ঢাকা বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪
পবিত্র শবে বরাতের রাত বা ভাগ্য রজনী
  • আলহাজ্ব মাওলানা মোঃ দাউদ খান
  • ২০২৪-০২-২৪ ১৪:৩৩:২৮

ইসলামের সর্বাধিক ফযিলতপূর্ণ ও বরকতময় রজনীগুলোর মধ্যে একটি হচ্ছে পবিত্র শবে বরাত। উম্মাতে মোহাম্মদীর মর্যাদা বৃদ্ধি, রহমাত ও মাগফিরাতের জন্য মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে পবিত্র শবে বরাত এক মহানিয়ামত। পাপ-পঙ্কিলতায় জর্জরিত হতভাগ্য কোন ব্যক্তির জন্য খাঁটি তওবা করে আল্লাহর নৈকট্য হাসিলের অপূর্ব সুযোগ এ মহিমান্বিত রজনী।

 সৃষ্টিকর্তা আল্লাহপাক সমস্ত জীবের জন্য খাদ্য তৈয়ার করিয়া রাখিয়াছেন। ইহাকে আরবীতে রেযেক বলা হয়। রেযেক শব্দের অর্থ খাদ্য। সমস্ত জীব, প্রাণী, বৃক্ষ, তরুলতা, কীট পতঙ্গ সবার জন্য ভিন্ন ভিন্ন কায়দায় কৌশলে খাদ্যের ব্যবস্থা করিয়া রাখিয়াছেন।

 যেমন- স্তন্যপায়ী প্রাণী মায়ের স্তনে শিশু জন্ম গ্রহণ করার পূর্বেই খাদ্যের ব্যবস্থা করিয়া রাখিয়াছেন। অনুরূপভাবে মানুষের জন্যও খাদ্যের ব্যবস্থা রহিয়াছে। আল্লাহপাক পবিত্র কোরআন মজীদে ঘোষণা করেন, আল্লাহ খয়রুর রাজেকীন-অর্থ আল্লাহ পাক উত্তম খাদ্য দাতা। হে মানুষ শবে বরাতের রাত্রে তোমরা আমার নিকট খাদ্যের জন্য প্রার্থনা কর আমি তোমাদের আশা পূর্ণ করিব। তাই আরবী ১২ মাসের ৮ম মাসের নাম শাবান। এই মাসের ১৫ তারিখে পবিত্র শবে বরাত অনুষ্ঠিত হয়। শবে বরাত ফর্সি শব্দ। শব মানে রাত্রি আর বরাত মানে ভাগ্য। এই জন্য ভাগ্য রজনী বলা হয়। শবে বরাত মুসলমানদের জন্য একটি বিশেষ পূর্ণ জনক কাজের রাত। এই রাত্রে আল্লাহতালা খাস রহমত তাঁহার সৃষ্টির উপর বর্ষণ করেন। এই জন্য শবে বরাতকে রহমতের রাত্রি বলা হয়। এই রাত্রে সকলের আমলনামা লিখা হয়। গুনাহ মাফ, রোগমুক্তি আগামী ১ বৎসরে কে মরিবে, কে পয়দা হইবে এবং সুখ দুঃখ ইত্যাদি লেখা শেষ করিয়া ফেরেশতাগণ ছুটি পান। এই রাত্রি খোদা তাআলা দুনিয়াবাসীকে তাহাদের গোনাহ মাফের জন্য তওবা কবুল করিতে, অভাব গ্রস্থের দূরীভূত করিতে ও মনোবাঞ্ছা পূর্ণ করিতে প্রতিশ্রুতি দান করিয়াছেন। কিন্তু মোশরেক, জাদুকর, গণক, বখীল, সুদখোর, শরাব খোর ও  জিনাহকারী, নেশাখোর, পিতা-মাতাকে কষ্টদায়ককে আল্লাহ্তাআলা মাফ করিবেন না। 

 এই রাত্রের গুনাগুণ ও ফজিলত অফুরন্ত- যাহা বর্ণনা করে শেষ করা যায় না। রাসূলে করিম(সাঃ) এক হাদীসে এরশাদ ফরমাইয়াছেন- তুবা লিমাই ইয়ামাল ফি লায়লাতিন নিসফি মিন শাবানা অর্থাৎ-খুশি তাহার জন্য, যে শাবান চাঁদের পনের তারিখ রাতে এবাদতে রত থাকে। রাসূলে করিম (সঃ) আরও এরশাদ করেন- ইন্নালাহা ইয়ার হামু ইছাতা উম্মাতি ফি লাইলাতুল নিসফিমিন শাবানা বিআদাদী শুউরী আন আমি বানী কালবিন ওয়া বানী রবি ও বানী ওয়া মুদারা। অর্থাৎ-নিশ্চই আল্লাহ তাআলা এই রাত্রে বাণী কালব, বানী রবি এবং বানী মুদার গোত্রের সমগ্র ভেড়া বকরী পশমের সংখ্যার পরিমান আমার গুনাহগার উম্মতের জন্য মার্জনা করিবেন। বর্ণিত আছে-এই তিনটি গোত্রের প্রত্যেক গোত্রের ২০ হাজার করিয়া ভেড়া, বকরী পালিত হইত। 

 অন্য এক হাদিসে আছে- মানসামা ইয়াওমাল খামসে আশারা মিন শাবানা লাম তাসসাস হুন নারু আবাদা অর্থাৎ-যে ব্যক্তি শাবান মাসের ১৫ তারিখে রোযা রাখিবে তাহাকে কখনও দোযখের আগুন স্পর্শ করিবে না। অপর এক হাদিসে বর্ণিত হইয়াছে শবে বরাতের তারিখে আসমান হইতে ৭০ লাখ ফেরেশতা নাজিল হইয়া ইবাদতকারীদিগকে অবলোকন করেন এবং তাহাদের জন্য সওয়াব লিখিতে থাকেন। কালইউবী কিতাবে আছে একদিন হযরত ঈসা(আঃ) আল্লাহ তায়ালার নিকট ফরিয়াদ করিলেন, হে খোদা এ জামানায় আমার চেয়ে বুজুর্গ আরো কেহ আছে কি? তদুত্তরে আল্লাহতায়ালা বললেন, হাঁ নিশ্চই তুমি সামনে একটু গিয়া দেখ। ইহা শুনিয়া ঈসা(আঃ) পথ চলতে চলতে পথিমধ্যে একটা সুন্দর ঝকঝকে পাথর দেখে অবাক হইলেন। গায়েব হইতে আওয়াজ হইল তোমার হাতের লাঠিদ্বারা উহার উপর আঘাত কর। তাৎক্ষণাত পাথর আঘাত পাওয়া মাত্র ফাটিয়া দুই ভাগ হইয়া গেল। দেখলেন ভিতরে একজন জইফ বৃদ্ধ তাজবীহ হাতে খোদার ধ্যানে মগ্ন আছেন। সামনে একটা আনার পড়িয়া আছে। ঈসা(আঃ) বলিলেন, মান্যবর আপনি কে? কতদিন এখানে আছেন? বৃদ্ধ লোকটি বলল, আমি এই এলাকার একজন লোক। মায়ের দোয়ায় আল্লাহ আমাকে এই নিয়ামত দান করিয়াছেন। ৪০০ বৎসর আমি এই অবস্থায় আছি। আল্লাহ পাক আমাকে বেহেস্ত থেকে খানা পাঠান। আল্লাহপাক বললেন, হে ঈসা তুমি অবাক হইতেছ কেন? আমার উম্মতি মোহাম্মাদের মধ্যে কোন লোক এই ১৫ই শাবানের রাতে ইবাদত করিবে আল্লাহতায়ালা তাহাকে ইহার চেয়ে বেশী ছওয়াব দান করিবেন। তখন ঈসা(আঃ) আফসোস করিয়া বলিলেন, হে খোদা তুমি যদি আমাকে নবী না করে শেষ জামানায় নবীর একজন উম্মত বানাইতে তবে আমি খুব খুশি হইতাম। আল্লাহতায়ালা তার দোয়া কবুল করিলেন। আরো একটি হাদিসে আছে- শাবান চাঁদে ১৩, ১৪, ১৫ তারিখে যে রোযা রাখিবে কাল কেয়ামতে সে বেহেস্তি উটে চড়ে কবর হইতে উঠতে পারবে। হাদিসে আছে- ১৪ই শাবান সূর্য অস্ত যাইবার সময় লা হাওলা কুয়্যাতা ইল্লাহবিল্লাহি ৪০ বার পাঠ করিলে ৪০ বৎসরের সগীরা গোনাহ  মাফ হইয়া যাবে।  

 আল্লাহর নবী বলেছেন, ইবাদতের উদ্যেশ্যে সন্ধ্যায় যে গোসল করিবে তাহার আমলনামায় প্রতিফোটা পানির পরিবর্তে সাতশত রাকআত নফল নামাজের  ছওয়াব লেখা হইবে। এই রাতের জন্য শুধু নামাজ পড়া খাস নহে। যে কোন সূরা দিয়া নামাজ যে যত রাকআত পড়তে পারে, পড়বে। আর কোরআন তেলওয়াত যিকির কলমা পাঠ করবে সূরা দোখান সাত মরতবা সূরা ইয়াছিন, তিন মরতোবা, পাঠ করলে তার তিনটি উদ্দেশ্য সফল হবে। ১। রিজিক বৃদ্ধি ২। হায়াত বৃদ্ধি ও ৩। সমস্ত পাপ মার্জনা হবে। 

 আমাদের দেশে রুটি হালুয়ার একটা প্রচলন আছে। কোরআন হাদীসে ইহার কোন সত্যতা প্রমাণ পাওয়া যায় না। তবে যাহারা রোযাদারদের ইফতারী, গরীব, মিসকিন ও ইবাদতকারীদের খাওয়ানোর উদ্দেশ্যে আরও সুস্বাদু খাবার তৈয়ার করে খাওয়ালে দোষ নাই, ছওয়াব হবে। ইহাকে সুন্নাত মনে করলে বেদাতীর গোনাহ হবে। 

 লেখক : আলহাজ্জ্ব মাওলানা মোঃ দাউদ খান, সভাপতি, সুলতানপুর ইউনিয়ন জাকের পার্টি, সুলতানপুর, রাজবাড়ী।

 

 

“রাজবাড়ীর ক্ষীর চমচম” শত বছরের ঐতিহ্যবাহী মিষ্টান্ন
জেলা প্রশাসনের উগ্যোগে রাজবাড়ীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত
পবিত্র শবে বরাতের রাত বা ভাগ্য রজনী
সর্বশেষ সংবাদ