ঢাকা রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে রাজবাড়ী॥মার্চেই আক্রান্ত বেশী॥স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২১-০৩-২৯ ১৭:০৫:৩৩

মহামারি করোনা ভাইরাস সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে রাজবাড়ী জেলা। প্রতিদিন সংক্রমণ বৃদ্ধি পেলেও স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত রয়েছে। গত ১২দিন আগেও দেশে উচ্চ সংক্রমিত ঝুঁকিপূর্ণ জেলা ছিল ৬টি। কিন্তু এর মধ্যে এই সংখ্যা বেড়ে ২৯টিতে দাঁড়িয়েছে।
  সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকির জেলাগুলোর মধ্যে রয়েছে : ঢাকা, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, ফেনী, চাঁদপুর, নীলফামারী, সিলেট, টাঙ্গাইল, গাজীপুর, কুমিল্লা, রাজবাড়ী, শরীয়তপুর, কুড়িগ্রাম, নরসিংদী, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, মাদারীপুর, নওগাঁ ও রাজশাহী।
  রাজবাড়ীর সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ ইব্রাহিম টিটন কর্তৃক “সিভিল সার্জন অফিস রাজবাড়ী” নামক ফেসবুক পেইজে প্রদত্ত রাজবাড়ী জেলা করোনা আপডেট সম্পর্কিত তথ্য বিশ্লেষনে দেখা যায়, দেশে ২০২০ সালের ৮ই মার্চ প্রথম করোনাভাইরাস রোগী শনাক্ত করা হয়। আর রাজবাড়ী জেলায় প্রথম সনাক্ত হয় একই বছরের গত ৭ই এপ্রিল। ওইদিন থেকে ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত পাঠানো নমুনা পরীক্ষা করে মোট ৩ হাজার ৪০৯ জন পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়। ওই সময়ে মধ্যে সুস্থ্য হয় ৩ হাজার ২৮২ জন রোগী, হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন ছিল ৯৬ জন, হাসপাতালে ভর্তি ছিল ১জন এবং মারা গেছে ৩০ জন।
  চলতি ২০২১ সালের ২রা জানুয়ারী থেকে গত ২৭শে মার্চ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করে(গতকাল ২৯শে মার্চ পর্যন্ত) ১৪৫ জন পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়। এরমধ্যে হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৬৫ জন, হাসপাতালে  ভর্তি রয়েছে ৬জন, সুস্থ্য হয়েছে ৭৩ জন এবং মারা গেছে ১জন। এ সময়ের মধ্যে শুধুমাত্র মার্চ মাসেই ৮৮ জন পজিটিভ রোগী সনাক্ত হয়েছে।
  ২০২০ সালের গত ৭ই এপ্রিল থেকে চলতি ২০২১ সালের গতকাল ২৯শে মার্চ পর্যন্ত রাজবাড়ী জেলায় মোট ৩ হাজার ৫৫৪ জন করোনা পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়। জেলার ৫টি উপজেলার মধ্যে শীর্ষে থাকা রাজবাড়ী সদর উপজেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৯২৩ জন, পাংশা উপজেলায় ৭৭৮ জন, বালিয়াকান্দি উপজেলা ৩২৯ জন, গোয়ালন্দ উপজেলায় ২৮৩ জন এবং কালুখালী উপজেলা ২৪১ জন। একই সময়ে সুস্থ্য হয়েছে ৩ হাজার ৪৫২ জন, হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৬৫ জন, হাসপাতালে ভর্তি ৬জন ও মারা গেছে ৩১ জন।
  গতকাল ২৯শে মার্চ স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক(পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডাঃ মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, তারা প্রতি সপ্তাহেই করোনাভাইরাস সংক্রমণের গতিধারা দেখে উচ্চ সংক্রমিত ঝুঁকিপূর্ণ জেলা চিহ্নিত করেন। গত ১৩ই মার্চ তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণকালে তারা উচ্চ সংক্রমিত জেলার সংখ্যা মাত্র ছয়টি পান। পরবর্তীতে এক সপ্তাহের ব্যবধানে ২০শে মার্চ এ সংখ্যা বেড়ে ২০টি এবং ২৪ মার্চ বিশ্লেষণে এ সংখ্যা বেড়ে ২৯টিতে দাঁড়ায়।
  তিনি আরও বলেন, ‘আমরা যদি সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে চাই, একজনের কাছ থেকে আরেকজনে সংক্রমণ বন্ধ করতে চাই তাহলে প্রত্যেককে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। শুধুমাত্র উচ্চ সংক্রমিত ২৯টি জেলা নয়, আমাদের দেশের সবাইকে সাধারণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। শতভাগ মানুষকে মাস্ক পরিধান করা নিশ্চিত করতে হবে। আমরা ইতোপূর্বে সাবান দিয়ে হাত ধৌত করার যে অভ্যাসটি করেছিলাম, সেটা অনেক ভালো ফলাফল বয়ে এনেছিল। করোনা সংক্রমণ হ্রাসের পাশাপাশি ডায়রিয়া আক্রান্তের সংখ্যাও কমে গিয়েছিল। সুতরাং হাত ধোয়ার অভ্যাসটিতে আবার ফিরে যেতে হবে এবং যত দূর সম্ভব সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। জীবন ও জীবিকাকে ব্যাহত না করে যত দূর সম্ভব সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালাতে হবে।’
  উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ জেলা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা গ্রহণ কেন্দ্রীয়ভাবে নাকি স্থানীয়ভাবে হবে, এমন প্রশ্নের জবাবে ডাঃ ফ্লোরা বলেন, স্থানীয় জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও স্বাস্থ্যবিভাগ যৌথভাবে স্থানীয় সংক্রমণ পরিস্থিতি পর্য়ালোচনা করে সম্ভাব্য সকল প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
  স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেছেন, দেশের ২৯টি জেলায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। সর্বত্র মানুষে মানুষে করোনার সংক্রমণ দ্রুতগতিতে ছড়িয়ে পড়ছে। দেশের শতভাগ মানুষ মাস্ক পরাসহ প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চললে এটা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়।
  গত একদিনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরো ৫ হাজার ১৮১ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। যা বাংলাদেশে একদিনে সর্বোচ্চ। এ নিয়ে শনাক্তকৃত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ লাখ ৮৯৫ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে ৩০ জন পুরুষ ও ১৫ জন নারী। এ নিয়ে দেশে মোট করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৮হাজার ৯৪৯ জনে।
  এদিকে যেসব এলাকায় এখন সংক্রমণের হার বেশি সেসব এলাকায় সম্ভব হলে আংশিক লকডাউন দিতে সরকারের কাছে প্রস্তাব দিয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়।
  গতকাল সোমবার দুপুরে রাজধানীর হৃদরোগ ইন্সটিটিউটে হাসপাতাল ভবনের উর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অনলাইন জুমে অংশ নিয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক এ কথা বলেন।
জাহিদ মালেক বলেন, গত ২৮শে ফেব্রুয়ারী দেশে করোনা আক্রান্তের হার ছিল মাত্র ২ শতাংশের মতো। আর এখন সেটি হয়ে গেছে প্রায় ১৩ শতাংশ। প্রতিদিনই আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই মুহুর্তে করোনার উৎপত্তিস্থল বন্ধ করতে না পারলে দেশের অর্থনীতির চাকা থেমে যেতে পারে, মানুষের আর্থিক বড় রকমের সংকট হতে পারে। এ বিষয়গুলি মাথায় রেখে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে বেশ কিছু প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে।
প্রস্তাবনার মধ্যে রয়েছে- ১) যেসব এলাকায় এখন সংক্রমণের হার বেশি সে এলাকাগুলিতে সম্ভব হলে আংশিক লক ডাউন করা, ২) বিনোদন কেন্দ্রগুলি বন্ধ রাখা, ৩) পিকনিক, ওয়াজ-মাহফিল বন্ধ রাখা, ৪) বিয়ে-সাদির অনুষ্ঠান সীমিত করা, ৫) কোয়ারান্টাইন ব্যাবস্থা জোরদার করা, ৬) সকল যানবাহন, বাস, স্টিমারে যাত্রী অর্ধেক বা তার থেকে কম রাখা, ৭) অফিস আদালতে কম আসা যাওয়া করা, ৮) মুখে মাস্ক ছাড়া কোন সার্ভিস ব্যবস্থা না রাখা, ৯) মোবাইল কোর্ট বাড়িয়ে দিয়ে জরিমানা ব্যবস্থা জোরদার করাসহ আরও বেশ কিছু প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে আগামী ২-৩ দিনের মধ্যেই এ ব্যাপারে বিস্তারিত সিদ্ধান্ত নেয়া সম্ভব হবে।
  করোনাভাইরাস সংক্রমণে বিদ্যমান পরিস্থিতিতে গতকাল সোমবার ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে এ নির্দেশনা দেয়া হয়। এ নির্দেশনা আগামী দুই সপ্তাহ পর্যন্ত প্রতিপালন করতে হবে। প্রজ্ঞাপনে এই নির্দেশনা বাস্তবায়নের সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ/দফতর/সংস্থাকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে।
 

করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে রাজবাড়ী॥মার্চেই আক্রান্ত বেশী॥স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত
করোনার কমিউনিটি ট্রান্সমিশনে রাজবাড়ী জেলায় সংক্রমণ ব্যাপক ছড়িয়ে পড়ছে॥আক্রান্ত ৪৫৭ জন
করোনা মহামারী ঃ রাজবাড়ী পৌরসভার ২টি ভিআইপি  ওয়ার্ডসহ ৩টি ওয়ার্ডকে ‘রেড জোন’ ঘোষণার সিদ্ধান্ত
সর্বশেষ সংবাদ