ঢাকা শনিবার, জুলাই ২০, ২০২৪
ঈদযাত্রায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ভোগান্তি নেই ঘাটে॥স্বস্তিতে ফিরছে মানুষ
  • মীর সামসুজ্জামান সৌরভ/মইনুল হক মৃধা
  • ২০২৪-০৬-১৫ ১৫:০৭:০৫

 একদিন পরেই পবিত্র ঈদুল আযহা। প্রিয়জনদের সাথে ঈদ উদযাপনে বাড়ি ফিরছে ঘরমুখো মানুষ।

 মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাট হয়ে পদ্মা নদী পাড়ি দিয়ে রাজবাড়ী জেলার দৌলতদিয়া ঘাটে আসছে মানুষ। তবে যানবাহন ও যাত্রীর চাপ বাড়লেও নৌরুটের যাত্রায় নেই কোন ভোগান্তি।

 গতকাল ১৫ই জুন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ঘাটে অবস্থান করে এ চিত্র লক্ষ্য করা যায়।

 সরেজমিনে দেখা যায়, পাটুরিয়া ঘাট থেকে প্রতিটি লঞ্চে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে দৌলতদিয়া ঘাটে আসছে লঞ্চগুলো। এদিকে প্রতিটি ফেরীতে বাস, ট্রাকের চেয়ে ছোট গাড়ি, মোটর সাইকেল ছিলো চোখে পড়ার মতো। গত শনিবার সকাল থেকেই যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বাড়লেও সময়মতো ফেরী পারাপার হওয়ায় স্বস্তিতে বাড়ি ফিরতে পেরে খুশি যাত্রীরা। এদিকে দৌলতদিয়া ঘাটে যানজট না থাকায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে আসা যানবাহনগুলো সরাসরি ফেরিতে ঢাকায় ফিরছে।

 গাজীপুর থেকে আসা হাসান হাবিব বলেন, গত রোজার ঈদেও বাড়ি ফিরতে কোন ঝামেলা পোহাতে হয়নি, এবারও পথে ও ঘাট পর্যন্ত আসতে কোন ভোগান্তি হয়নি। এখন ঘাট থেকে মধুখালীতে গেলেই বাড়ি যেতে পারবো।

 ফেরী ঘাটে কথা হয় মিলি খাতুন নামে এক বেসরকারী চাকরীজীবি নারীর সাথে। তিনি বলেন, ঢাকা থেকে লোকাল বাসে ওপার পর্যন্ত এসেছি। ভালোমতো নদী পার হয়ে ঘাট আসলাম, এখন লোকাল বাসে বা থ্রি হুইলারে পাংশা পর্যন্ত যেতে পারলেই হয়।

 তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতু চালুর পর থেকে দৌলতদিয়া ঘাটে সেই আগের মতো ভিড় নেই। এখন সবাই শান্তিতেই গন্তব্যে যেতে পারছে।

 বাস চালক সুমন মাহমুদ বলেন, ‘দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া দুই পাড়ের কোথাও ভোগান্তি নেই। ঘাটে আসা মাত্রই ফেরীতে উঠে চলে আসছি। অথচ এক সময় দুই ঘাটে কত ভোগান্তি ছিল। ঘন্টার পর ঘন্টা দিনের পর দিন পড়ে থাকতে হতো। কখন নদী পার হওয়ার সিরিয়াল পাবো। মানুষ এখন স্বস্তি ফিরে পেয়েছে।

 বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন বলেন, বর্তমানে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ছোট বড় মিলিয়ে ১৮টি ও ৪টি ঘাটে ফেরী দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। কোন প্রকার ভোগান্তি ছাড়াই মানুষ বাড়ি ফিরতে পারছে। আমরা ঘাটে ভোগান্তি এড়াতে সার্বক্ষণিক নজরদারি করছি।

 দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটের ম্যানেজার মোঃ মোফাজ্জল হোসেন বলেন, ঈদে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে যাত্রী পারাপারে ২০ টি লঞ্চ চলাচল করছে।

 এদিকে সকালে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকা পরিদর্শন করেন রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার জি.এম আবুল কালাম আজাদ পিপিএম-সেবা।

 তিনি সাংবাদিকদের বলেন, পদ্মা সেতু চালু হবার পর থেকেই দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের ঈদযাত্রা ভিষন রকমের শান্তিময় হয়েছে। তারপরও দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটটি ঈদ যাত্রার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এ সময় বিশেষ করে সাভার, আশুলিয়া, টঙ্গী, গাজীপুর, মিরপুর, এই এলাকার মানুষ দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে পার হয়ে থাকে বিধায় আমাদের আলাদা প্রস্তুতি রাখতে হয়। যেসব যাত্রীরা পাটুরিয়া ঘাট থেকে ফেরী অথবা লঞ্চে দৌলতদিয়া এসে তারপর অন্যকোন যানবাহনে তাদের গন্তব্যে ওইসব যাত্রীদের জন্য আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। আমরা কাউন্টারের মাধ্যমে ভাড়ার তালিকা টানিয়ে দিয়েছি যাতে তাদের মধ্যে কোন অস্বস্তি না থাকে।

 পুলিশ সুপার আরও বলেন, ঈদের ঘরমুখো মানুষের যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে জেলা পুলিশ কাজ করছে। চারস্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে ঘাট এলাকায়। আশাকরছি যাত্রীরা ভোগান্তি ছাড়াই প্রিয়জনদের সাথে ঈদ করতে বাড়িতে যেতে পারবে।

 গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র জানান, ঘাটে কোন বিশৃঙ্খলা, চাঁদাবাজি, চুরি, দূর্ঘটনা যেন না ঘটে সেজন্য উপজেলা প্রশাসন সার্বক্ষণিক নজরদারি করছে। এছাড়া যাত্রীদের নিকট থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় যেন না হয সেজন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ঘাটে মনিটরিং করছে। আশা করছি কোন প্রকার অপ্রতিকর ঘটনা ঘটবেনা। সুন্দর একটি ঈদ উপহার দিতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

 রাজবাড়ীতে পবিত্র আশুরা উপলক্ষ্যে আঞ্জুমান-ই-কাদেরীয়ার শোক মিছিল
রাজবাড়ীতে বিএনপি কার্যালয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলনে সহিংসতায় নিহত শিক্ষার্থীদের গায়েবী জানাযা অনুষ্ঠিত
রাজবাড়ীতে ছাত্রদলের মিছিলে পুলিশের বাঁধা
সর্বশেষ সংবাদ