ঢাকা মঙ্গলবার, মে ১৮, ২০২১
প্যারিস চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের ফিরে আসা জলবায়ু কূটনীতিতে নতুন গতির সঞ্চার করবে ঃ প্রধানমন্ত্রী
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২১-০৪-১০ ০২:১২:৪৯
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাসিনার সঙ্গে গতকাল ৯ই এপ্রিল বিকেলে গণভবনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের জলবায়ু সংক্রান্ত বিশেষ দূত জন কেরি সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন -পিআইডি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত প্যারিস চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যাবর্তন জলবায়ু পরিবর্তন কূটনীতিতে নতুন গতি সঞ্চার করবে।

  তিনি বলেন, ‘প্যারিস চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের ফিরে আসা জলবায়ু কূটনীতির ক্ষেত্রে নতুন গতির সঞ্চার করবে।’

  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গতকাল ৯ই এপ্রিল বিকেলে গণভবনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের জলবায়ু সংক্রান্ত বিশেষ দূত জন কেরি সৌজন্য সাক্ষাৎকালে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন।

  বৈঠকৈর পর প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

  শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে ২২-২৩শে এপ্রিল, ২০২১ অনুষ্ঠেয় ভার্চুয়াল লিডার্স সম্মেলনে যোগদানে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য ধন্যবাদ জানান। এ সময় আমন্ত্রণ গ্রহণ করায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকেও ধন্যবাদ জানান জন কেরি।

অন্ততপক্ষে ৪০টি দেশ এই সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবে।

  বৈঠকে জন কেরি বলেন, বাংলাদেশ চাইলে তারাও বাংলাদেশকে কোভিড-১৯ এর টিকা দিতে পারে। কেননা, যুক্তরাষ্ট্রে গ্রীষ্মের মাঝামাঝি সময়ে টিকা উদ্বৃত্ত হবে।

  মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিশেষ দূত দূষণের ঝুঁকি হ্রাস করতে জলবিদ্যুতের পাশাপাশি সৌর বিদ্যুৎ এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানীসহ বিকল্প শক্তির উৎস ব্যবহারের উপর গুরুত্বারোপ করেন।

  কেরি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সংস্থাগুলো অন্যদের সাথে অংশীদার হয়ে নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী।

  তিনি আরও বলেন, যুক্তরাষ্ট্র সবুজ জলবায়ু তহবিলের এক মিলিয়ন ডলার ছাড়াও দুই মিলিয়ন ডলার দেবে।

  জন কেরি জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ভূমিকারও প্রশংসা করেন।

  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যারা নিঃসরণকারী (কার্বন) নয় এবং নিঃসরণে যাদের অবদান নগণ্য, তারাও ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

  তবে, তিনি বলেছেন যে তার দেশের উন্নয়নের জন্য জ্বালানি প্রয়োজন।

  প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, তারা ভারত, ভুটান এবং নেপালের সাথে আঞ্চলিক ভিত্তিতে দ্বিপাক্ষিক বা ত্রিপক্ষীয় উপায়ে জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের জন্য কথা বলেছেন।

  তিনি বলেন, দেশে ৫ দশমিক ৮ মিলিয়ন সৌর সংযোগ রয়েছে, সৌর শক্তি সেচের জন্য প্রয়োজনীয় বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

  শেখ হাসিনা আরও বলেন, তাঁর সরকার জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব মোকবেলা করার জন্য অন্যান্য উদ্যোগের সঙ্গে জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করেছে।

  পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকারী উদ্যোগে ইতোমধ্যে সারাদেশে প্রায় ১১ দশমিক ৫ মিলিয়ন গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে এবং তার দলীয় নেতাকর্মীরা ১০ মিলিয়ন অন্য গাছও লাগিয়েছেন।

  প্রধানমন্ত্রী জন কেরিকে বঙ্গবন্ধু রচিত কারাগারের রোজনামচা ও অসমাপ্ত আত্মজীবনী(ইংরেজি সংস্করণ) এবং সিক্রেট ডকুমেন্টস অব ইন্টেলিজেনস ব্রাঞ্চ অন ফাদার অব দ্যা নেশন, বাংলাদেশ ঃ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সিরিজের বই উপহার দেন।

  পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এবং বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল আর. মিলার এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

  উল্লেখ্য, এর আগে জলবায়ু সম্মেলনে অংশ নেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের আমন্ত্রণপত্র হস্তান্তর করতে যুক্তরাষ্ট্রের জলবায়ু বিষয়ক বিশেষ প্রেসিডেন্টশিয়াল দূত জন কেরি ঢাকায় আসেন।

  পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টায় বিশেষ দূত জন কেরিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্বাগত জানান। তিনি ভারত সফর শেষে এখানে আসেন। বিমানবন্দরে বাংলাদেশে মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল আর মিলার উপস্থিত ছিলেন।

  পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা এখানে জানিয়েছেন, এই সফরকালে জন কেরি আগামী ২২ ও ২৩শে এপ্রিল ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠেয় ‘লিডারস সামিট অন ক্লাইমেট’-এ অংশ নেওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের আমন্ত্রণপত্র বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে ব্যক্তিগতভাবে হস্তান্তর করেন।

  বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করার আগে জন কেরি পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে জন কেরি ও ড. মোমেন রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় এক যৌথ প্রেস ব্রিফিং করেন।

  ক্লাইমেট ভার্নারেবল ফোরামের প্রেসিডেন্ট এবং ভার্নারেবল টুয়েন্টি গ্রুপ অব ফিন্যান্স মিনিস্টারস হিসেবে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে।

  মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ ৪০ বিশ্বনেতাকে ‘লিডারস সামিট অন ক্লাইমেট’ -এ আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। তিনি এই ভার্চুয়াল শীর্ষ সম্মেলনের আয়োজক।

  ‘লিডারস সামিট অন ক্লাইমেট’-জরুরী ভিত্তিতে সুদৃঢ় জলবায়ু পদক্ষেপ গ্রহন এবং এর অর্থনৈতিক সুবিধাগুলোর ওপর গুরুত্বারোপ করবে।

  আগামী নভেম্বরে গ্লাসগোতে অনুষ্ঠেয় জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলন (সিওপি ২৬)-এর পথযাত্রায় এটি হবে একটি গুরুত্বপূণ মাইলফলক।

  প্রেসিডেন্ট বাইডেন প্যারিস চুক্তিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে ফিরিয়ে নিতে তার দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিনেই পদক্ষেপ নেন।

বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় বেড়ে ২হাজার ২২৭ ডলার দাঁড়িয়েছে
আজ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস
ঈদের ছুটি শেষে দৌলতদিয়া ঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ॥ভোগান্তি
সর্বশেষ সংবাদ