোর লবিং শুরু করেন। কিন্তু ভূল বুঝে বাদ সাধলেন খোদ ইউনেস্কোর মহাপরিচালক নিজেই। তিনি প্রথমেই বললেন, প্রস্তাবটি ‘ইন্টারন্যাশনাল মাদার ল্যাঙ্গুয়েজ ডে’ হবে না, হবে ‘ইন্টারন্যাশনাল মাদার টং ডে’। তিনি আরো বললেন, আর এজন্য বিপুল অংকের অর্থের প্রয়োজন হবে। তিনি এজন্য এক লাখ ডলারের একটি বাজেটও প্রস্তুত এবং প্রস্তাবটির সম্ভাব্যতা যাচাই করার কথা জানালেন। এ অবস্থায় প্রস্তাবটি যখন প্রায় বাতিল হওয়ার পর্যায়ে তখন শিক্ষামন্ত্রী ইউনেস্কোর উপদেষ্টা টনি হকের সহযোগিতায় মহাপরিচালকের সাথে দেখা করে তাকে বোঝাতে সক্ষম হন যে, এর জন্য এক পয়সাও লাগবে না। বিভিন্ন ভাষাভাষি মানুষ নিজেরাই নিজেদের ভাষার মর্যাদার প্রয়োজনে মাতৃভাষা দিবস পালন করবে। মহাপরিচালক যখন অনেকটাই নরম সুরে কথা বলছেন, ঠিক ওই সময়েই বাংলাদেশ মিশনের সদস্যরা ভিতরে ভিতরে প্রস্তাবের সমর্থনে ২৯টি দেশের লিখিত সমর্থন আদায় করে নেন। ভারত, ইন্দোনেশিয়া, ওমান, শ্রীলংকা, মিসর, রাশিয়া, ফিলিপাইন, ইতালী, ইরান, সিরিয়া, হন্ডুরাস, ভানুয়াতু, বেনিন, বাহামাস, ডমিনিকান রিপাবলিক, আইভরিকোষ্ট, মাক্রোনেশিয়া, পাপুয়া নিউগিনি, লিথুয়ানিয়া, পাকিস্তান, কমোরোস, বেলারুশ ও গাম্বিয়ার সমর্থনের পর প্রস্তাবটি জোরালো হয় এবং অন্য সবাই প্রস্তাবটি ব্যক্তিগতভাবে সমর্থন জানালো। সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হলো, প্রস্তাবটির বিপক্ষে একটি দেশও কোন মন্তব্য করেনি। এভাবে ১২ ও ১৩ই সেপ্টেম্বর-১৯৯৯ কেটে গেল দারুন উৎকন্ঠা-উদ্বেগ আর প্রচুর ব্যস্ততার মধ্য দিয়ে। তখনও আশঙ্কা ছিল প্রস্তাবটি পাশ হয় কী না হয়। অবশেষে ১৬ই নভেম্বর ১৯৯৯ তারিখ বিকাল বেলায় ইউনেস্কোর পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে বিপুল করতালি আর হর্ষধ্বনির মধ্য দিয়ে প্রস্তাবটি পাস হয়ে সৃষ্টি করে এক নতুন ইতিহাস। প্রস্তাবক হিসাবে বাংলাদেশের সাথে সৌদি আরবের নামও যুক্ত হয়। সমর্থক হিসাবে আসে উল্লিখিত ২৯টি দেশের নাম। তারপর হতে প্রতিবছর সারা পৃথিবীতে বাঙালীর ২১ শে ফেব্রুয়ারী আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়ে আসছে।

 বাংলা ভাষার রাষ্ট্রীয় মর্যাদার জন্যই একদিন ভাষা আন্দোলনের সুত্রপাত হয়েছিল। উর্দু বাঙালীর মাতৃভাষার ওপর আধিপত্য বিস্তার করতে চেয়েছিল, উর্দু ওয়ালারা সফল হলে আজ হয়ত ‘বাংলা’ নামে কোন মাতৃভাষা পাওয়া যেতো না। যেমনটি ঘটেছিল ব্রিটেনে, ইংরেজীর আধিপত্যে ১৭৭৭ সালে সে দেশ থেকে ‘ষ্ক্রকর্নিশ’ ভাষা বিলুপ্ত হয়ে যায়। আজ পাকিস্তানীরা নেই, উর্দুর দাপটের প্রশ্নও তাই নেই। কিন্তু বাংলা ছাড়াও বাংলাদেশে আরো বেশ কয়েকটি ক্ষুদ্র জাতির মাতৃভাষা রয়েছে। বাংলার আধিপত্যে যাতে সে সব চাকমা, মারমা, গারো, খাসি, সান্তাল, ত্রিপুরা, ওঁরাও  ইত্যাদি ক্ষুদ্র জাতি-গোষ্টির মাতৃভাষা বিলুপ্ত হয়ে না যায় তার দিকে আজ চোখ ফিরিয়ে দিয়েছে একুশে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। বাঙালী মহান জাতি, তাদের ভাষা চেতনা আজ সমগ্র বিশ^কে মাথা পেতে নিতে হয়েছে।

লেখক : গেরিলা রণকৌশলে ভারতের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সরকারের সাবেক সচিব এবং ৭১’ এ রাজবাড়ী জেলা শত্রুমুক্ত করার অন্যতম নায়ক।

 

“রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচম” শত বছরের ঐতিহ্যবাহী মিষ্টান্ন
জেলা প্রশাসনের উগ্যোগে রাজবাড়ীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত
পবিত্র শবে বরাতের রাত বা ভাগ্য রজনী
সর্বশেষ সংবাদ