ঢাকা বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪
বীর মুক্তিযোদ্ধা ইহসানুল করিম সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতা করে গেছেন ঃ স্মরণ সভায় বক্তারা
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২৪-০৩-২৬ ১৭:২৯:১০

 একজন সৎ, আদর্শ ও নীতিবান সাংবাদিক হিসেবে ইহসানুল করিমের অবদান জাতি সব সময় শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সাংবাদিক বীর মুক্তিযোদ্ধা ইহসানুল করিম ৫২ বছরের সাংবাদিকতায় জীবনে সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতা করে গেছেন। তার মৃত্যুতে সাংবাদিক জগতে অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে।

 গত ২৫শে মার্চ রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অব ম্যাস কমিউনিকেশন(আইআইএমসি) অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ(ইমকাবিডি) আয়োজিত এক স্মরণসভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। 

 ইহসানুল করিম ছিলেন ইমকাবিডির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। ১৯৭৯ সালে ভারতের নয়াদিল্লিতে অবস্থিত আইআইএমসিতে বাংলাদেশ থেকে বৃত্তি নিয়ে যাওয়া প্রথম শিক্ষার্থী ছিলেন তিনি। 

 ইমকাবিডির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আজিজুল ইসলাম ভুইয়ার সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন এমপি, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার(বাসস) ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সভাপতি ওমর ফারুক, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শ্যামল দত্ত, বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুভাষ চন্দ(বাদল), বাসসের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক আনিসুর রহমান, ইমকাবিডির জ্যেষ্ঠ সদস্য ফরিদ হোসেন, বাসস’র প্রধান বার্তা সম্পাদক সমীর কান্তি বড়ুয়া, সিনিয়র সাংবাদিক মনোজ কান্তি রায় এবং ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটির(ডিআরইউ) সাবেক সভাপতি মোঃ শফিকুল করিম, ইহসানুল করিমের পরিবারের সদস্য কঙ্কা করিম ও ইহসানুল করিমের ছেলে মঈন করিম, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সোহেল হায়দার চৌধুরী ও ডিকাবের সভাপতি নুরুল ইসলাম হাসিব প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইমকাবিডির সাধারণ সম্পাদক জাহিদ নেওয়াজ খান। 

 সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ  আরো বলেন, সাংবাদিকতার পথচলায় সাহস ও অনুপ্রেরণা দিয়েছেন ইহসানুল করিম। ভালো সাংবাদিকতার পাশাপাশি মানবিক মানুষ ছিলেন ইহসানুল করিম। বন্ধুসুলভ আচরণ দিয়ে তিনি ছোট বড় সব সাংবাদিকদের আপন করে নিতেন। তার মৃত্যুতে সাংবাদিকতা জগতে অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। 

 স্মরণ সভায় ইহসানুল করিমের ছেলে মঈন করিম বলেন, তিনি সাংবাদিক হিসেবে যেমন বিপদে আপদে সাংবাদিকদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তেমনি পরিবারের প্রতিও ছিলেন যত্নশীল। তার বাবা সব সময় বলতেন, মানুষের জীবন এক রকম যায় না। যেকোনো পরিস্থিতি হাসিমুখে মেনে নিতে হয়। কখনো সততার সঙ্গে সমঝোতা না করার পরামর্শ দিতেন পরিবারের সদস্যদের।

 স্মরণ সভায় নেতৃবৃন্দ তার ওপর একটি স্মারক গ্রন্থ করার প্রস্তাব করেন।

 স্মরণ সভায় কেন্দ্রীয় অ্যালামনাইয়ের শোকবার্তা পাঠ করেন ইমকাবিডির কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য নজরুল ইসলাম। সভা সঞ্চালনা করেন এটিএন নিউজের জ্যেষ্ঠ বার্তা সম্পাদক ও ইমকাবিডির সদস্য গনী আদম। সভায় জ্যেষ্ঠ সাংবাদিকসহ ইমকাবিডির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

 উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সদ্য প্রয়াত প্রেস সচিব ইহসানুল করিম হেলাল গত ১০ই মার্চ চিকিৎসাধীন অবস্থায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ইন্তেকাল করেন এবং পরদিন ১১ই মার্চ বাদ জোহর বনানী কবরস্থানে তৃতীয় নামাজে জানাযা শেষে তাকে দাফন করা হয়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। তিনি স্ত্রী, এক মেয়ে ও এক ছেলেসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন, সহকর্মী ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ
অনিবন্ধিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধে পদক্ষেপ নেয়া হবে--তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী
বাংলা নতুন বছর মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির  বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে : প্রধানমন্ত্রী
সর্বশেষ সংবাদ