ঢাকা রবিবার, আগস্ট ১, ২০২১
কবি নির্মলেন্দু গুণ ঃ জন্মদিনে শুভেচ্ছা
  • সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান
  • ২০২১-০৬-২১ ০১:৫৪:৫৫

আজ কবি নির্মলেন্দু গুণ এর ৭৬তম জন্মদিন। বিভিন্ন দৈনিকে, বিভিন্ন চ্যানেলে তাঁকে নিয়ে নানা আয়োজন থাকছে। কিন্তু তাঁর জন্মদিন পালন নিয়ে কিছু মজার কাহিনী আছে। যা তিনি তাঁর নিজের একটি লেখায় উল্লেখ করেছেন। একসময় কবির জন্মদিন তেমন পালিত হত না। এতে কবি খুব কষ্ট পেতেন। তাই তিনি তাঁর জন্মদিনে দৈনিক সংবাদে বিজ্ঞাপন দিতেন সকলের দৃষ্টি আকর্ষনের জন্য কিন্তু এক পর্যায়ে সংবাদ তাঁর এই বিজ্ঞাপন প্রকাশটিও বন্ধ করে দেয়। এতে কবি খুব কষ্ট পান এবং দৈনিক সংবাদের উপর অভিমান করেন। ১৯৭৭ সাল থেকে ১৯৮২ সাল পর্যন্ত কবি এ বিজ্ঞাপনগুলো দৈনিক সংবাদে নিজের টাকা খরচ করে ছেপেছিলেন। এ বিজ্ঞাপন সম্পর্কে অনুভূতি কবির কথার মধ্যেই আছে। তিনি ‘আমার জন্মদিন: আনন্দ বেদনার স্মৃতি’ নামক লেখায় বলেছেন- ‘কেউ বলতে পারেন, আমি দেশবাসীর সঙ্গে মশকরা করছি, কেই বলতে পারেন এর ভেতর দিয়ে একজন কবির অন্তরের দৈন্য প্রকাশ পেয়েছে। নির্লজ্জ আত্মপ্রচারের একটা নমুনা হিসাবেও দেখা যায় বিষয়টিকে। আমি কোনোটাই অস্বীকার করবো না। রবীন্দ্রনাথ বলেছিলেন, আই সিক্রেটলি বেগ ফর ইট। আর আমি সামান্য বলে, আই ওয়ান্টেড দিস ভেরী ওপেনলি। 
  এ প্রসঙ্গে আরোও একটি বিষয় উল্লেখ করা যায়, তিনি ২০১৬ সালে স্বাধীনতা পদকে ভূষিত হন। এ পদক পাওয়ার পূর্বে কেন তাকে পদক দেওয়া হচ্ছে না এটা নিয়ে ফেসবুকে ঝড় তোলেন। তখন কিছুদিন এর পক্ষে বিপক্ষে প্রচুর লেখা ফেসবুক জুড়ে ছিল। তিনি পদক পাওয়ার পরও এ বিতর্ক থামেনি। এখন আর বিতর্ক নেই। একথা নির্দ্বিধায় বলা যায় আলোচনা যাই হোক না কেন পদকটি যোগ্য লোককে অর্পণ করা হয়েছিল। 
  এ প্রসঙ্গ উল্লেখ এ কারণে যে, বাংলাদেশের একজন প্রধান কবিও আমাদের কাছে কেমন উপেক্ষার শিকার হয়েছেন। আমাদের কবি সাহিত্যিকদের জীবন ইতিহাস পর্যালোচনা করলে এমন দৃষ্টান্ত অনেক পাওয়া যাবে। যথা সময়ে যথাযথ সম্মান অনেকেই পাননি, পান না। 
  কবি নির্মলেন্দু গুণ সমকালের অন্যতম সেরা কবি। তাঁর অনেক কবিতা সমকালের খেয়ায় চড়ে কালান্তরে পাড়ি দিয়েছে। তিনি দারুণভাবে নন্দিত এবং পাঠকপ্রিয়। তাঁর কবিতা বহুল পঠিত, আবৃত্তির অনুষ্ঠানে তাঁর কবিতার আবেদন গগণচুম্বী। ১৯৭০ সালের গুণের প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘প্রেমাংশুর রক্ত চাই’ প্রকাশিত হওয়ার পরপরই তিনি জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। এ কাব্যের অর্ন্তগত ‘হুলিয়া’ কবিতাটি ব্যাপক লোকপ্রিয়তা লাভ করে। এটি নিয়ে তানভীর মোকাম্মেল একটি সিনেমাও করেন। ‘প্রেমাংমুর রক্ত চাই’ ৬৬এর ৬ দফা এবং ৬৯ এর গণ আন্দোলনের পটভূমিকায় লেখা কাব্যগ্রস্থ। ৬০ এর দশকের উত্তাল সময়ের অগ্নিঝরা দিনগুলি তাঁর রক্তে আগুণ ধরিয়ে দিয়েছিল। কবিতাকে করে তুলেছিলেন আগ্নেয়াস্ত্র। এজন্যই তিনি বলতে পেরেছিলেন কবিতা তাঁর কাছে ‘প্রতিশোধ গ্রহণের হিরন্ময় হাতিয়ার।’ 
  তিনি অসংখ্য কাব্যগ্রন্থ রচনা করেছেন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য না প্রেমিক না বিপ্লবী (১৯৭২), কবিতা- অমীমাংসিত রমনী (১৯৭৩), বাংলার মাটি বাংলার জল (১৯৮২), দূরহ দুঃশাসন (১৯৮৩), প্রথম দিনের সূর্য্য (১৯৮৪), নেই কেন সেই পাখি (১৯৮৫), নিরঞ্জনের পৃথিবী (১৯৮৬), দুঃখ করোনা বাঁচো (১৯৮৭), শিয়রে বাংলাদেশ, আমি সময়কে জন্মাতে দেখেছি (২০১০) প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য। তাঁর কাব্য সমগ্র ১০ খন্ডে বের হচ্ছে। কবিতা সংকলন নির্বাচিতা একটি উল্লেখযোগ্য কাব্য সংকলন। রবীন্দ্রনাথ এর সঞ্চয়িতা, নজরুলের সঞ্চিতা, জসীম উদদীন এর সুচয়নি’র সাথে নির্বাচিতা বাঙলা কাব্যের ইতিহাসে তাঁর আসন স্থায়ী করে নিয়েছে। কবিতার সাথে সাথে তিনি সমান তালে গদ্য রচনা করেছেন। ‘আমার ছেলেবেলা’ ‘আমার কণ্ঠস্বর’ ও ‘আত্মকথা ১৯৭১’ তাঁর আত্মজীবনীমূলক রচনা। ‘আমার কণ্ঠস্বর’ তাঁর স্মৃতিচারণমূলক শ্রেষ্ঠ বই। এ বইয়ে তিনি তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘প্রেমাংশুর রক্ত চাই’ প্রকাশ পর্যন্ত জীবনের স্মৃতিময় ঘটনা তুলে এনেছেন। ‘কণ্ঠস্বর’ পত্রিকাটি ষাটের দশকে আলোড়ন সৃষ্টিকারী লিটল ম্যাগ যার সম্পাদক ছিলেন আলোকিত মানুষ গড়ার কারিগর আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদ। ‘আমার কণ্ঠস্বর’ এবং ‘কণ্ঠস্বর’ এর মধ্যে একটি যোগসূত্র অবশ্যই আছে। গদ্য রচনা সম্পর্কে কবি বলেছেন কাব্যকে যদি আমি আমার কন্যা বলে ভাবি তবে গদ্যকে পুত্রবৎ। ওরা দু’জনতো আমারই সন্তান। কাব্যলক্ষী কন্যা যদি, গদ্য প্রবর পুত্রবৎ। এছাড়া বিভিন্ন দেশ ভ্রমনের পটভূমিকায় তিনি কিছু ভ্রমণ কাহিনীও রচনা করেছেন। তিনি একজন চিত্রশিল্পীও বটে। অবসরে ছবি আঁকেন। নির্মলেন্দু গুণ প্রেমের কবি, প্রেমিক কবি। তাঁর কবিতায় প্রেম এসেছে শ্রাবণের বৃষ্টি ধারার মতো। তিনি প্রেম নিয়ে অসংখ্য পঙতি রচনা করেছেন। তাঁর বিখ্যাত কয়েকটি প্রেমের কবিতার কথা এ প্রসঙ্গে উল্লেখ করা যায়। যেমন ‘যাত্রাভঙ্গ’, ‘তোমার চোখ এত লাল কেন’, ‘শুধু তোমার জন্য’, ‘ওটা কিছু নয়’, ‘যুদ্ধ’, ‘মাছি’, ‘আসমানি প্রেম’, ‘তুলনামূলক হাত’, ‘পূর্ণিমার মতো মৃত্যু’, ‘আবার যখনই দেখা হবে’, ‘ মোনালিসা’ , ‘আমাকে কি মাল্য দেবে দাও’, ‘উপেক্ষা’ প্রভৃতি। উত্তাল অগ্নিঝরা ষাটের দশকের সৃষ্টি কবি নির্মলেন্দু গুণ। মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর জীবনেরও মহানায়ক। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে তিনিই প্রথম কবিতা লিখেছিলেন। এটা ১৯৬৭ সালের কথা। ৭৫ এর নির্মম হত্যাকান্ডের পর এ হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে বেশ কয়েকটি অমর কবিতা তিনি রচনা করেন। ‘আমি আজ কারো রক্ত চাইতে আসিনি’ এবং ‘স্বাধীনতা এ শব্দটি কিভাবে আমাদের হলো’ কবিতা দু’টি তাঁর অমর কালজয়ী সৃষ্টি, সময়ের শ্রেষ্ঠ সাহসী উচ্চারণ। তাছাড়াও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে তিনি অনেক কবিতা রচনা করেছেন। সেগুলোর মধ্যে ‘স্বদেশের মুখ শেফালী পাতায়’, ‘মুজিব মানে মুক্তি’, ‘ভয় নেই’, ‘রাজদন্ড’ প্রভৃতি। 
  তিনি বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় তিনটি পদকই পেয়েছেন। বাঙলা একাডেমী পুরস্কার-(১৯৮২), একুশে পদক-(২০০১) ও স্বাধীনতা পদক-(২০১৬) আরোও অনেক পুরস্কার তিনি পেয়েছেন কিন্তু পাঠকদের অকৃত্রিম ভালোবাসাই তাঁর বড় প্রাপ্তি। তিনি রাজনীতির কবি, স্বাধীনতার কবি, প্রেমের কবি, সাধারণ মানুষের কবি, চাষাভূষার কবি। আমাদের কবিতাকাশে তিনি উজ্জ্বল দীপশিখা। 
ব্যক্তিগত স্মৃতিতে কবি নির্মলেন্দু গুণ ঃ কবি নির্মলেন্দু গুণ এর সাথে আমার দেখা হয়েছে কয়েকবার। প্রথম দেখার সালটি মনে করতে পারছি না, তবে এটা কোন এক বই মেলায় এবং আমি তাঁর ‘মুজিব-লেলিন-ইন্দিরা’ কাব্যগ্রন্থটি কিনে তাঁর অটোগ্রাফ নিয়েছিলাম। এর পর ২০০৮ সালের ২৭ মার্চ উদীচীর একটি অনুষ্ঠানে তিনি রাজবাড়ী এসেছিলেন। ডাঃ সুনীল কুমার বিশ্বাস এর সভাপতিত্বে সত্যেন সেন স্মরণে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি প্রধান অতিথি ছিলেন। অনুষ্ঠানে তিনি চমৎকার বক্তব্য রাখেন এবং অনেকগুলো কবিতা আবৃত্তি করেন। এর মধ্যে ‘আমি আজ কারো রক্ত চাইতে আসিনি’, ‘স্বাধীনতা এ শব্দটি কিভাবে আমাদের হলো’ এই কবিতা দু’টিও ছিল। এখানে একটি মজার ঘটনা ঘটে। কবিতা পাঠের শেষ দিকে সবাইকেই কবিতা পাঠের জন্য মঞ্চে ডাকা হয়। কিন্তু আমি মঞ্চে উঠে কি পড়ব খুঁজে পাচ্ছিলাম না। তখন কবি নির্মলেন্দু গুণ কে নিয়ে চার লাইন কবিতার মতো একটা কিছু পড়েছিলাম। কবি খুব খুশি হয়েছিলেন। পরের দিন সুনীলদা’র বাসায় আমরা অনেকেই গিয়েছিলাম। ‘আমি নির্বাচিতা’ ও ‘আমার কণ্ঠস্বর’ বই দুটি নিয়ে গিয়েছিলাম। তাতে তিনি অটোগ্রাফ দেন। কিন্তু একটি বইতে তিনি লেখেন তরুণ কবি সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমানকে। শুধু তাই নয় তিনি নিজে তাঁর ‘চৈত্রের ভালোবাসা’ বইটি আমাকে উপহার দেন অটোগ্রাফ সহ। এখানে তিনি আমাকে কবি হিসাবে উল্লেখ করেন। তিনি আমার অটোগ্রাফ খাতায় ‘মহির্ষি সত্যেন সেন এর স্মৃতি মনে রেখে’ কথাটি লিখে স্বাক্ষর করেন। এ ঘটনাটি খুবই মূল্যহীন কিন্তু আমার স্মৃতিতে এক অনুপম অধ্যায়। আমি কবি নই কোনও কবিতাও কখনো লিখিনি। তবে কবিতা আমার প্রিয় সাহিত্য। ভালোবাসি কবিতা। তাই কবির প্রদত্ত উপাধিটিকে স্মৃতি সত্তায় লালন করি মহাযত্নে।  
  এরপর তিনি কুষ্টিয়া যাওয়ার পথে একবার রাজবাড়ীতে একটু থেমেছিলেন। আবৃত্তি শিল্পী রবিদা, (রবি শঙ্কর মৈত্রী) ও তিনি একটি ভিডিও চিত্র ধারণের জন্য কুষ্টিয়া যাচ্ছিলেন। রাজবাড়ী পৌরসভার পার্শ্বে কুদ্দুস ভাইয়ের মিষ্টির দোকানে আমরা একসঙ্গে চা খেয়েছিলাম। এটা ছিল ২৯/০৮/২০০৮ এর ঘটনা। এদিনও তিনি আমাকে একটি অটোগ্রাফ দিয়েছিলেন। সর্বশেষ দেখা হয় ২০১২ সালের ১৩ মে তারিখে। তিনি রাজবাড়ীতে রবীন্দ্রনাথ এর জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে এসেছিলেন। তিনি প্রথমে ফরিদপুর এসেছিলেন। রবিদা তাঁর সাথে ছিলেন। রবীদা এর মাধ্যমে তাঁকে রাজবাড়ীতে আসার আমন্ত্রণ জানালে তিনি রাজী হন। আমরা একদিনের মধ্যে অনুষ্ঠানের আয়োজন করি। অনুষ্ঠান হয় শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে। আয়োজনে ডাঃ কে এস আলম ফাউন্ডেশন। তিনি ও রবিদা হোটেল পার্কে রাত্রি যাপন করেন। একবার আমাদের বাসায়ও গিয়েছিলেন। তাঁকে নিয়ে বেশ জম-জমাট আড্ডা ও অনুষ্ঠান হয়। আমরা সে অনুষ্ঠান খুব উপভোগ করেছিলাম। রাতে হোটেল পার্কে আর এক প্রস্থ আড্ডা হয়। এদিন তিনি আমার অটোগ্রাফ খাতায় লিখেছিলেন -রাজবাড়ীতে রাজার হালে
থাকা এবং খাওয়া,
মাঝখানে ছিলেন রবীন্দ্রনাথ-
তার পরে চলে যাওয়া। 
এটাকে কবির স্বহস্তে লেখা মহার্ঘ উপহার বিবেচনা করি।
২০১২ সালের পরে তিনি আর রাজবাড়ীতে এসেছেন কি-না জানিনা। তবে একথাগুলো বলা এজন্য যে, একসময় সবকিছু অতীত হয়ে যাবে। এমনকি তিনি যে রাজবাড়ীতে এসেছিলেন তাও আমাদের স্মৃতিতে ঝাপসা হয়ে যাবে। তাই আমাদের সময়ে যাঁরা নানা কারণে রাজবাড়ীতে এসেছেন তাঁদের স্মৃতিটুকু বাঁচিয়ে রাখার জন্য এ ক্ষুদ্র প্রয়াস। জন্মদিনে কবি নির্মলেন্দু গুণ এর প্রতি রইলো গভীর শ্রদ্ধা।  

কোরবানি নাকি লকডাউন? দারিদ্রতা কি বলে?
রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশন ঃ আমাদের দায়বদ্ধতা; কতটুকু করতে পারছি আমরা?
কবি নির্মলেন্দু গুণ ঃ জন্মদিনে শুভেচ্ছা
সর্বশেষ সংবাদ