ঢাকা বুধবার, অক্টোবর ২৭, ২০২১
সংবাদ সম্মেলনে নিজেকে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী ঘোষণা দিলেন কাজী কেরামত আলী
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২১-০৯-২৪ ০০:৩৬:০৪
রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলী গতকাল ২৩শে সেপ্টেম্বর বিকেলে শহরের পান্না চত্ত্বরে পালকি রেস্টেুরেন্টে সংবাদ সম্মেলনে নিজেকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেন -মাতৃকণ্ঠ।

আসন্ন রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে নিজেকে সভাপতি প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছেন রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলী। 

  গতকাল ২৩শে সেপ্টেম্বর বিকেলে রাজবাড়ী শহরের পান্না চত্ত্বরে পালকি রেস্টেুরেন্টে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দেন ৪বারের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলী এমপি।

  সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, জেলা কমিটির বর্ধিত সভায় কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম আমাকে জিজ্ঞাসা করেছিল প্রার্থী কে কে। আমি বললাম সভাপতি প্রার্থী জিল্লুল হাকিম আর মনে হয় আকবর আলী মর্জি। এই ২জনই আর কি। তখন আমি আমার কথা বলি নাই। আর সেক্রেটারী প্রার্থী কাজী ইরাদত আলী, মহম্মদ আলী চৌধুরী আর সোহেল রানা টিপু। পরিস্থিতির পর্যালোচনায় এখন দেখলাম সভাপতি প্রার্থী হিসেবে নিজের নামটা দেওয়া দরকার। সে কারণে জেলা সম্মেলনে সভাপতি প্রার্থী হিসেবে আমি আমার নিজের নামটা ঘোষণা করলাম। এ জন্যই আমি সংবাদ সম্মেলন ডেকেছি।   

  সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও তার আপন ছোট কাজী ইরাদত আলী দলের মধ্যে এক নায়কতন্ত্র চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করে আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলী আরো বলেন, আমি ৪বার রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলাম। ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে আমার ভাই কাজী ইরাদত আলীকে সাধারণ সম্পাদকের ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব লিখে দিয়েছিলাম। পরবর্তীতে তার কর্মকান্ড আমাকে কষ্ট দিয়েছে, ব্যাথিত করেছে। কারণ আমি সেক্রেটারী থাকাকালে দল পরিচালনায় সব সময় তার সাথে শেয়ার করতাম। কাজ করতে গেলে ভাল-মন্দ সব সময় শেয়ার করতাম। কিন্তু সে দায়িত্ব পাওয়ার পর দলের মধ্যে আমার নির্বাচনী এলাকা রাজবাড়ী ও গোয়ালন্দে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে ডিভিশন তৈরী করেছে। সে জেলা আওয়ামী লীগের প্রত্যেকটা নেতাকর্মীকে থ্রেট করেছে যে কেউ এমপি সাহেবের সাথে যেতে পারবেন না। আজকের এই সংবাদ সম্মেলনে এখানে আরো কিছু নেতাকর্মী আসতো, কিন্তু কিছুক্ষণ আগে তাদেরকে থ্রেট করা হয়েছে। যাতে তারা কেউ এখানে না আসে। এভাবে করলে সংগঠনতো শক্তিশালী হবে না। সব সময় থ্রেটের মধ্যে থাকার কারণে তৃণমূলে নেতাকর্মীরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। কিছুক্ষণ আগে জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি হেদায়েত আলী সোহরাবকে মোবাইলে হুমকি দেওয়া হয়েছে যে কোন মতেই সংবাদ সম্মেলনে যেতে পারবেন না। না হলে বিরাট ক্ষতি হয়ে যাবে। 

  এমপি আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলী বলেন, গোয়ালন্দ থানা কমিটি করা হয়েছে। নতুন এই কমিটি থেকে পূর্বে যারা কমিটিতে ছিল এমন ৩৫জনকে বাদ দেওয়া হয়েছে। যারা হয়তো আমাকে ভালবাসতো। এর নামতো রাজনীতি না। একদিন জেলা আওয়ামী লীগ অফিসে একটা অনুষ্ঠানে আমাকে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেওয়ার জন্য ঘোষণা করা হলো। আমি দেখলাম আমার ভাই কাজী ইরাদত আলী আমার পরে বক্তৃতা দিবে। আমি আস্তে করে সেখান থেকে চলে আসলাম। শুধু পার্টির কর্মসূচী পালন করলাম কিন্তু আমরা যদি কর্মীদেরকে মূল্যায়ন না করি, কর্মীদের সাথে যদি খারাপ ব্যবহার করি, খারাপ আচরণ করি, তাদেরকে যদি থ্রেট দিই, হুমকি দিই তাহলে এর নাম কি রাজনীতি? এতে গ্রুপিং হচ্ছে। স্বাভাবিকভাবে মনে মনে হয়তো আমরা কষ্ট পাচ্ছি এই কষ্টের কারণেই নিজেদের মধ্যেই দূরত্ব সৃষ্টি হচ্ছে। 

  তিনি বলেন, জেলা কমিটির বর্ধিত সভাটা আমাদের ভালমতই হয়ে গেছে। আমরা আশংকা করছিলাম বড় ধরণের কোন গোলমাল হতে পারে। কারণ প্রার্থীদের মধ্যে পাংশা, কালুখালী ও বালিয়াকান্দিতে গ্রুপিং চলতেছে। আমাদের এখানে গোলমাল হয় নাই। কিন্তু মৃধা কলেজের কাছে সোহেল রানা টিপুর কিছু লোককে মারধর করা হয়েছে এবং গাড়ী ভাংচুর করা হয়। এর নামতো রাজনীতি না। দলের মধ্যে যদি এমন উচ্ছৃঙ্খলা থাকে এবং নেতা-কর্মীদের মধ্যে যদি প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে তাকে ধমক দিয়ে বসিয়ে দেয়। এটা কি কখনো রাজনীতি হলো। 

  আমিতো মিটিংর মধ্যে বলেছিলাম যে আমরা সকলে মিলেমিশে কাজ করবো। যে যে পদেই যাই। আর আমাদেরতো শেষ পর্যন্ত জননেত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিবেন কে সভাপতি হবেন-কে সেক্রেটারী হবেন। উনি যেটা বলে দিবেন সেটা দলের সাধারণ সম্পাদক এখানে ঘোষণা দিবেন। এখানে বিভিন্ন লোকের কাছে তদবীর করে কোন লাভ নাই। আমাদের কাউন্সিলে শেষ পর্যন্ত ভোটাভুটি হয় না। নেত্রী যেটা সিদ্ধান্ত নেন সেটাই ঘোষণা দেওয়া হয়। 

  আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলী বলেন, পাংশা, কালুখালী ও বালিয়াকান্দিতে পরিস্থিতি এমন যে পুনরায় নতুন করে জিল্লুল হাকিমকে সভাপতি ঘোষণা না দেওয়া হোক। পরিস্থিতি এমন যে উনি যদি আবার সভাপতি হয়ে আসেন তাহলে আমাদেরকে পাংশা থেকে পালিয়ে যেতে  হবে। বালিয়াকান্দি থেকে পালিয়ে যেতে হবে। কালুখালী থেকে পালিয়ে যেতে হবে। কালুখালী উপজেলায় নৌকা পেল কাজী সাইফুল। কিন্তু নৌকার বিপক্ষে দাঁড় করিয়ে টিটু চৌধুরীর পক্ষে কাজ করলেন জিল্লুল হাকিম। যে কোন লোক জিল্লুল হাকিমের বিপক্ষে গেলে তার কপালে দুঃখ আছে, তার আর ওই এলাকায় বসবাস করার সুযোগ নাই। 

  তিনি বলেন, আমার কথা হলো যিনি জেলা সভাপতি হোক, সেক্রেটারী হোক তাদের কর্মকান্ড হবে সংগঠন থেকে তৃণমূল পর্যন্ত নেতাকর্মীদের সাথে ভাল আচরণ করা। ভাল ব্যবহার করা। 

  তিনি আরো বলেন, দখলের রাজনীতি পরিহার করতে হবে। এটা বলছি এবারের বর্ধিত সভাকে কেন্দ্র দেখলাম শহর ফেস্টুনে ভরা। আমি আমার পি.এ রওশনকে জিজ্ঞাসা করলাম রওশন এতো ফেস্টুন লাগানো হয়েছে তুমি আমার দুই একটা ফেস্টুন লাগাবা না। তারপর ওই সময় সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেস্টুন প্রিন্ট করালাম। রাস্তায় লাগাতে গিয়ে দেখি কি সারাটা রাস্তায় দরি টানানো। তারপর রাতে শ্রীপুরে যখন রওশনরা ফেস্টুন লাগাতে গেছে সেখানে ইরাদত গিয়ে বলেছে যেখানে দরি টানানো আছে সেখানে তোমরা লাগাতে পারবা না। তারপরে দেখা গেলে তারা যে পর্যন্ত ফেস্টুন লাগিয়েছে তারপর থেকে তারা দরি টানিয়ে রেখেছে যাতে অন্য কেউ লাগাতে না পারে। এই রাজনীতি তো করা ঠিক না। আমার ভাইকে আমি বলেছি, তোমাকে দায়িত্ব দিয়েছি বলেই তুমি এক নায়কতন্ত্র চালাবা এটা ঠিক না। আবার জিল্লুল হাকিমের বেলায়ও আমি বলবো উনি যেভাবে কর্মীদের ওপর নির্যাতন করতেছে এটা ঠিক না। সে কারণেই দলের মধ্যে এতো দূরত্ব সৃষ্টি হচ্ছে। 

  সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তাদেরকে একটা ম্যাসেজ দিচ্ছি মাথা ঠান্ডা করে অন্তত কর্মীদের সাথে ভাল ব্যবহার করতে, হুমকি দিয়ে থ্রেট দিয়ে রাজনীতি কখনো চিরদিন থাকে না।

  সংবাদ সম্মেলন রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হেদায়েত আলী সোহরাব, কোষাধ্যক্ষ আজগর আলী বিশ^াস ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আবুল হোসেনসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

  উল্লেখ্য, আগামী ১৬ই অক্টোবর রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

পাটুরিয়া ঘাটে ১৭টি যানবাহন নিয়ে ফেরি আমানত শাহ ডুবি
রাজবাড়ীর গোদার বাজারে পদ্মা নদীতে ফের ভাঙন॥দেড়শ ১৫০ মিটার সিসি ব্লক নদীতে
খেলাধুলার মধ্যে থাকলে যুব সমাজ মাদকের থাবা থেকে মুক্ত থাকবে---এমপি কাজী কেরামত আলী
সর্বশেষ সংবাদ