ঢাকা বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৫, ২০২৪
রাজবাড়ী সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন আজ
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২১-১২-২৫ ১৪:৩৬:২৪
চতুর্থ ধাপে আজ ২৬শে ডিসেম্বর রাজবাড়ী সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন উপলক্ষে গতকাল ২৫শে ডিসেম্বর দুপুরে নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসারদের কার্যালয় থেকে ভোট কেন্দ্রগুলোর দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসার ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের কাছে ব্যালট বাক্স

চতুর্থ ধাপে আজ ২৬শে ডিসেম্বর রাজবাড়ী সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের ভোট অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

  নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৫৪ জন, সাধারণ ওয়ার্ডের সদস্য পদে ৪৩৩ জন ও সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের সদস্য পদে ১৫৭ জনসহ মোট ৬৪৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। 

  নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৪টি ইউনিয়নের ১২৭টি ভোট কেন্দ্রে নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে ১২৫টি স্থায়ী ও ২টি অস্থায়ী ভোট কেন্দ্র। মোট ভোটার সংখ্যা ২ লক্ষ ৩৬ হাজার ৭৬৪ জন। তার মধ্যে ১ লক্ষ ২০ হাজার ২৩৬ জন পুরুষ এবং ১লক্ষ ১৬হাজার ৫২৭ জন মহিলা ভোটার। ভোট কেন্দ্রগুলোর মধ্যে ৫৪টি সাধারণ ও ৭৩টি গুরুত্বপূর্ণ(ঝুঁকিপূর্ণ) হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। সাধারণ ভোট কেন্দ্রগুলোর প্রতিটিতে ২০ জন করে পুলিশ ও আনসার সদস্য এবং গুরুত্বপূর্ণ ভোট কেন্দ্রগুলোতে ২১ জন করে পুলিশ ও আনসার সদস্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করবেন। ৫জন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এবং ৭জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাচনী এলাকায় সশস্ত্র পুলিশ সদস্যদের নিয়ে নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা সম্পর্কিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করবেন। ভোট কেন্দ্রগুলোর নিরাপত্তার জন্য উপজেলায় ৩ প্লুাটুন বিজিবি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। যারা স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। মোতায়েনকৃত বিজিবি’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাথে রাজবাড়ীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন ও অপরাধ), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) ও সহকারী পুলিশ সুপার(পাংশা সার্কেল) সমন্বয় করে কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ স্থানে মোতায়েন পূর্বক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা নিশ্চিত করবেন।

  এর পাশাপাশি পুলিশ ও আনসার সদস্যদের ২১টি মোবাইল টিম নির্বাচনী এলাকায় টহল ও নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্ব পালন করবেন। 

  রাজবাড়ী সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের মধ্যে শহীদওহাবপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৬জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত সাবেক চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ ভুঁইয়া(নৌকা), সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা একেএম শফিউদ্দিন আহম্মেদ কাশেম(আনারস), সজীব ফকির(চশমা), আবু জাফর(ঘোড়া), নাজমুল হাসান নোমান(মোটর সাইকেল) ও নাজমা বেগম(টেবিল ফ্যান)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৪ হাজার ৩৩৪ জন। তার মধ্যে ৭ হাজার ২২১ জন পুরুষ ও ৭ হাজার ১১৩ জন মহিলা ভোটার। 

   মিজানপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন-আওয়ামী লীগের মনোনীত টুকু মিজি(নৌকা), বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা আতিয়ার রহমান(মোটর সাইকেল) এবং সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের বহিস্কৃত প্রার্থী কবির উদ্দিন সিকদার বাবলু(আনারস)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ২৮ হাজার ৪৭৭ জন। তার মধ্যে ১৪ হাজার ৩৩০ জন পুরুষ ও ১৪ হাজার ১৪৬ জন মহিলা ভোটার। 

   চন্দনী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ২জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী আব্দুর রব(নৌকা) এবং সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা আব্দুল মালেক শিকদার(আনারস)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৪ হাজার ৩৯৬ জন। তার মধ্যে ৭ হাজার ৪০১ জন পুরুষ ও ৬ হাজার ৯৯৫ জন মহিলা ভোটার।

   দাদশী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত রমজান আলী(নৌকা), বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা হাফেজ মাওলানা মোঃ লোকমান হোসেন (মোটর সাইকেল), দেলোয়ার শেখ (আনারস) এবং নূর নবী শেখ(ঘোড়া)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৭ হাজার ৯৭৯ জন। তার মধ্যে ৯ হাজার ৩৯ জন পুরুষ ও ৮ হাজার ৯৪০ জন মহিলা ভোটার।

  খানগঞ্জ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মুহাম্মদ শরিফুর রহমান সোহান(নৌকা), বর্তমান চেয়ারম্যান আতাহার হোসেন তকদীর(আনারস), আনোয়ার হোসেন সরদার(মোটর সাইকেল) ও জাসদের মনোনীত খন্দকার আতাউর রহমান(মশাল)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১১ হাজার ৪২৭ জন। তার মধ্যে ৫ হাজার ৭৩৫ জন পুরুষ ও ৫ হাজার ৬৯২ জন মহিলা ভোটার।

  বরাট ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ফরিদ উদ্দিন শেখ(নৌকা), ওয়ার্কার্স পার্টির মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান শেখ মনিরুজ্জামান সালাম(হাতুড়ী) এবং সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা কাজী শামসুদ্দিন(আনারস)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৮ হাজার ৬৮ জন। তার মধ্যে ৯ হাজার ২৬৯ জন পুরুষ ও ৮ হাজার ৭৯৯ জন মহিলা ভোটার।

  বসন্তপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৬জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী আব্দুল মান্নান মিয়া(নৌকা), মাহমুদুল হাসান কাজল(আনারস), বর্তমান চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী মীর্জা বদিউজ্জামান বাবু(ঘোড়া), ইসলামী আন্দোলনের আব্দুল আলিম সিকদার(হাতপাখা), সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী জাকির হোসেন সরদার(মোটর সাইকেল) ও কাজী মাইনুল হক(চশমা)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ২৩ হাজার ৭২৯ জন। তার মধ্যে ১২ হাজার ১৬৫ জন পুরুষ ও ১১ হাজার ৫৬৪ জন মহিলা ভোটার।

  রামকান্তপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল হাসেম বিশ্বাস(নৌকা), সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আব্দুর রহিম মোল্লা(আনারস), মিনা বেগম (অটোরিক্সা) ও রাজীব মোল্লা(মোটর সাইকেল) প্রতীক পেয়েছেন। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৬ হাজার ২৯৯ জন। তার মধ্যে ৮ হাজার ১১৫ জন পুরুষ ও ৮ হাজার ১১৪ জন মহিলা ভোটার।

  আলীপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু বক্কার সিদ্দিক(আনারস), আওয়ামী লীগের মনোনীত মুহাম্মদ বজলুর রশিদ মিঞা মিলন(নৌকা) ও সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হক(মোটর সাইকেল)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৭ হাজার ৭৭৫ জন। তার মধ্যে ৯ হাজার ৪৬ জন পুরুষ ও ৮ হাজার ৭২৯ জন মহিলা ভোটার।

  পাঁচুরিয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান কাজী আলমগীর(নৌকা), আনোয়ার হোসেন মিয়া(মোটর সাইকেল), আলাল খান(ঘোড়া) ও মুজিবুর রহমান (আনারস)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১১ হাজার ৭৪ জন। তার মধ্যে ৫ হাজার ৬৩৫ জন পুরুষ ও ৫ হাজার ৪৩৯ জন মহিলা ভোটার।

  মূলঘর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত সাবেক চেয়ারম্যান ওহিদুজ্জামান শেখ(নৌকা), বর্তমান চেয়ারম্যান ও জাকের পার্টির নেতা আব্দুল মান্নান মুসল্লী(আনারস), আক্তার মন্ডল নেপাল(মোটর সাইকেল) ও এস.এ হিরু(অটোরিক্সা)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১২ হাজার ৫১১ জন। তার মধ্যে ৬ হাজার ৩৬৬ জন পুরুষ ও ৬ হাজার ১৪৫ জন মহিলা ভোটার। 

  সুলতানপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৬জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত লুৎফর রহমান চুন্নু(নৌকা), বর্তমান চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আব্দুর রাজ্জাক মিয়া (মোটর সাইকেল), সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা জালাল উদ্দিন মোল্লøা(চশমা), খালিদ হোসেন মুন্সী (আনারস), ইসলামী আন্দোলনের হাবিবুর রহমান (হাতপাখা) ও আশিকুর রহমান (ঘোড়া)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৪ হাজার ৯৫৪ জন। তার মধ্যে ৭ হাজার ৬৫৮ জন পুরুষ ও ৭ হাজার ২৯৬ জন মহিলা ভোটার।

  খানখানাপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত আমির আলী মোল্লা(নৌকা), সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা একেএম ইকবাল হোসেন(চশমা), হোসেন মোঃ সোহান(মোটর সাইকেল), আমজাদ হোসেন (ঘোড়া) ও জাসদ নেতা আতিক আল আলম(আনারস)। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৮ হাজার ৭৯৩ জন। তার মধ্যে ৯ হাজার ৬২৭ জন পুরুষ ও ৯ হাজার ১৬৬ জন মহিলা ভোটার।

  বানীবহ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী শেফালী আক্তার আগেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে এ ইউনিয়নে শুধু সদস্য পদে (সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের) নির্বাচন হবে। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৬ হাজার ৯৪৮ জন। তার মধ্যে ৮ হাজার ৬১৯ জন পুরুষ ও ৮ হাজার ৩২৯ জন মহিলা ভোটার। 

  উল্লেখ্য, পাঁচুরিয়া, বরাট ও দাদশী ইউপির নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার হিসেবে গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাচন অফিসার নিজাম উদ্দিন, আলীপুর, বানীবহ ও মিজানপুর ইউপির নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার হিসেবে উপজেলা নির্বাচন অফিসার স্বপন কুমার সাহা, খানগঞ্জ, চন্দনী ও রামকান্তপুর ইউপির নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার হিসেবে উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার আতাহার আলী; খানখানাপুর, শহীদওহাবপুর ও মূলঘর ইউপির নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার হিসেবে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহমুদ হাসান খান এবং বসন্তপুর ও সুলতানপুর ইউপির নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার হিসেবে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার খায়ের উদ্দিন দায়িত্ব পালন করছেন।  

রাজবাড়ী-১ আসনে অনলাইনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন এস এম নওয়াব আলী
সংসদ নির্বাচনের তফসিল বিষয়ে ইসির ব্রিফিং আজ
রাজবাড়ী জেলা পরিষদের নির্বাচন আগামীকাল॥প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ২৮ জন প্রার্থী
সর্বশেষ সংবাদ