ঢাকা শনিবার, জুন ১৫, ২০২৪
নিউইয়র্কে রাজবাড়ীর কৃতি সন্তান আব্দুস সালাম সিনেটেরিয়াল অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত
  • শিহাবুর রহমান
  • ২০২৩-০২-০৭ ১৪:১৭:১৫

আমেরিকায় বাংলাদেশ কমিউনিটিতে ও সমাজসেবায় বিশেষ অবদান রাখায় সিনেটেরিয়াল অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন ইউএসএ’র জেনারেল সেক্রেটারী ও রাজবাড়ী জেলার কৃতি সন্তান মুহাম্মদ আব্দুস সালাম।
  সম্প্রতি নিউইয়র্কের গুলশান ট্রেসে তার হাতে এ পুরস্কার তুলে দেন নিউ আমেরিকান ডেমোক্রেটিক ক্লাবের সদস্যরা। 
  মুহাম্মদ আব্দুস সালাম শুধু প্রবাসেই নয় বাংলাদেশেও সমাজ সেবার পাশাপাশি শিক্ষার মানন্নোয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। একটি শিক্ষিত জাতি ও সমাজ গড়ার প্রত্যয়ে তিনি তার জন্মভূমি রাজবাড়ী জেলার কালুখালী উপজেলার মদাপুর ইউনিয়নের কাটাবাড়ীয়া গ্রামে মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত করেছেন নুর নেছা কলেজ। কলেজটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে পাঠ্য বই বিতরণ, স্কুল ড্রেস ও জুতাসহ অন্যান্য শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ করে আসছেন এই গুণী ব্যক্তি। অজোপাড়া গায়ে একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠিত করারও প্রবল ইচ্ছা রয়েছে তার।
  অ্যাওয়ার্ড পাওয়ার পর মুহাম্মদ আব্দুস সালাম বলেন, এ অর্জন শুধু আমার নয়। এটি বাংলাদেশের পুরস্কার। এ অ্যাওয়ার্ড বিজয়ে আমার সামনের কাজগুলো আরও সুন্দর করে করতে আমাকে উৎসাহিত করবে। 
  উল্লেখ্য, মুহাম্মদ আব্দুস সালাম ১৯৫২ সালে কালুখালী উপজেলার মদাপুর ইউনিয়নের কাটাবাড়ীয়া গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি ১৯৬৭ সালে মৃগী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেন। এরপর রাজবাড়ী সরকারী কলেজ থেকে আইএসসি ও বিএসসি এবং ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় থেকে এম.এ পাশ করেন।
  মুহাম্মদ আব্দুস সালাম কর্মময় জীবনের শুরুতেই ১৯৮৫ সালে রাজবাড়ী বিসিক শিল্পনগরীতে গড়ে তোলেন পুষ্প আইস প্রোডাক্ট নামে একটি আইসক্রীমের ফ্যাক্টারী। ওই সময়ে পুষ্প আইসক্রীম অল্প সময়ের মধ্যেই সবার কাছে খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠে। এর খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। তিনি রাজবাড়ী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র প্রতিষ্ঠাকালীন সহ-সভাপতি ছিলেন। তিনি নারায়নগঞ্জেও একজন সুমানধর্মী ব্যবসায়ী ছিলেন।
  ১৯৯২ সালে মুহাম্মদ আব্দুস সালাম পাড়ি জমান সুদুর আমেরিকাতে। বর্তমানে সেখানেই বসবাস করছেন তিনি। কিন্তু দেশের মানুষের কথা এতোটুকুও ভোলেননি। গ্রামের মানুষকে সুশিক্ষিত করতে নিজে গ্রামে কাটাবাড়ীয়ায় মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত করেছেন নুর নেছা কলেজ। তার পরিকল্পনা রয়েছে একটি হাসপাতাল করার। শুধুই তাই নয় এলাকার গরীব ও অসহায় মানুষের মাঝে আর্থিক সাহায্য সহযোগিতা করার জন্য প্রতিষ্ঠিত করেছেন এনাবিয়া চেরিটেবল অর্গানাইজেশন নামে একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে গরীব ও অসহায় মানুষের মাঝে আর্থিক সহযোগিতা করার পাশাপাশি গরীব মেধাবী শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করছেন তিনি। 
  এছাড়াও এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে প্রতি বছর শীতকালে গরীব মানুষের মধ্যে কম্বল, লেপ, সোয়েটার, টুপি ও বাচ্চাদের জুতা বিতরণ করা হচ্ছে। এবারো শীতের শুরুতে শীতার্ত মানুষের মাঝে লেপ বিতরণ করা হয়। এমনকি বহিঃবিশে^ যখন করোনা ভাইরাস শুরু হয়। ঠিক তখন রাজবাড়ীতে সর্ব প্রথম বিনামূল্যে মাস্ক ও লিফলেট বিতরণের মাধ্যমে সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেয় তার হাতে গড়া প্রতিষ্ঠান এনাবিয়া চেরিটেবল অর্গানাইজেশন।
  মুহাম্মদ আব্দুস সালাম দাম্পত্য জীবনে দুই কন্যা সন্তানের জনক। তার বড় কন্যা আমেরিকায় শিক্ষকতা করে এবং ছোট কন্যা কলম্বিয়া বিশ^বিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা শেষ করে কর্মজীবনে প্রবেশ করেছে। তার স্ত্রী লিলি আক্তার কুমকুম এনাবিয়া চেরিটেবল অর্গানাইজেশনের চেয়ারম্যান। মূলত সহধর্মিনী লিলি আক্তার কুমকুমের অনুপ্রেরণা ও পরামর্শে তিনি এসব কর্মকান্ড করে যাচ্ছেন।

 

নিউইয়র্কে রাজবাড়ীর কৃতি সন্তান আব্দুস সালাম সিনেটেরিয়াল অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত
যেভাবে কাঁটা গলিয়ে ইলিশ রাঁধবেন
বানরের জন্য নেই ত্রাণ, ওদের কান্না থামাবে কে?
সর্বশেষ সংবাদ