ঢাকা শনিবার, জুলাই ২০, ২০২৪
দেবগ্রামে ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে চলছে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন
  • মইনুল হক মৃধা
  • ২০২৪-০৭-১০ ১৫:৩২:১৪

রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়নের পিয়ার আলীর মোড় সংলগ্ন কাউয়ালজানি ও তেনাপচা এলাকায় প্রবাহমান মরা পদ্মা নদী হতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের অভিযোগ পাওয়া গেছে এক ইউপি সদস্য ও স্থানীয় এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। 

 এতে ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে খালপাড়ের বসতবাড়ী, ভিটেমাটি, ফসলি জমি ও একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। 

 গতকাল ১০ই জুলাই সকালে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, পাশাপাশি দুটি বড় ড্রেজার মেশিন দিয়ে সেখান থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা হচ্ছে। এতে আশপাশের পাড় ভেঙে পড়ছে। নদীর কাছেই রয়েছে চর বেতকা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়।

 স্থানীয়রা বলছেন এভাবে বালু উত্তোলন করতে থাকলে বিদ্যালয়টিও ভাঙনের কবলে পরতে বেশি দিন সময় লাগবে না। ভুক্তভোগী এলাকাবাসী অবৈধ ড্রেজার মেশিন বন্ধ করার জন্য চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন। 

 নাম না প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন এলাকাবাসী বলেন, বেড়ায় যখন ক্ষেত খায়। তখন বিচার দিবো কার কাছে। স্থানীয় ইউপি সদস্যই যদি নিজেই ড্রেজার চালায় তবে অন্যরা কি করবে?

 নদীর পাড়ে বসত করা আরও কয়েকজন ভুক্তভোগী বলেন, নিজেদের বসতবাড়ী অনেক আগেই নদীতে চলে গেছে। এখানে মানুষের কাছে থেকে সনকরালি নিয়ে বাড়ী করেছি। মাটি উত্তোলনের ফলে এ বাড়ীতে থাকা আর হবে না। দিন-রাত এভাবে মাটি খনন করলে বসতবাড়ীসহ ফসলি জমি বিলীন হতে আর বেশি সময় লাগবে না।

 জানা গেছে, দেবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মোঃ নুরাল নিজের জমি থেকে মরা পদ্মায় পুকুর খননের নামে উত্তোলিত বালু তিনি অন্যত্র বিক্রি করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। স্থানীয় লাল্টুসহ কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি একাধিক ড্রেজার মেশিন দিয়ে এ জনপ্রতিনিধির যোগসাজশে বেশ কিছুদিন ধরে এভাবে বালু উত্তোলন করছেন বলে জানা গেছে। 

 ওই এলাকার কয়েকজন কৃষক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, শুকনো মৌসুমে এই খালের জমিতে তারা বোরো ধান, বাদাম, সরিষাসহ নানা ধরণের কৃষি ফসলের আবাদ করে থাকেন। কিন্তু ৩০/৪০ ফুট গভীর করে বালু তোলার ফলে অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই তাদের বসতভিটা, বাড়ীঘর ও ফসলী জমি ধ্বসে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। আমরা বাঁধা দিতে গেলে নানা ধরণের হুমকি ও ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে।

 স্থানীয় কয়েকজন মহিলা বলেন, শুকনো মৌসুমে এই খালে পানি থাকে না। এখন বর্ষাকাল। এমনিতেই নদী ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। এখন বাড়ীর পাশে এতো গভীর করে বালু তোলা হলে তাদের শিশুদের এই গভীর পানিতে পড়ে প্রানহানির আশংকা রয়েছে। 

 অভিযুক্ত ইউপি সদস্য ফোনে দাবী করেন, তিনি নিজের খাল থেকে পুকুর খননের জন্য বালু উত্তোলন করছেন। আশেপাশে তার নিজের জমি রয়েছে। সেখান হতে বালু তুলছেন। এতে কারো কোন সমস্যা হচ্ছে না।

 এ বিয়ষে অভিযুক্ত ড্রেজার মালিক লাল্টু ফোনে বলেন, আপনারা সকালে আসছিলেন, আমি জানি। আপনারা ইউএনও’র কাছে অভিযোগ দিয়েছেন পরে তিনি বন্ধ করে দিয়েছেন।

 দেবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ হাফিজুল ইসলাম বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না। আর আমি এগুলো নিয়ে থাকিও না। তবে আমার ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার যদি মাটি কাটার সাথে যুক্ত থাকে তাহলে এটা দুঃখজনক। এ বিষয়ে উপজেলা প্রশাসন দেখবে।

 গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র বলেন, আমি এ ব্যাপারে কয়েকজনের কাছ থেকে মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি। আমি এখনি ব্যবস্থা নিচ্ছি। পদ্মা নদী বা কোন পুকুর থেকে অনুমতি ব্যতীত কোন ড্রেজিং দিয়ে মাটি উত্তোলন করা যাবে না। এ বিষয়ে জড়িতদের চিহ্নিত করা হচ্ছে।

 
পাংশায় নবাগত স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার মতবিনিময়
বালিয়াকান্দিতে বিপুল পরিমান নিষিদ্ধ চায়না জাল জব্দ
পাংশা মডেল থানা পুলিশের অভিযানে চোরাই মালামালসহ ২জন গ্রেফতার
সর্বশেষ সংবাদ