ঢাকা রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২
বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক কাজী হেদায়েত হোসেন
  • মোহাম্মদ গোলাম আলী
  • ২০২২-০৮-১৮ ০১:৪২:২৯

শোকের মাস, শোকার্ত আগস্ট। ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির জনক হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শাহাদতবরণ করেন। ঠিক তার ৩দিন পর ১৮ই আগস্ট রাজবাড়ীতে তৎকালীন গোয়ালন্দ মহকুমা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও গণপরিষদ সদস্য কাজী হেদায়েত হোসেন কিছু পথভ্রস্ট, দেশদ্রোহী আঁততায়ীর হাতে গুলিবিদ্ধ হয়ে শাহাদতবরণ করেন। 

  তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর অত্যন্ত কাছের মানুষ, একান্ত আপনজন। ছিলেন রাজবাড়ীবাসীর সুখ-দুঃখের সাথী এবং উন্নয়নের রূপকার। তিনি যেমন সাধারণ মানুষের কথা ভাবতেন, তেমনি তার দলের কথা ভাবতেন। তার বাড়ীতে (শুভ্রালয়ে) রাজবাড়ী, গোয়ালন্দ, পাংশা, কালুখালী, বালিয়াকান্দি ও পাবনা অঞ্চলের মানুষের আশ্রয়স্থল ছিল। তাদের ছেলে-মেয়েদের স্কুল-কলেজে ভর্তি করা, তাদের থাকা-খাওয়া ও লেখাপড়ার যাবতীয় খরচাদী নিজে বহন করতেন। রাজবাড়ী গার্লস হাই স্কুল, রাজবাড়ী সরকারী কলেজ (তৎকালীন গোয়ালন্দ মহকুমার প্রথম কলেজ) প্রতিষ্ঠা তারই অবদান। তৎকালীন মহকুমা প্রশাসক (এসডিও) আজাহার আলীর সহযোগিতায় তিনি কলেজটি প্রতিষ্ঠা করেন। তার উদ্দেশ্য ছিল রাজবাড়ীতে গরীব এবং মেধাবী ছেলে-মেয়েদের প্রাথমিক থেকে শুরু করে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করা এবং তিনি যতটা সম্ভব সবাইকে সহযোগিতা করতেন। 
  রাজবাড়ীতে তার ‘শুভ্রালয়’ নামের বাড়ীতে বঙ্গবন্ধু অনেকবার এসেছেন। কেন্দ্রীয় নেতারাও অনেকেই অনেকবার এসেছেন। ফরিদপুর জেলার নেতারা যেমন-ইমাম উদ্দিন, ওবায়দুর রহমান উল্লেখযোগ্য। তার বাড়ীর সামনে সুন্দর একটি ফুলের বাগান আছে। ফুল তার খুব প্রিয় ছিল। ওই ফুল ঘেরা বাগানের মধ্যেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক আজ ঘুমিয়ে আছে। তিনটি কবর পাশাপাশি। বাবা, স্ত্রী ও মরহুম কাজী হেদায়েত হোসেন। আমার(লেখক চিত্রশিল্পী মোহাম্মদ আলীর) ডিজাইনে করা কবরগুলোর নকশা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কবরের নক্সার অনুরূপ। 
  আমি কাছ থেকে দেখেছি তার আদর্শ, রাজনৈতিক কর্মকান্ড, সততা ও মহানুভবতা। আমি তাকে বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পূর্বে একদিন একান্তভাবে কাছে বসে জিজ্ঞেস করেছিলাম মামা আপনি মানুষের জন্য এতকিছু কিভাবে করেন? আপনার বাড়ীতে প্রতিদিন কত মানুষ আসে, কাউকে না খেয়ে আপনি যেতে দেন না। এর উত্তরে তিনি আমার দিকে তাকিয়ে একটু মুচকি হেঁসেছিলেন। তাকে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করতেন তার সুযোগ্য সহধর্মিনী মরহুমা কাজী মনাক্কা বেগম। তিনি দিন-রাত পরিশ্রম করতেন। সবার সঙ্গে মিশে যেতেন। 
  কাজী হেদায়েত হোসেন ছিলেন বৃহত্তর ফরিদপুর অঞ্চলের অন্যতম মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক। ’৭১-এর ২৬শে মার্চের পর তিনি কুষ্টিয়ার খোকসার আকামুদ্দিন চেয়ারম্যানের বাড়ীতে পরিবারের সবাইকে রেখে ভারতে যান। মুক্তিযুদ্ধকালে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কল্যাণী ক্যাম্পে দায়িত্ব পালন করেন। মুক্তিযোদ্ধা ও শরণার্থীদের সহায়তা করেন। তৎকালীন প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী, মোহাম্মদ কামরুজ্জামান, মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল ওসমানীসহ শীর্ষ কর্মকর্তাদের সাথে তার প্রত্যক্ষ সম্পর্ক ছিল। 
  কাজী হেদায়েত হোসেনকে হত্যা করার জন্য জাসদ গণবাহিনীর সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা অনেকদিন ধরেই সচেষ্ট ছিল। গোপনে তাকে অনুসরণ করতো। দূরদর্শী কাজী হেদায়েত হোসেনও বিষয়টি বুঝতে পেরে পরিবারকে ঢাকার বাসায় রেখে শুধুমাত্র মেজ ছেলে কাজী ইরাদত আলীকে(বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক) নিয়ে রাজবাড়ীতে থেকে যান দলের স্বার্থে। কাজী ইরাদত আলী ছোটবেলা থেকেই সাহসী ও বুদ্ধিমান ছিলেন। সংসার, বাবার ব্যবসা, রাজনীতি-সবকিছু আয়ত্ত করছিলেন। 
  কাজী হেদায়েত হোসেন ’৭৫-এর ১৮ই আগস্ট সকাল ১০টার পর বাসা থেকে বের হয়ে এসডিও অফিসে যান। কিছুক্ষণ পর সেখান থেকে বের হয়ে তিনি রিক্সায় করে রাজবাড়ী সরকারী কলেজ সংলগ্ন নিজের ইটভাটা ও পুকুরের খোঁজ নিতে যান। পথিমধ্যে চিত্রা সিনেমা হলের সামনে থেকে বন্ধু বাদশা মিয়াকে রিক্সায় তুলে নেন। কিছুক্ষণ পর ওখান থেকে ফেরার পথে তাদেরকে বহনকারী রিক্সাটি লাশ কাটা ঘর এলাকা অতিক্রম করার সময় রেলওয়ের ঘুমটি ঘরের আড়াল থেকে ৩/৪ জন বের হয়ে কাটা রাইফেল দিয়ে তাদেরকে লক্ষ্য করে গুলি করে। প্রথম গুলিটি লাগে বাদশা মিয়ার গায়ে। সঙ্গে সঙ্গে বাদশা মিয়া রিক্সা থেকে পড়ে যান। এর পরপরই ঘাতকরা সামনে এগিয়ে এসে কাজী হেদায়েত হোসেনকে লক্ষ্য করে খুব কাছ থেকে গুলি করে। তার শরীরে ৪টি গুলিবিদ্ধ হয়। ঘাতকরা রেললাইন দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার পর স্থানীয়দের সহযোগিতায় রিক্সার উপরে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকা কাজী হেদায়েত হোসেনকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। আমি একজন রিক্সা চালকের কাছ থেকে খবর পেয়েই কাজী হেদায়েত হোসেনের বাড়ীতে যাই। এরপর সেখান থেকে কাজী ইরাদত আলীর সঙ্গে হাসপাতালে যাই। হাসপাতালে গিয়ে দেখতে পাই কাজী হেদায়েত হোসেনের শরীরে ৩টি গুলি বিদ্ধ অবস্থায় আছে। আরেকটি গুলি তার তলপেট ফুঁড়ে বের হয়ে গেছে। তিনি তখনও জীবিত আছেন। ঘন ঘন নিঃশ্বাস ফেলছেন এবং আল্লাহু আল্লাহু বলছেন। ডাক্তাররা ছুটাছুটি করছে, কী করবে বুঝতে পারছে না। প্রায় পৌনে এক ঘণ্টার পর তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে চির বিদায় নেন। আজ তার ৪৭তম মৃত্যু বার্ষিকীতে গভীর শ্রদ্ধা জানাই। (লেখক পরিচিতি ঃ শিল্পকলা একাডেমী সম্মাননা প্রাপ্ত রাজবাড়ীর বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী, ভাস্কর, ফটোসাংবাদিক ও লেখক)      

বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক কাজী হেদায়েত হোসেন
“শিশুদের জন্য সোনালী বিকেল” অনুষ্ঠানের প্রবক্তা ডিসি কল্লোল এখন মহিলা ও শিশু মন্ত্রণালয়ের সচিব
আমার দেখা ৭১-এর গণহত্যা
সর্বশেষ সংবাদ