ঢাকা বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮, ২০২৪
মুজিববর্ষ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রাজবাড়ীতে সাইকেল র‌্যালি
  • চঞ্চল সরদার/আসাদুজ্জামান নুর
  • ২০২১-১১-২০ ১৩:৩০:১৬

মুজিববর্ষ উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রাজবাড়ীতে বাই-সাইকেল র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

  মুজিববর্ষ কর্মসূচি বাস্তবায়ন সংক্রান্ত রাজবাড়ী জেলা কমিটির সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে গতকাল ২০শে নভেম্বর সকালে রাজবাড়ী শহরের শ্রীপুরস্থ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে র‌্যালিটি শুরু হয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ খুশি রেলওয়ে ময়দানে এসে শেষ হয়। 

  এর আগে জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগমের সভাপতিত্বে র‌্যালির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য সালমা চৌধুরী রুমা, পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার, রাজবাড়ী সরকারী আদর্শ মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর দিলীপ কুমার কর, রাজবাড়ী পৌরসভার মেয়র মোঃ আলমগীর শেখ তিতু, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি হেদায়েত আলী সোহরাব, সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আব্দুল জলিল মিয়া, সহকারী অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা চৌধুরী রন্টু এবং ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনের সময় বঙ্গবন্ধুর বাই-সাইকেলে চড়ে প্রচারণার সহযোগী মোঃ শওকত আলী মোল্লা বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন জেলা কালচারাল অফিসার পার্থ প্রতিম দাশ ও রাজবাড়ী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম সফি। 

  উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী তার বক্তব্যে বলেন, আমাদের মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনের সময় বাই-সাইকেলে চড়ে রাজবাড়ীর বিভিন্ন অঞ্চলে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর সেই স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে রাজবাড়ী জেলা প্রশাসন এই বাই-সাইকেল র‌্যালির আয়োজন করেছে। 

  তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু সবসময় দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য রাজনীতি করেছেন। সে জন্য তিনি দেশের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছেন। তিনি যখন গোপালগঞ্জ যেতেন তখন রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দের উপর দিয়ে যাতায়াত করতেন। তিনি অনেকবার রাজবাড়ী জেলায় এসেছেন। সে কারণে আমি বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির নিদর্শন স্বরূপ দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে দ্বিতীয় পদ্মা সেতু বা টানেল নির্মাণ করতে। আশা করি তিনি এই দাবী পূরণ করবেন। এছাড়াও তিনি তৎকালীন সময়ে তার পিতাসহ বঙ্গবন্ধুর সহচর-সহযোদ্ধাদের স্মৃৃতিচারণ করেন।

  সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য সালমা চৌধুরী রুমা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমার পিতা মরহুম এডঃ আব্দুল ওয়াজেদ চৌধুরীর নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে রাজবাড়ীতে এসেছিলেন। তিনি তখন বাই-সাইকেলে চড়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চেয়েছিলেন। এই দেশটাকে তিনি সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখতেন। এ জন্য তিনি নিজের জীবন উৎসর্গ করে গিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু অতি সাধারণ ভাবে চলাফেরা করতেন এবং সকল মানুষকে সাথে নিয়ে রাজনীতি করতেন। তাই আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবো। 

  জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, জাতির পিতা সাইকেল চালিয়ে মানুষের স্বপ্ন পূরণে কাজ করে গেছেন। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করার যে কথা বলা হচ্ছে সেটা পূরণ করতে আমাদেরকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে চলতে হবে। তাহলে আমরা অবশ্যই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে পারবো। 

  জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার বলেন, আমরা আজকের এই দিনে প্রতিজ্ঞা করবো যে কোন অনিয়ম, ঘুষ-দুর্নীতি করবো না। 

  পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামান বলেন, পরবর্তী প্রজন্ম যাতে বঙ্গবন্ধুর সম্পর্কে জানতে পারে সে জন্য আজকের এই আয়োজন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে দেশের অধিকার আদায়ে অসহায় মানুষের পাশে থেকে কাজ করে গেছেন। তাই তিনি শ্রেষ্ঠ বাঙালী। আমরা তার আদর্শ ধারণ করে চললে দেশ এগিয়ে যাবে। আমাদের যে চাওয়া সেটা পূরণ হবে।

  বঙ্গবন্ধুর সাথে বাই-সাইকেলে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেয়া মোঃ শওকত আলী মোল্লা স্মৃতিচারণ করে বলেন, ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মরহুম এডঃ আব্দুল ওয়াজেদ চৌধুরীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে রাজবাড়ীতে এসেছিলেন। সে সময় আমি ফরিদপুর রাজেন্দ্র কলেজে এইচএসসি’র ছাত্র ছিলাম। বঙ্গবন্ধুর সাথে অনেক জায়গায় গিয়েছি। তার সাথে আমার অনেক স্মৃতি রয়েছে।

  আলোচনা পর্বের শেষে অতিথিগণ শান্তির প্রতীক পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সাইকেল র‌্যালীটি উদ্বোধন করেন। এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) মাহাবুর রহমান শেখ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(রাজস্ব) জয়ন্তী রূপা রায়, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সূবর্ণা রাণী সাহা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মোঃ সালাহ উদ্দিন, গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআই’র উপ-পরিচালক মোঃ শরিফুল ইসলাম, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রকিবুল হাসান পিয়াল, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আবুল হোসেন, জেলা প্রশাসন, পুলিশ ও বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তাগণ, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

  রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামানসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার ৫শতাধিক মানুষ জেলা প্রশাসনের দেয়া মুজিববর্ষের টি-শার্ট ও ক্যাপ পরে বাই-সাইকেল র‌্যালিতে অংশগ্রহণ করেন। র‌্যালিটি রাজবাড়ী কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল(শ্রীপুর) হতে শুরু হয়ে শহরের প্রধান সড়ক হয়ে শহীদ খুশি রেলওয়ে ময়দানে এসে শেষ হয়।

ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার ও রাজবাড়ী জেলা প্রশাসকের মধ্যে কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর
পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসকের শুভেচ্ছা বাণী
 মহান মে দিবস উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসকের বাণী
সর্বশেষ সংবাদ